• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:০১ দুপুর

বিশ্বব্যাংক: বাংলাদেশ, নেপালের অর্থনীতি ভারতের চেয়ে দ্রুত বাড়বে

  • প্রকাশিত ০২:৩১ দুপুর অক্টোবর ১৩, ২০১৯
বাংলাদেশ
বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি বেড়ে চলতি অর্থবছর ৮ দশমিক ১ শতাংশে পৌঁছাতে পারে বলে আশা করছে বিশ্বব্যাংক। মাহমুদ হোসেন অপু /ঢাকা ট্রিবিউন

চলতিবছর ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৬ শতাংশে নেমে যেতে পারে এবং বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি বেড়ে চলতি অর্থবছর ৮ দশমিক ১ শতাংশে পৌঁছাতে পারে বলে আশা করা হয়

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সঙ্গে বার্ষিক বৈঠক সামনে রেখে নতুন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক। এতে বলা হয় টানা দ্বিতীয় বছরের মতো নিম্নমুখী হবে ভারতের অর্থনীতি।

রবিবার (১৩ অক্টোবর) প্রতিবেদনে সংস্থাটি জানায়, এর প্রভাব পুরো দক্ষিণ এশিয়ায় পড়বে। বলা হয়, এই প্রবণতার কারণে চলতি বছর ভারতের চেয়ে দ্রুত বাড়বে বাংলাদেশ ও নেপালের অর্থনীতি। খবর বাংলা ট্রিবিউনের।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, চলতিবছর ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার ৬ শতাংশে নেমে যেতে পারে। ধারাবাহিকভাবে ২০২১ সাল নাগাদ তা ভালো হয়ে ৬ দশমিক ৯ শতাংশে উঠতে পারে বলে আশা করছে বিশ্বব্যাংক। পরের বছর তা ৭ দশমিক ২ শতাংশে উন্নীত হতে পারে।

অপরদিকে, বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার ২০১৮ সালের ৭ দশমিক ৯ শতাংশ থেকে বেড়ে চলতি অর্থবছর ৮ দশমিক ১ শতাংশে পৌঁছাতে পারে বলে আশা করা হয়েছে ওই প্রতিবেদনে। ২০২০ ও ২০২১ সালে এই প্রবৃদ্ধির হারের পরিমাণ যথাক্রমে ৭ দশমিক ২ ও ৭ দশমিক ৩ হতে পারে। 

বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশীয় প্রধান অর্থনীতিবিদ হ্যানস টিমার বলেন, “যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের চলমান বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে ব্যাপক লাভবান হতে পারে বাংলাদেশের গার্মেন্ট শিল্প। তথ্য-উপাত্ত থেকে সাধারণভাবে আমরা যা দেখতে পাচ্ছি তা হলো পুরো অঞ্চল বিশেষ করে ভারত, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের থেকেও ভালো করছে বাংলাদেশ। শিল্প উৎপাদনে আমরা তা দেখতে পাচ্ছি, রফতানিতে তা দেখতে পাচ্ছি।”

আবার, নেপালে চলতি বছর বার্ষিক প্রবৃদ্ধির হার গড়ে ৬ দশমিক ৫ শতাংশ আর পরের বছর এর পরিমাণও বেড়ে যেতে পারে। পর্যটক আনাগোনা ও সরকারি ব্যয় বাড়ায় গতিশীল সেবা ও নির্মাণ কর্মকাণ্ড প্রবৃদ্ধির হার বাড়ায় ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছে বিশ্বব্যাংক।