Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

তথ্যমন্ত্রী : কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরি পাচ্ছেন

তথ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ ইসলামের জন্য আন্তরিক।

আপডেট : ০৮ মার্চ ২০১৯, ০৫:১৩ পিএম

কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের দাওরায়ে হাদিস সনদকে ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবির মাস্টার ডিগ্রির সমমান হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার পর এখন কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরি পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আজ শুক্রবার বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির (বিইউআইপি) পঞ্চম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত সমাবেশে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, 'আওয়ামী লীগ সরকার সনদের স্বীকৃতি দেয়ার পর কওমি মাদ্রাসার কমপক্ষে ১ হাজার ১০ জন শিক্ষার্থীকে সরকারি চাকরি দিয়েছে। সেই সাথে আমরা স্বীকৃতির বিষয়ে সংসদে আইনও পাস করেছি।'

‘আমরা শুধু স্বীকৃতিই দেইনি, পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সরকারি চাকরি দিয়েছি। আমরা প্রায় ৭৩ হাজার মক্তব ভিত্তিক মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেছি। প্রতিটি মক্তবে একজন করে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং তারা সরকারি বেতন পাচ্ছেন।’

মন্ত্রী আরও বলেন, 'বিএনপি-জামায়াত ও জাতীয় পার্টি আলেমদের ব্যবহার করে ক্ষমতায় এসেছিল কিন্তু তারা ইসলামের জন্য কিছু করেনি। বিএনপি-জামায়াত শুধুমাত্র রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ইসলামকে ব্যবহার করেছে। তাই তাদের ব্যাপারে সচেতন হবে হবে কারণ তারা এ বিষয়ে আন্তরিক নয়। অন্যদিকে শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ ইসলামের জন্য আন্তরিক।'

‘আমরা সরকারি অর্থায়নে প্রতিটি উপজেলায় মসজিদ নির্মাণের প্রকল্প শুরু করেছি। ইতিমধ্যে ২৫০টি মসজিদের জন্য দরপত্র সম্পন্ন হয়েছে,’ বলেন তিনি।

হাছান মাহমুদ জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে ইমাম-মোয়াজ্জিন ট্রাস্ট গঠন করলেও পরের বিএনপি সরকার এ তহবিলে কোনো টাকা দেয়নি। শেখ হাসিনা পুনরায় ক্ষমতায় এসে তহবিলে ১০ কোটি টাকা দেন। প্রধানমন্ত্রী আলেমদের দাবি পূরণ করেছেন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিইউআইপির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মাওলানা মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন, কবি মুহিব খান প্রমুখ।

About

Popular Links