• রবিবার, এপ্রিল ০৫, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৯ রাত

৪৬০ কোটি মানুষের চেয়েও ধনী দুই হাজার ধনকুবের

  • প্রকাশিত ০৭:২০ রাত জানুয়ারী ২০, ২০২০
ধনী ব্যক্তি-জাকারবার্গ-বেজোস-গেটস
বিশ্বের উল্লেখযোগ্য কয়েকজন ধনী ব্যক্তি রয়টার্স

শীর্ষ ২২ ধনীর সম্মিলিত সম্পদ সমগ্র আফ্রিকার নারীদের চেয়েও বেশি

গত বছর বিশ্বের উল্লেখযোগ্য ২,১৫৩ জন ধনী ব্যক্তির মোট অর্থ সম্পদের পরিমাণ ৪৬০ কোটি দরিদ্র মানুষের তুলনায় অনেক বেশি ছিল বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ দাতব্য সংস্থা অক্সফাম। আরও অবাক করার মতো তথ্য হলো, ২২ জন ধনী ব্যক্তির মোট অর্থের পরিমাণ সমগ্র আফ্রিকা মহাদেশের নারীদের সম্মিলিত অর্থ সম্পদের তুলনায় বেশি।

সোমবার (২০ জানুয়ারি) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে অক্সফাম।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতিদিন বিশ্বব্যাপী নারীদের ব্যয় করা সময়ের পরিমাণ সাড়ে ১২ শ' কোটি কর্মঘণ্টা। যা কখনোই স্বীকৃতি পায় না অথবা পেলেও প্রতিদানে তারা হন অবমূল্যায়নের শিকার।

“টাইম টু কেয়ার” শিরোনামের প্রতিবেদনে অক্সফাম জানায়, যেসব কাজের জন্য নারীরা কোনো ধরনের সম্মানী পান না তার পরিমাণ ১০ দশমিক ৮ কোটি মার্কিন ডলারের সমমূল্যের। যা বৈশ্বিক প্রযুক্তি বাজারের আয়ের তুলনায় তিনগুণ।

অক্সফাম গ্রেট ব্রিটেনের চিফ এক্সিকিউটিভ ড্যানি স্রিসকান্দারাজাহ বলেন, “যখন ২২ জন পুরুষের মোট সম্পদের পরিমাণ সমগ্র আফ্রিকার নারীদের তুলনায় বেশি, তখন বুঝে নিতে হয় আমাদের অর্থনীতিতে স্পষ্ট লিঙ্গবৈষম্য বিদ্যমান।”

প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয়, সম্পদের সুষম বণ্টনে সচেতনতা বাড়ানোর কথা থাকলেও বিভিন্ন সময়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক নেতাদের কর্মকাণ্ডে ঠিক বিপরীত বিষয়টি পরিলক্ষিত হয়। তাদের বিভিন্ন সিদ্ধান্তে ধনীরাই লাভবান হন, আর ক্ষতিগ্রস্ত হতে হয় গরীবদের। 

উদাহরণস্বরূপ তুলে ধরা হয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেইর বোলসোনারোর ধনকুবেরদের করের পরিমাণ কমানোর সিদ্ধান্তের বিষয়টি।