• সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২৫ দুপুর

শিশুদের পদচারণায় মুখর ছিল ঢাকা লিট ফেস্ট

  • প্রকাশিত ০৭:৪৯ রাত নভেম্বর ৯, ২০১৯
ঢাকা লিট ফেস্ট
শিশুদের পদচারণায় মুখর ছিল ঢাকা লিট ফেস্টের নবম আসর। মাহমুদ হোসেন অপু/ঢাকা ট্রিবিউন

উৎসবের সমাপনী দিনের বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও সেশনে বড়দের পাশাপাশি ছিল অগণিত শিশুদের ভীড়

গুঁড়ি গুঁড়ি কিংবা ঝুম বৃষ্টি, ঢাকা লিট ফেস্টে আসতে শিশুদের কোনো কিছুই দমাতে পারেনি। ক্ষুদে দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে ছিল ঢাকা লিট ফেস্টের তিনটি দিনই। উৎসবের সমাপনী দিনের বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও সেশনে বড়দের পাশাপাশি ছিল অগণিত শিশুদের ভীড়। 

লেখক ও অঙ্কনশিল্পী কার্টিস জবলিং- যার বিভিন্ন কাজের মধ্যে রয়েছে অ্যানিমেটেড টিভি সিরিজ "বব দ্য বিল্ডার"- আজ এক সেশনে বলছিলেন এই টিভি সিরিজ তৈরির পেছনের গল্প। বাংলা একাডেমির নজরুল মঞ্চে আয়োজিত এই সেশনের শিরোনাম ছিল, "ওয়ার্ডস অ্যান্ড পিকচার্স: বব টু রারা"।

কার্টিস বলেন, "অনেকেই মনে করেন বব দ্য বিল্ডার হলিউডে বানানো হয়েছে। কিন্তু আমি আমার ম্যানচেস্টারের বাসাতেই এই চরিত্রগুলো বানিয়েছিলাম।"

তিনি বলেন, কেউ যদি একজন শিল্পী বা লেখক হতে চায়, তাহলে সব থেকে যা মূল্যবান তা হল নিজের শখটাকে লালন করা।

সেশন শেষে তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, যদি কোনো বাংলাদেশি শিল্পী তার জায়গায় সফল হতে চান, তাহলে স্থানীয় প্রকাশকদের সঙ্গে কাজ করা উচিত। 

সপ্তম গ্রেডের ছাত্রী পারিসা রাদি তার শিক্ষক ও সহপাঠিদের সঙ্গে সুদূর নারায়নগঞ্জের হেরিটেজ স্কুল থেকে এসেছে ঢাকা লিট ফেস্ট দেখতে। 

ঢাকা ট্রিবিউনকে সে জানায়, শিশুদের জন্য করা সেশনটি অনেক তথ্যবহুল ছিল। 

"তবে আমার মনে হয় এটি আমাদের জন্য আরও উপকারী হতো যদি স্কুলে বুলিং বন্ধ করা নিয়ে কোনো সেশন তারা করতো", যোগ করে সে। 

"দ্য ক্লাইমেট ক্রাইসিস গেম" এর সঞ্চালক সামিয়া সেলিম বলেন, এই সেশনটি নয় থেকে তের বছরের শিশুদের জন্য করা হয়েছে যেন তারা জলবায়ু পরিবর্তন সমস্যা সম্পর্কে জানতে পারে। 

তিনি বলেন, "গ্রেটা থানবার্গের মতো শিশুরা জলবায়ু পরিবর্তন ধর্মঘটে নেতৃত্ব দিচ্ছে। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে আমাদের শিশুদের জলবায়ু পরিবর্তন রোধে সক্রিয় করা।"

এই সেশনে জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত কুইজে শিশুরা অংশগ্রহণ করে এ বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য জানতে পারে এবং এ সংক্রান্ত বিভিন্ন ভুল ধারণা সম্পর্কেও অবহিত হয়। 

জিশান কিংশুক তার ১১ ও ৯ বছরের দুই সন্তানকে নিয়ে লিট ফেস্টে হাজির হয়েছেন। তিনি চান তার বাচ্চারা যেন বুঝতে পারে যে শেখার ব্যাপারটা আনন্দের সাথেও করা যায়। 

ঢাকা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন, এসব সেশনের সবচেয়ে সেরা ব্যাপার ছিল শিশুরা বিভিন্ন মজার খেলায় অংশ নিয়েছে এবং একই সাথে অনেক কিছু শিখতেও পেরেছে।