• বুধবার, ডিসেম্বর ০২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:২৯ রাত

কার্তিকে কাজের অভাবেই ব্রহ্মপুত্রে ছিল ইলিশ জালের ছড়াছড়ি

  • প্রকাশিত ১২:৫১ দুপুর নভেম্বর ৮, ২০২০
কুড়িগ্রাম
নদীতে ইলিশ মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা থাকার সময়েও কুড়িগ্রামের ব্রহ্মপুত্রে মাছ শিকার করেন কুড়িগ্রামের জেলরা। ঢাকা ট্রিবিউন

প্রশাসনের অভিযানে জেল জরিমানার ঝুঁকি থাকলেও তিনবেলা খাদ্য যোগানের তাগিদে নিষিদ্ধ সময়েও ব্রহ্মপুত্রে মাছ শিকারে বাধ্য হয়েছেন তারা

চলতি বছর পরপর চার দফা বন্যা আর অব্যাহত নদী ভাঙনে নাকাল কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলের বাসিন্দারা। বন্যায় কৃষির ব্যাপক ক্ষতি ও কার্তিকে কাজের অভাবে উপার্জনহীন হয়ে পড়েছেন চরাঞ্চলের হাজারো মানুষ। প্রাকৃতিক নানা দুর্যোগে দারিদ্রতাকে সাথে নিয়ে জীবন সংগ্রামে চালিয়ে যাওয়া জনগোষ্ঠীর মধ্যে জেলেরা অন্যতম। নদীর বিশাল জলরাশিতে মৎস্য আহরণের ওপরেই এদের জীবিকা নির্ভরশীল। আশ্বিন-কার্তিক মাসে চরাঞ্চলে বিকল্প কাজ না থাকায় ইলিশ ধরার নিষিদ্ধ সময়েও নদীতে মৎস্য আহরণে ব্যস্ত ছিলেন অববাহিকার পেশাদার জেলেদের পাশাপাশি মৌসুমি জেলারা। প্রশাসনের অভিযানে জেল জরিমানার ঝুঁকি থাকলেও তিনবেলা খাদ্য যোগানের তাগিদে নিষিদ্ধ সময়েও ব্রহ্মপুত্রে মাছ শিকারে বাধ্য হয়েছেন তারা।

জেলেরা বলছেন, ব্রহ্মপুত্র তাদের রুজির উৎস। আশ্বিন-কার্তিক মাসে উপার্জনের বিকল্প পথ না থাকায় মাছ আহরণ ছাড়া তাদের অন্য কোনও পথ থাকে না।

জেলা মৎস্য বিভাগ বলছে, ইলিশ ধরা নিষেধাজ্ঞা সময়ে ২২ দিনে ব্রহ্মপুত্র নদে মোট ২১৭টি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এসব অভিযানে মোবাইল কোর্ট ছিল ৯টি। ৫ জেলেকে দুই হাজার ২শ’ টাকা জরিমানা ছাড়াও জাল জব্দ করা হয়েছে ২ লক্ষ ৪৪ হাজার ৮৫০ মিটার। জব্দকৃত বিপুল পরিমাণ এ জাল থেকে ইলিশ মিলেছে মাত্র ৩৫ কেজি। তবে নিষেধাজ্ঞার ১৮ দিনের পর ব্রহ্মপুত্রে ইলিশের উপস্থিতি বাড়তে শুরু করেছে।

২০১৭ সালে ইলিশ জোনভুক্ত হওয়া কুড়িগ্রামে ইলিশের মূল বিচরণ স্থল পূণ্যতোয়া খ্যাত ব্রহ্মপুত্র নদ। বর্ষা আর বানে এ নদ তার অববাহিকার বাসিন্দাদের দুঃখ দুর্দশার কারণ হলেও এর বিস্তৃর্ণ জলরাশিতে মৎস্য আহরণ করে জীবিকা নির্বাহ করে লাখো মানুষ। ইলিশের প্রজনন মৌসুমে ২২ দিন নদে মাছ শিকার বন্ধ থাকলেও অনেকেই ঝুঁকি নিয়ে নদে জাল ফেলেছেন। প্রশাসনের তাড়া খেয়ে খুইয়েছেন নিজেদের জাল। নিষেধাজ্ঞার খবর জানলেও মাছ না ধরলে তাদের চলার কোনও উপায় ছিল না। 

