• শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫২ রাত

হিলি স্থলবন্দরে পেঁয়াজের দাম কমেছে

  • প্রকাশিত ০৩:৪৮ বিকেল সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৯
হিলি পেঁয়াজ
দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে বেড়েছে পেঁয়াজের আমদানি ঢাকা ট্রিবিউন

আগামী দিনগুলোতে দাম আরও কমবে বলে জানিয়েছেন বন্দরের ব্যবসায়ীরা

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজের আমদানি বাড়ায় একদিনের ব্যবধানে শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) পেঁয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ৪ থেকে ৫টাকা।

একদিন আগেও প্রতি কেজি পেঁয়াজ প্রকারভেদে পাইকারী ৫১ টাকা থেকে ৫৭ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে দাম কিছুটা কমে ৪৭ টাকা থেকে ৫২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আগামী দিনগুলোতে দাম আরও কমবে বলে জানিয়েছেন বন্দরের ব্যবসায়ীরা।

হিলি স্থলবন্দর কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, রফতানি মূল্য বাড়ার কারণে বন্দর দিয়ে পেঁয়াজের আমদানি কমে প্রতিদিন ১২ থেকে ১৩ ট্রাকে নেমে আসে। বর্তমানে চালান কিছুটা বেড়ে প্রতিদিন ২১ থেকে ২২ ট্রাকে দাঁড়িয়েছে।

গত শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) বন্দর দিয়ে ২২ ট্রাকে ৪৮৯ টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্দর দিয়ে মোট ৯ হাজার ৯৪৮ টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে।

হিলি স্থলবন্দর ঘুরে দেখা গেছে, ভারত থেকে আমদানি করা প্রতি কেজি পেঁয়াজ হিলি স্থলবন্দরে পাইকারীতে (ট্রাকসেল) প্রকারভেদে ৪৭ টাকা থেকে ৫২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। 

এদিকে, পাইকারীতে দাম কমার প্রভাব খুচরা বাজারেও পড়েছে। দুদিন আগে প্রতি কেজি ভারতীয় পেঁয়াজ ৬৫ থেকে ৭০ টাকা বিক্রি হলেও বর্তমানে তা কমে ৫৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে আর দেশীয় পেঁয়াজ ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে তা কমে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

হিলি স্থলবন্দর আমদানি রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশীদ ও পেঁয়াজ ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম জানান, কিছুদিন আগে ভারত থেকে প্রতিটন পেঁয়াজ ২শ ৫০ থেকে ৩শ মার্কিন ডলার মূল্যে আমদানি হলেও গত ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে পেঁয়াজের রফতানি মূল্য তিনগুণের মতো বাড়িয়ে ৮৫২ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করে ভারতীয় সরকার। মূলত তারপর থেকেই দেশে পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে ওঠে।