Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বগুড়ায় যমুনা নদীতে বেড়েছে পানি, ফিরছে নাব্য

নাব্য সংকটে নৌ চলাচল বন্ধ ছিল দীর্ঘদিন। বিপাকে পড়েছিলেন চরবাসী

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:১৮ পিএম

বগুড়ায় সারিয়াকান্দির যমুনা নদীতে পানি বাড়তে শুরু করেছে। বন্ধ হওয়া যাওয়া নৌ-ঘাটগুলো সচল হতে শুরু করেছে। এতে বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী যাত্রী ও মাঝিদের মাঝে স্বস্তি ফিরছে।

বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্র জানায়, ঈদ-উল ফিতরের আগে থেকেই সারিয়াকান্দিতে যমুনার পানি বাড়তে শুরু করে। কয়েকদিন এ অবস্থা অব্যাহত ছিল। তবে বুধবার (১৭ এপ্রিল) সকালে পানি কিছুটা কমেছে।

পাউবো জানায়, গত রবিবার সারিয়াকান্দিতে পানির উচ্চতা ছিল ৯.৬৬ মিটার, সোমবার ছিল ১০.১৩ মিটার, যা মঙ্গলবার হয় ১০.৩২ মিটার এবং বুধবার সকালে পানির উচ্চতা ছিল ১০.২৮ মিটার।

সারিয়াকান্দিতে যমুনা নদীর পানির বিপৎসীমা ১৬.৭০ মিটার। সেই হিসেবে পানি এখনও বিপৎসীমার ৬.৪২ মিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

স্থানীয়রা বলছেন, গত কয়েক মাস ধরে এ উপজেলার যমুনা নদীতে নাব্য সংকট চলছিল। পুরো যমুনা নদীজুড়ে অসংখ্য ডুবোচরের সৃষ্টি হয়। এসব ডুবোচরে নৌকা আটকে যেত। এছাড়া নাব্য সংকটে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল উপজেলার সদর ইউনিয়নের পারতিত পরল আলতাফ আলীর নৌ-ঘাট, হাটশেরপুর ইউনিয়নের হাসনাপাড়া নৌ-ঘাট, হাটশেরপুর নৌ-ঘাট, নিজ বলাইল নৌ-ঘাট এবং চালুয়াবাড়ী ইউনিয়নের আমতলী নৌ-ঘাটসহ বেশ কয়েকটি রুটের নৌকা চলাচল।

উপজেলার সবচেয়ে ব্যস্ততম সারিয়াকান্দি কালিতলা নৌ-ঘাটেও দেখা দিয়েছিল নাব্য সংকট। নৌযান চলাচল করতে না পারায় বিপাকে পড়েছিলেন চরবাসী। তবে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এসব বন্ধ হয়ে যাওয়া নৌ-ঘাটগুলো প্রাণ ফিরে পেয়েছে। বাধা ছাড়াই যমুনায় নৌকা চলাচল করছে অনায়াসে।

উপজেলার সদর ইউনিয়নের পারতিত নৌ-ঘাটের মাঝি আলতাফ আলী ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “যমুনায় পানি না থাকায় গত কয়েকমাস ধরেই ঘাটটি বন্ধ ছিল। গত কয়েকদিন ধরে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নৌ-ঘাটটি আবারও সচল হয়েছে।”

কালিতলা নৌ-ঘাটের মাঝি আমিনুল ইসলাম বলেন, “গত কয়েক মাস ধরেই যমুনায় চলাচল করতে গিয়ে নৌকা ডুবোচরে আটকে যেত। তখন যমুনায় চলাচল খুবই কষ্টকর ছিল। এখন যমুনায় পানি বাড়ায় মোটামুটি বাধাবিঘ্ন ছাড়াই চলাচল করা যাচ্ছে।”

বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী নাজমুল হক বলেন, “উজানে (উত্তরাঞ্চল) ভারি বৃষ্টির জন্য যমুনার পানি কিছুটা বেড়েছে। আরও কয়েকদিন পানি ওঠানামা করবে। মে মাসের শেষের দিক থেকে একেবারে স্থায়ীভাবে পানি বৃদ্ধি পাওয়া শুরু করবে। তখন কোথাও নাব্য সংকট থাকবে না।”

About

Popular Links