• বৃহস্পতিবার, জুলাই ০৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৮ সকাল

কালবৈশাখী: গাইবান্ধায় ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড, ধানের ব্যাপক ক্ষতি

  • প্রকাশিত ০৮:১৩ রাত মে ২৯, ২০২০
গাইবান্ধা
ঝড়ে গঙ্গানারায়ণপুর গ্রামে আশ্রয়হীন একটি পরিবার। ঢাকা ট্রিবিউন

‘মঙ্গলবার রাতের কালবৈশাখীর ঝড়ের বাড়ির সবকটি ঘরে ভেঙ্গে চুরামার হয়েছে। ফলে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করতে হচ্ছে। অথচও এখন পর্যন্ত কোনো জনপ্রতিনিধি বা প্রশাসনের লোকজন খোঁজ-খবর নিলো না’

গাইবান্ধায় গত রবিবার (২৪ মে) থেকে বুধবার (২৭ মে) গভীর রাত পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন এলাকায় দফায় দফায় তাণ্ডব চালিয়েছে কালবৈশাখী ঝড়। একইসঙ্গে ভারি বৃষ্টিপাত ও শিলাবৃষ্টি। ঝড়ের আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে দুই শতাধিক কাঁচাপাকা ঘর-বাড়ি, শুয়ে পড়েছে ধান গাছ, ঝড়ে গেছে পাকা ধান। 

গাইবান্ধা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ বছর জেলার সাতটি উপজেলায় ১ লাখ ২৭ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে। এখন এই ধান কাটার ভরা মৌসুম। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) পর্যন্ত শতকরা ৯১ ভাগ অর্থাৎ ১ লাখ ১৬ হাজার ২৫ হেক্টর জমির ধান কাটা হয়ে গেছে। আরও ৯ ভাগ ধান অর্থাৎ ১১ হাজার ৪৭৫ হেক্টর জমির ধান কাটা অবশিষ্ট রয়েছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চাঁদ রাত (ঈদের আগের রাত) ১১টা থেকে গত বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত দফায় দফায় কাল বৈশাখীর তাণ্ডব ও শিলাবৃষ্টিতে জেলার সুন্দরগঞ্জ ও সাদুল্লাপুরে লন্ডভন্ড হয়েছে দুই শতাধিক কাঁচাপাকা ঘর-বাড়ি। এরমধ্যে সুন্দরগঞ্জের শান্তিরাম, শ্রীপুর ও ছাপরহাটি ও সাদুল্লাপুরে বনগ্রাম, ভাতগ্রাম ও ইদিলপুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রাম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বেশি। ওইসব এলাকায় অনেকের ঘরের ছাউনি গেছে উড়ে। পানিতে শুয়ে পড়েছে বোরো ধান। বেশকিছু মৌসুমী ফল আম, লিচু ও কলা বাগান গেছে দুমড়ে মুচড়ে। গাছপালা উপড়ে পড়ে অনেক জায়গায় যোগাযোগও বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের আহাজারি করতেও দেখা গেছে বিধ্বস্ত ঘরবাড়ির আঙ্গিনার খোলা আকাশের নিচে। এছাড়া ঈদের দিন এইসব এলাকার লোকজনদের পরিবার পরিজনসহ ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে মাঠের ধান ঘরে তুলতে। এদের কেউ ধান কাটছে। আবার কেউ ধান মাড়াই করছে। আবার কেউ ধান শুকাচ্ছেন।     

সাদুল্লাপুরের তরফসাদুল্যা গ্রামের কৃষক অজিজুল ইসলাম জানান, ঝড়ো হাওয়ায় জমিতে জমা পানিতে ধান শুয়ে পড়েছে। তাই পেটের ভাত জোগাতে ঈদের দিন ধান কেটে মাড়াই করেছি। তা না হলে প্রতিদিন রাতে যেভাবে ঝড় ও শিলাবৃষ্টি হচ্ছে। শেষে এই ধানও ঘরে তুলতে পারব না।    

একই উপজেলার কিশামত শেরপুর গ্রামের কৃষক আব্দুল লতিফ (৫০) জানান, ঝড়ো হাওয়া ও শিলাবৃষ্টিতে তার ৩ বিঘা জমির পাকা ধান গাছের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। 

ক্ষতিগ্রস্থ ধানক্ষেত। ঢাকা ট্রিবিউন


উপজেলার গঙ্গানারায়ণপুর (গাছুপাড়া) গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত আব্দুস ছাত্তার মিয়া বলেন, মঙ্গলবার রাতের কালবৈশাখীর ঝড়ের বাড়ির সবকটি ঘরে ভেঙ্গে চুরামার হয়েছে। ফলে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করতে হচ্ছে। অথচও এখন পর্যন্ত কোনো জনপ্রতিনিধি বা প্রশাসনের লোকজন খোঁজ-খবর নিলো না। 

একই উপজেলার বকসিগঞ্জ গ্রামের কৃষক তোফায়েল মিয়া (৫০) বলেন, কয়েকদিন আগে একবিঘা জমির ধান কেটেছি। অবশিষ্ট ধান কাটবো কাটবো বলে চিন্তা করছি। কিন্তু এরই মধ্যে শিলাবৃষ্টিতে আরও একবিঘা জমির বেশিরভাগ ধান নষ্ট হয়ে গেছে। 

একই গ্রামের কৃষক সোলায়মান আলী (৫৫) বলেন, মঙ্গলবারের শিলাবৃষ্টিতে গাছ থেকে ধান ঝড়ে গেছে। এই ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া আর সম্ভব হবে না। 

সুন্দরগঞ্জের ছাপড়হাটি গ্রামের ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক আব্দুল কুদ্দুস জানান, কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডবে তার লিচু ও কলা বাগান দুমড়ে মুচড়ে যাওয়ায় এ বছর উৎপাদন খরচ আর উঠবে না। 

উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এটিএম রেজানুল ইসলাম বাবু জানান, ঝড়ে গঙ্গানারায়ণপুর (গাছুপাড়া) গ্রামের ২০টি পরিবারের ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড হয়েছে। এসব পরিবারের মানুষেরা এখন খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। নতুন করে কীভাবে ঘরবাড়ি নির্মাণ করবেন, এনিয়ে তারা দুশ্চিনতায় পড়েছেন। 

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী লুতফুল হাসান বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে দেড় শতাধিক কাঁচাপাকা ঘর-বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও গাছপালা উপড়ে গেছে ও বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরির কাজ চলছে। 

সাদুল্লাপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাহারিয়া খান বিপ্লব বলেন, “মঙ্গলবার ও বুধবার রাতে উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঝড়ো হাওয়ায় ও শিলাবৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির শিকার মানুষরা আবেদন করলে, তাদের সহায়তা করা হবে।”

গাইবান্ধা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মাসুদুর রহমান বলেন, “ঝড়ো হাওয়া ও শিলাবৃষ্টিতে জেলায় দেড় হাজার বিঘা জমির পাকা বোরো ধান ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ ধানের মধ্যে বিআর-২৯ ও বিআর-৫৮ জাতের ধানই বেশি।”

51
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail