Saturday, June 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফরিদপুরে বিয়েবাড়িতে ‘বউ দেখা’ নিয়ে সংঘর্ষে জড়ালো দুপক্ষ

চাঁন মিয়া উচ্চস্বরে বলেন, ‘আমাদের বউ আমরা দেখব, কে ফেরাবে, কার এত বড় সাহস’

আপডেট : ২৫ মে ২০২৪, ০৪:০১ পিএম

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলায় বিয়েবাড়িতে কনে দেখাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে উপজেলার কাইচাইল ইউনিয়নের মধ্য কাইচাইল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, দুই মাস আগে মধ্য কাইচাইল গ্রামের মো. পান্নু মিয়ার মেয়ে বৃষ্টি আক্তারের (২৩) সঙ্গে একই উপজেলার চরযশোরদী ইউনিয়নের নাগারদিয়া গ্রামের মো. মিরান তালুকদারের ছেলে শাহ আলম তালুকদারের (২৭) বিয়ে হয়। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারতে শুক্রবার বিকেলে ১৩০ জন বরযাত্রী নিয়ে কনের বাড়িতে যান শাহ আলম।

খাওয়া শেষে শাহ আলমের ছোট ভাই সজীব তালুকদার কনেকে দেখতে চান। তখন কনেপক্ষের লোকজন জানান, কনে এখনো সাজানো হয়নি, তাই এখন দেখা যাবে না। তখন সজীব বলেন, “আমার ভাবিকে আমি দেখব, আপনাদের সমস্যা কি।” এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বাগ্বিতণ্ডা শুরু হয়।

একপর্যায়ে বরের ফুফাতো ভাই চাঁন মিয়া (৩৮) এসে উচ্চস্বরে বলেন, “আমাদের বউ আমরা দেখব, কে ফেরাবে, কার এত বড় সাহস।” এতে কনেপক্ষের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে চাঁন মিয়ার মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করেন। এতে তার মাথা ফেটে যায়। এরপর বর ও কনেপক্ষের মধ্যে চেয়ার ছোড়াছুড়ি শুরু হয়। আহত চাঁন মিয়াকে নগরকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর কনেকে নিয়ে বরযাত্রীসহ সন্ধ্যায় ওই বাড়ি ত্যাগ করেন বর শাহ আলম তালুকদার।

এ বিষয়ে বড় শাহ আলম তালুকদার সাংবাদিকদের বলেন,  “খাওয়াদাওয়া শেষ হওয়ার পর বউ দেখা নিয়ে কথা-কাটাকাটি থেকে বিষয়টি চেয়ার ছোড়াছুড়ি ও মারধর পর্যন্ত যারা মারধর করেছেন, তারা আমার শ্বশুরবাড়িরই দূরসম্পর্কের আত্মীয়। এ ঘটনায় আমরা ও আমার শ্বশুরবাড়ির লোকজন লজ্জিত ও বিব্রত।”

শাহ আলম তালুকদার বর্তমানে চরযশোরদী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক।

এদিকে এ বিষয়ে নগরকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আমিনুর রহমান বলেন, “এ ঘটনায় এখনো কেউ অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

About

Popular Links