Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শিক্ষক মুরাদের শাস্তি দাবিতে ভিকারুননিসায় শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

  • বছরের পর বছর ধরে ছাত্রীদের যৌন হয়রানি করছিলেন মুরাদ হোসেন
  • নিরাপদ শিক্ষাঙ্গনের জন্য তার অপসারণের দাবি
আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৬:৫০ পিএম

ঢাকার ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আজিমপুর শাখার গণিত শিক্ষক মুরাদ হোসেন সরকারকে স্থায়ী বরখাস্ত এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে লালবাগের পিলখানা রোডে স্কুলটির আজিমপুর শাখার সামনে বিক্ষোভ সমাবেশে এসব দাবি জানান তারা।

বিক্ষোভ সমাবেশে শিক্ষার্থীরা ‘‘আমরা বরখাস্ত চাই, বদলি চাই না, মুরাদ হোসেনের শাস্তি চাই’’ স্লোগান দেয় ও বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করে।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বছরের পর বছর ধরে মুরাদ হোসেন তাদের সহপাঠীদের যৌন হয়রানি করে আসছেন। ভয়ে তারা কথা বলেনি। নিরাপদ শিক্ষাঙ্গনের জন্য এই শিক্ষকের অপসারণের দাবি জানান তারা।

অভিভাবকরা বলেন, ‘‘মুরাদ হোসেনের মতো শিক্ষকের কাছে আমাদের সন্তানেরা নিরাপদ নয়। এই শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া প্রয়োজন। অথচ তাকে মূল শাখায় সংযুক্ত করা হয়েছে। তাকে অবিলম্বে বরখাস্ত করতে হবে। একইসঙ্গে তাকে বিচারের আওতায় আনতে হবে।’’

স্কুলের এক সাবেক শিক্ষার্থী বলেন, ‘‘মুরাদ হোসেন প্রতি ব্যাচে একজন বা দুইজনকে টার্গেট করতেন। কোচিংয়ে তিনি টার্গেট করা শিক্ষার্থীদের কোচিংয়ের পরও নানা বাহানায় আটকে রেখে যৌন হয়রানি করতেন। অনেকেই ভয়ে মুখ খুলতে পারত না। আমরা মুরাদ হোসেন সরকারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’’

বিক্ষোভ কর্মসূচির এক পর্যায়ে সেখানে উপস্থিত হন স্কুলের আজিমপুর শাখার (দিবা) ভারপ্রাপ্ত উপাধ্যক্ষ শাবনাজ সুলতানা কামাল। তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‘তোমাদের দাবি স্কুল কর্তৃপক্ষ মেনে নিয়েছে। মুরাদ হোসেন সরকারকে প্রিন্সিপালের দপ্তরে সংযুক্ত করা হয়েছে। পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

এরপর শাবনাজ সুলতানা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আমাকে স্কুল কর্তৃপক্ষ এক চিঠিতে জানিয়েছে, মুরাদ হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়াতে এবং স্কুলের পরিবেশ শান্ত রাখতে তাকে এই শাখা থেকে সরিয়ে প্রিন্সিপালের অফিসে সংযুক্ত করা হয়েছে।’’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‌‘‌‘আমরা অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমলে নিয়েছি। ভুক্তভোগী ও তাদের অভিভাবকদের সঙ্গে আমরা আন্তরিকতার সঙ্গে কথা বলেছি।’’

About

Popular Links