• মঙ্গলবার, জুলাই ০৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫৮ রাত

ধুঁকছে নীলফামারী মৎস্য বীজ প্রজনন খামার

  • প্রকাশিত ০২:১১ দুপুর জুন ২, ২০২০
নীলফামারী
জনবল ও সংস্কারের অভাবে গতি হারিয়েছে নীলফামারী মৎস্য বীজ প্রজনন খামার। ঢাকা ট্রিবিউন

পুকুরগুলোর পানির স্তর নিচে যাওয়ায় তীব্র তাপদাহে প্রতিনিয়তই মারা যাচ্ছে পোনা ও ব্রুডমাছ

জনবল সংকটসহ নানা সমস্যায় ঐতিহ্য হারাতে বসেছে নীলফামারী জেলা শহরের বন বিভাগ এলাকার মৎস্য বীজ প্রজনন খামারটি। খামারে (হ্যাচারি) মঞ্জুরীকৃত ছয় পদের বিপরীতে বর্তমানে তিনজন দিয়েই ঢিমেতালে চলছে এর কার্যক্রম। এতে ব্যাহত হচ্ছে পোনা উৎপাদন, নষ্ট হচ্ছে পোনার গুনগতমানও।

এদিকে, এই হ্যাচারি থেকে চাহিদা অনুযায়ী, পোনা না পেয়ে বিপকে পড়েছেন এ অঞ্চলের মৎস্য চাষিরা। আর সরকার হারাচ্ছে মোটা অঙ্কের রাজস্ব। অবশ্য কর্তাব্যক্তিরা বলছেন, সীমিত জনবল দিয়েই মৎস্য জীবিদের চাহিদা অনুযায়ী রেণুপোনা উৎপাদনে নিরলসভাবে কাজ করছেন তারা।

উন্নতমানের রেণু থেকে পোনা সরবরাহ ও মৎস্য চাষিদের প্রশিক্ষণ প্রদানের লক্ষে নীলফামারীতে ৮.৩৩ একর জমির ওপর প্রায় ১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই মৎস্য প্রজনন খামারটির আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয় ১৯৬৪ সালে। শুরুতেই এই প্রতিষ্ঠানটি পোনা উৎপাদনে ব্যাপক সুনাম অর্জন করলেও সঠিক রক্ষাবেক্ষণ ও জনবল সংকটের কারণে ঝিমিয়ে পড়েছে এর কার্যক্রম।

ওই খামারের ক্ষেত্র সহকারী ইয়াহিয়া জানান, পানীর পাম্প, জনবল, অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ফ্রিজ সরবারহ করা হলে বাটা, পুটি, রুই, মৃগেল ও কার্প জাতীয় ১৪৫ থেকে ১৫০ কেজি পর্যন্ত রেণু উৎপাদন করা যেতো। যার সমমূল্য দুই লাখ ৪০,০০০ হাজার টাকা বছরে আয় হতো। এ ছাড়াও টেবিল ফিস (অপ্রয়োজনীয় মাছ) থেকে আয় হতো আরো ২৫ হাজার টাকার মতো। এই খামারে সম্ভবনা থাকা সত্ত্বেও নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারছে না। বর্তমানে ২৫-৩০ কেজি রেণু উৎপাদন হচ্ছে। 

অপরদিকে, পুকুর সংস্কারের অভাবে গত কয়েক বছর ধরে এই মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রে রেণুপোনা উৎপাদন মারাত্মক কভাবে ব্যাহত হচ্ছে। নিয়মিত সংস্কার না হওয়ায় পোনা মৌসুমের বেশীরভাগ সময়ে ৮টি পুকুরের মধ্যে পানি শূন্য থাকে ৬টি পুকুর। তাছাড়া পুকুরগুলোর পানির স্তর নিচে যাওয়ায় তীব্র তাপদাহে প্রতিনিয়তই মারা যাচ্ছে পোনা ও ব্রুড (মা) মাছ। আর ব্রুড মাছ উৎপাদন না হলে রেণু বা পোনার আশা করা যায় না। এতে মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রেটি হারিয়েছে তার স্বাভাবিক কার্যক্রম আর ব্যাহত হচ্ছে গুণগতমানের রেণু উৎপাদন।

খামার সূত্রে জানা গেছে, লোকবলের অভাবে গত পাঁচ বছরে মুখ থুবড়ে পড়েছে এই হ্যাচারির কার্যক্রম। খামার ব্যবস্থাপক, ফিল্ড এসিস্টেন্ড (ক্ষেত্র সহকারি) ও পাম্প অপারেটর দিয়ে চলছে ঢিমেতালে। বাকী তিনপদের মধ্যে শূন্য রয়েছে, অফিস সহকারি, হ্যাচারি অ্যাটেন্ডেন ও নৈশ প্রহরী। নেই গার্ড সেড ও জাল শুকানোর ঘর। ফলে ব্যাহত হচ্ছে রেণু উৎপাদন ও পোনার গুণগতমান। এতে চাহিদা অনুযায়ী রেণু ও পোনা পাচ্ছে না এ অঞ্চলের খামারিরা। আর এতে সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব।

জেলা শহরের শাখামাচা বাজরের নাসিরুল ইসলাম, আবু বক্কর সিদ্দিকসহ কয়েকজন খামারি জানান, রেণু ও পোনার জন্য এক সময় নীলফামারী সদরের হ্যাচারির সুনাম ছিল জেলাজুড়ে। মাছ চাষের জন্য পিকআপভ্যান নিয়ে এ অঞ্চলের মৎস্য চাষিরা এই হ্যাচারি থেকে পোনা সংগ্রহ করতেন। কিন্তু দিন দিন এ হ্যাচারিতে চাহিদামত পোনা না পাওয়ায় বিপাকে পড়তে হচ্ছে অনেক মৎস্য খামারিকে। ফলে স্থানীয় খামার ছেড়ে বাহিরের জেলা থেকে পোনা সংগ্রহ করতে হয় তাদের।

এদিকে, জেলা শহরের মৎস্য খামারি আমির আলী আক্ষেপ করে জানান, জনবলের অভাবে এক সময়ের উত্তর অঞ্চলের সুনামধন্য মৎস্য প্রজনন খামারটি ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। এ অবস্থায় মৎস্য প্রজনন খামারটিতে প্রয়োজনীয় উপকরণসহ জনবল নিয়োগের দাবি জানান তিনি।

পোনা উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার কথা স্বীকার করে নীলফামারী মৎস্য প্রজনন খামারের ব্যবস্থাপক মো. খায়রুল আলম জানান, প্রয়োজনীয় উপকরণ ও জনবল সংকটের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। শিগগিরই সংকট নিরসন হবে বলেও জানান তিনি।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আশরাফুজ্জামান বলেন, “আমাদের দেশে মৎস্য ও প্রাণী সম্পদের অফুরন্ত সম্ভবনা রয়েছে। এ জন্য স্থানীয়ভাবে সারাদেশে ছোট বড় ১৪৮টি মৎস্য বীজ উৎপাদন খামার তৈরি করে মাছ চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে এসব প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। দেশে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে মৎস্য বিভাগ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। গুণগতমানের রেণু উৎপাদন করে দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করাও সম্ভব।”

51
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail