• বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ০২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:৪৫ সন্ধ্যা

ফুলের চারা বিক্রি করে স্বচ্ছল কুষ্টিয়ার চাষিরা

  • প্রকাশিত ০৮:৫২ রাত জানুয়ারী ৮, ২০২০
কুষ্টিয়া
বিক্রির জন্য ফুলের চারা তুলেছেন এক চাষি। ঢাকা ট্রিবিউন

‘নার্সারি মালিকরা কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাই না। এমনকি কোনো ঋণ সুবিধাও নেই । সব কিছু নিজেদের অর্থায়নে করতে হয়। যা অনেকের জন্য কঠিন হয়ে ওঠে’

ফুলের চারা উৎপাদনে কুষ্টিয়ার বিশেষ সুনাম রয়েছে। শীত বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ফুলের নার্সারিগুলোত চারার বেচাবিক্রি বেড়ে গেছে। কৃষদের ভাষ্য,প্রচলিত ফসলের চেয়ে ফুলের চারা বিক্রি করে বেশি লাভবান হচ্ছেন তারা। 

সরেজমিন জেলার বিভিন্ন নার্সারি ঘুরে দেখা যায়হাইব্রিড জাতের গাঁদারক্ত গাঁদাকুইন সুপার গাঁদাবারমাসি গাঁদার চারা ১০ টাকা করে পিস বিক্রি করা হচ্ছে। এ ছাড়াও হাইব্রিড জাতের ডালিয়া খুচরা ১৫ টাকাচন্দ্রমল্লিকা ১৫ টাকাস্নোবল ২০ টাকাক্যালেন্ডুলা ১০ টাকাজিনিয়া ১০ টাকাফ্লোস ২০ টাকাগ্যাজোনিয়া ১০ টাকাডাইনথাজ ১০রঙ্গমিক্স ১০ টাকাদোপাটী ১০স্টার ১০পাপিয়া ২০সিলভিয়া ১০ফায়ার বল ১৩০অপূর্বিয়া ৮০ টাকাপানচাটিয়া ১৫০ টাকারক্তজবা ৮০ টাকারঙ্গন ৮৫ টাকাচায়না টগর ২০ টাকাকসমস ১০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। 

হাইব্রিড গোলাপের মধ্যে তাজমহল গোলাপ খুচরা ১০০ টাকারাণী গোলাপ ১০০ টাকাবিশ্ব সুন্দরী গোলাপ ১০০ টাকাইরানি গোলাপ ২৫ টাকাকাচা হলুদঘিয়াসাদাজরিনা গোলাপ প্রকার ভেদে ১০০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। এছাড়াও দেশি জাতের গোলাপ ১০ টাকা দরে খুচরা বিক্রি করা হচ্ছে।

মিরপুর উপজেলার লিমন নার্সারির মালিক পারভেজ হাসান জয় বলেনএইসব ফুলের চারা ও বীজ যশোর গদখালীঝুমঝুমপুরবাসুদেবপুরবগুড়ার মহাস্থানগড় থেকে সংগ্রহ করা হয়। বছরের অন্য সময় ফুলের চারা তেমন বিক্রি হয় না। তবে শীত মৌসুমে ফুলের চারা বিক্রি হয় বেশি। ফুল চাষের জন্য কৃষি বিভাগ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছি। তবে সেখান থেকে সরকারি ভাবে কোনো সার-বীজ পাইনি। পেলে আরও লাভবান হাওয়া যেত।

শীতকালীন ফুলে ভরে উঠেছে কুষ্টিয়ার নার্সারি। ঢাকা ট্রিবিউন

মিরপুর জিয়া সড়কে অবস্থিত এসআর গার্ডেন সেন্টারের মালিক এ রহমান জানানপ্রায় চারমাস শীতকালীন ফুলের চারা ব্যাবসা হয়। এ বছর ফুলের চারার বেশ চাহিদা রয়েছে।

নার্সারিটিতে কর্মরত শ্রমিক মো. টুটুল হোসেন জানানএখানে সারা বছরই কাজ করি। মালিকেরা লাভবান হওয়ায় আমারাও ভালোই আছি। 

ফুলের চারা খুচরা বিক্রেতা মো. আমজাদ হোসেন জানানআমরা নার্সারি থেকে পাইকারি ফুলের চারা সংগ্রহ করে শহর এলাকায় বিক্রি করি। প্রতিদিন চারা বিক্রি করে দুইশ থেকে পাঁচশ টাকা পর্যন্ত লাভ থাকে। এতে আমাদের সংসার ভালই চলে। 

জেলা নার্সারি মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল গণি সান্টু বলেননার্সারি মালিকরা কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাই না। এমনকি কোনো ঋণ সুবিধাও নেই । সব কিছু নিজেদের অর্থায়নে করতে হয়। যা অনেকের জন্য কঠিন হয়ে ওঠে।

কুষ্টিয়া নার্সারি মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম ওয়াসিফ আবির জানানশীত মৌসুমে জেলায় প্রায় ৫০ থেকে ৬০ লক্ষ টাকার ফুলের চারা ক্রয়-বিক্রয় করা হয়।  

কুষ্টিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শ্যামল কুমার বিশ্বাস বলেনকুষ্টিয়ায় অনেক বেসরকারি নার্সারি রয়েছে। তবে সেগুলো কৃষি বিভাগের আওতার বাইরে। তবে জেলায় একটি সরকারি নার্সারি রয়েছে। কিন্তু সেটি আকারে অনেক ছোট।