Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

আরও ১১৮ শহিদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ

এ নিয়ে চার দফায় মোট ৫৬০ জন শহিদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়

আপডেট : ২৪ মার্চ ২০২৪, ০৩:৩৫ পিএম

চতুর্থ ধাপে আরও ১১৮ জন শহিদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করেছে সরকার। এ নিয়ে চার দফায় মোট ৫৬০ জন শহিদ বুদ্ধিজীবীর তালিকা প্রকাশ করল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

রবিবার (২৪ মার্চ) মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এ তালিকা প্রকাশ করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

এই ১১৮ জনের মধ্যে তিনজন সাহিত্যিক, একজন বিজ্ঞানী, একজন চিত্রশিল্পী, ৫৪ জন শিক্ষক, চারজন আইনজীবী, ১৩ জন চিকিৎসক, তিনজন প্রকৌশলী, আটজন সরকারি ও বেসরকারি কর্মচারী, ৯ জন রাজনীতিক ও ১৩ জন সমাজসেবী রয়েছেন।

এছাড়াও শহিদ বুদ্ধিজীবীর তালিকায় সংস্কৃতিসেবী এবং চলচ্চিত্র, নাটক, সংগীত এবং শিল্পকলার অন্যান্য শাখার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ৯ জন ব্যক্তিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে ।

২০২১ সাল থেকে একাত্তরের শহিদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা সরকার ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করছে। প্রথম দফায় ২০২১ সালের ৭ এপ্রিল ১৯১ জন শহিদ বুদ্ধিজীবীর নাম গেজেট আকারে প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

২০২২ সালের ২৯ মে দ্বিতীয় তালিকায় আসে ১৪৩ জনের নাম। আর তৃতীয় দফায় এ বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি ১০৮ জন শহিদ বুদ্ধিজীবীর নামের গেজেট প্রকাশ করা হয়। এখন আরও ১১৮ জনের নাম আসায় চার দফায় শহিদ বুদ্ধিজীবীর সংখ্যা দাঁড়াল ৫৬০ জনে।

শহিদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা প্রণয়নের জন্য ২০২০ সালের ১৯ নভেম্বর গবেষক, বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে ১১ সদস্যের যাচাই-বাছাই কমিটি গঠন করা হয়।

এরপর দুটি উপকমিটি করা হয়। একটি কমিটির কাজ ছিল “শহিদ বুদ্ধিজীবী”র সংজ্ঞা নির্ধারণ করা। সেই সংজ্ঞা অনুসারে শহিদ বুদ্ধিজীবীদের নাম সংগ্রহ ও তা যাচাই-বাছাই করা অন্য কমিটির কাজ।

প্রথম কমিটির কাজ শেষে ২০২১ সালের ২১ মার্চ শহিদ বুদ্ধিজীবীর সংজ্ঞা প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করা হয়।

সেখানে বলা হয়, যে সব সাহিত্যিক, দার্শনিক, বিজ্ঞানী, চিত্রশিল্পী, শিক্ষক, গবেষক, সাংবাদিক, আইনজীবী, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, স্থপতি, ভাস্কর, সরকারি ও বেসরকারি কর্মচারী, রাজনৈতিক, সমাজসেবী, সংস্কৃতিসেবী, চলচ্চিত্র, নাটক, সংগীত ও শিল্পকলার অন্যান্য শাখার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি তাদের বুদ্ধিবৃত্তিক কর্মের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন এবং পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কিংবা তাদের সহযোগীদের হাতে শহিদ কিংবা চিরতরে নিখোঁজ হয়েছেন, তারা শহিদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে বিবেচিত হবেন।

About

Popular Links