সম্প্রতি কয়েক দফা বন্যায় চরাঞ্চলে কৃষির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এলাকায় চলছে কাজের অভাব।  কার্তিক মাস শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ সংকট দূর হওয়ার সম্ভাবনা নেই।


আরও পড়ুন - ইলিশ শিকারে ব্রহ্মপুত্রে জেলে নৌকার ছড়াছড়ি


নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে উলিপুরের সাহেবের আলগা ইউনিয়নের জাহাজের আলগা এলাকার ব্রহ্মপুত্রে মাছ শিকার করতে আসা জেলে সোহরাব আলী বলেন, “এখনতো কাজের অভাব, নদীতে মাছ না ধরলে আমাদের চলার কোনও গতি নাই। কাতি (কার্তিক) মাস গেইলে আমরা বাইরা (বাইরে অন্য এলাকায়) কাজে যাইতে পারবো।”

একই ইউনিয়নের চেরাগের চর এলাকার জেলে ফুল চাঁদ বলেন, “তিন ভাগি (অংশীদার) মিলে মাছ ধরি। যা পাই ভাগ কইরা লই। কিছু বাচ্চাগো নিয়া খাই, বেশি পাইলে বেঁচি। দ্যাশে ( এলাকায়) কাজ কর্ম নাই বইলাই মাছ মাইরা খাই। কাজকর্ম থাকলেতো মাছ মারতাম না।”

তবে পেশাদার জেলেরা বলছেন, অপর্যাপ্ত প্রণোদনা এবং বিকল্প আয়ের উৎস না থাকায় তারা নদীতে নামতে বাধ্য হয়েছেন। পরিবার পরিজন নিয়ে তিন বেলা খেয়ে বেঁচে থাকার তাগিদেই নৌকা আর জাল নিয়ে নদে বিচরণ করেন তারা।

চিলমারীর রমনা ইউনিয়নের বাসিন্দা জেলে আব্দুল মজিদ বলেন, “সরকার আমাদেক যে ২০ কেজি চাউল দেয় সেটা দিয়াতো তিন-চার দিনের বেশি চলা যায় না। আমাদেরকে যদি এই সময় (নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়) অন্য কর্মের ব্যবস্থা করি দেয় তাহলে আমরা নদীতে যাব না। কিন্তু রোজগার না করলে খামো কী? সেই জন্যে নদীত যাই।”

জেলেদের অধিকার আদায়ের বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দেওয়া সংগঠক ও নদী গবেষক নাহিদ হাসান বলেন, “ইলিশের প্রাচুর্যতা বাড়ার লক্ষ্যে সরকারের  গৃহীত পরিকল্পনা প্রশংসার দাবিদার। তবে নিষেধাজ্ঞার ২২ দিন সময়ে জেলেদের জন্য উপযুক্ত পরিমাণ প্রণোদনা এবং ওই সময়টাতে জেলেদের জীবন মান উন্নয়ণে ভাতাসহ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে পারলে জেলেরা একদিকে প্রশিক্ষণে ব্যস্ত থেকে নদীতে নামা থেকে বিরত থাকবেন, আবার প্রাপ্ত ভাতা দিয়ে তারা তাদের দৈনিক বাজার খরচটা করতে পারবেন। এতে করে নদী জাল মুক্ত থাকবে।”

জেলেদের জন্য প্রণোদনার অপ্রতুলতার বিষয়টি স্বীকার করে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা (ডিএফও) কালিপদ রায় বলেন, “বিগত বছরের তুলনায় প্রণোদনা পাওয়া জেলের সংখ্যা বেড়েছে। চলতি বছর আমরা সাড়ে সাত হাজার জেলেকে প্রণোদনা দিয়েছি। যদিও অনেকের পরিবারের জন্য ২২ দিনে ২০ কেজি চাল পর্যাপ্ত নয়। আমরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করার ব্যবস্থা নিয়েছি। সরকার বিবেচনা করলে আগামীতে প্রণোদনা পরিমাণ বাড়তে পারে।”

51
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail