Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কিশোরগঞ্জে ফেসবুকে ‘হা হা’ দেওয়ায় সংঘর্ষ, ১০ দোকান ভাঙচুর

দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছে

আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৩৪ পিএম

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে উপজেলায় ফেসবুকে “হা হা রিয়্যাক্ট” দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। এ সময় ভাঙচুর করা হয়েছে ১০টি দোকানপাট।

সোমবার (১ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টার দিকে শহরের লোকাল বাসস্ট্যান্ড কমলপুর মধ্য পাড়া ও পূর্ব পাড়া এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, মধ্যপাড়া এলাকার আজিবর ও পূর্বপাড়ার ওমর মিয়ার মধ্যে ফেসবুকে হা হা রিয়েক্ট দেওয়াকে কেন্দ্র করে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। স্থানীয়দের সহযোগিতায় দুইজনকে মিলিয়ে দেন দোকান মালিক মানিক মিয়া। ৩০ মিনিট পর দুই পক্ষ দা, বল্লম, লাঠি ও ইট পাটকেল নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার একপর্যায়ে মধ্যপাড়ার সংঘর্ষকারীরা পূর্বপাড়ার প্রায় ১০টি দোকানে ভাঙচুর চালায়। এ সময় স্থানীয় বাসিন্দা উজ্জ্বল মিয়াসহ পাঁচজন আহত হন।

ক্ষতিগ্রস্ত দোকানদার বাচ্চু মিয়া ও রিপন মিয়া বলেন, “আমরা দোকান বন্ধ করে মসজিদে তারাবির নামাজ পড়তে গিয়েছিলাম। এসে দেখি আমাদের দোকানের শাটারগুলো ভাঙা। প্রতিটি দোকানেরই একই অবস্থা।”

স্থানীয় কমলপুর মধ্যপাড়ার আইনুল মিয়া বলেন, “ফেসবুকে হা হা রিয়্যাক্টের মতো সামান্য একটি বিষয় নিয়ে দুইজন ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়ে। ছোট্ট একটি বিষয় অনেক বড় হয়ে গিয়েছে। সংঘর্ষকারীরা অনেকগুলো দোকানের শাটার ভেঙে দিয়েছে।”

পূর্ব পাড়া এলাকার কাজী মামুন বলেন, “আমি দোকানে বসে ছিলাম। হঠাৎ দেখি দুই পক্ষের কিছু বখাটে তরুণ দা, বল্লম, লাঠিসোঠা নিয়ে ঝগড়া করছে। এরই মধ্যে মধ্যপাড়ার কিছু বখাটে দোকানপাট ভাঙচুর করে। আমি চেষ্টা করেছি থামানোর। কিন্তু তারা কথা শুনেনি। এরা আমাদের এলাকার বেয়াদব ছেলেপেলে। দুই দিন যেতে না যেতেই তারা ঝগড়ায় লিপ্ত হয়।”

ভৈরব থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সফিকুল ইসলাম বলেন, “আমরা খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। এ ঘটনায় দুইজনকে আটক করা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে। এছাড়া অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

About

Popular Links