• বুধবার, ডিসেম্বর ০২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:৫৮ সন্ধ্যা

সিরাজগঞ্জে বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কৃষকের ব্যস্ততা

  • প্রকাশিত ০৮:২৯ রাত নভেম্বর ১৩, ২০২০
সিরাজগঞ্জ
মাঠে ধান কাটায় ব্যস্ত কয়েকজন আদিবাসী নারী শ্রমিক। ঢাকা ট্রিবিউন

টানা ৫ বার বন্যায় ক্ষতি হওয়ার পরও জেলায় রোপা আমন মৌসুমে যে পরিমাণ ফলন হয়েছে, তাতে কৃষকরা বন্যার  ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন

সিরাজগঞ্জের চলনবিলসহ জেলায় চলতি রোপা-আমন মৌসুমে ধান কাটার উৎসব শুরু হয়েছে। সাধারণ কৃষি শ্রমিকদের পাশাপাশি চলনবিলের পাশ্ববর্তী আদিবাসী নারী-পুরুষ শ্রমিকরা দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে মাঠে মাঠে ধান কাটার উৎসবে যোগ দিয়েছেন। 

জেলা কৃষি বিভাগ মনে করছে, টানা ৫ বার বন্যায় ক্ষতি হওয়ার পরও জেলায় রোপা আমন মৌসুমে যে পরিমাণ ফলন হয়েছে, তাতে কৃষকরা বন্যার  ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন। এরই মধ্যে ১০% ধান কাটা হয়েছে। শ্রমিক সংকট না হলে আগামী মাসের মাঝামাঝির মধ্যে ধানের ফলন কৃষক ঘরে তুলতে পারবেন হবে বলে আশা করছে কৃষি অধিদপ্তর।

সিরাজগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (ডিডি) মো. আবু হানিফ জানান, সিরাজগঞ্জ জেলায় পর পর ৫ বারের বন্যায় প্রায় ৩ হাজার ৪০৬ হেক্টর জমির আবাদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। জেলার ৯টি উপজেলায় রোপা-আমনের আবাদের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় ৬৯ হাজার ২৫০ হেক্টর ধরা হয়। কিন্তু ৫ দফা বন্যার কারণে লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হয়। শেষ পর্যন্ত ৬৮ হাজার ৪০৬ হেক্টর জমিতে রোপা-আমনের চাষাবাদ হয়। বন্যার কারণে জেলার ৯ উপজেলায় প্রায় ৮৪৪ হেক্টর জমিতে আবাদ ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এবার ফলন বেশ ভাল হয়েছে। 

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম জানান, এবারে রোপা-আমন ধানের ফলন ভাল হওয়ায় ৫ দফা বন্যার ক্ষয়ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে কৃষক। 

এদিকে, ধান কাটা শুরু হওয়ায় খড়ের দাম নামতে শুরু করায় বর্তমানে গো-খাদ্যের সংকট কিছুটা কমতে শুরু করেছে। গত মাসে খড় আটি প্রতি ১৪-১৫ টাকা বিক্রি হলেও বর্তমানে তা ৪-৫ টাকায় নেমে এসেছে বলে জানা গেছে। 

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার খানসোনতলা গ্রামের কৃষক সালামত আলী বলেন, আমাদের বিলে এখনও রোপা-আমন কাটা শুরু হয়নি। তবে বন্যা হলেও ধান মোটামুটি ভাল হয়েছে। এখন আবার শ্রমিক সংকট না হয়, সেটাও ভাবছি। 

পাশ্ববর্তী সোনাতলা গ্রামের বর্গাচাষি সিরাজ উদ্দিন বলেন, করোতায়া নদীর পাড়ে পতিত এক বিঘা জমিতে রোপা-আমন লাগিয়েছিলাম। কিন্তু ফলন তেমন হয়নি। আগামী সপ্তাহে ধান কাটা-মাড়াই শুরু হবে। তবে এবার ধানের দাম গতবারের চেয়ে বেশি। 

চলনবিল সংলগ্ন দেশীগ্রাম ইউনিয়নের বলদীপাড়া গ্রামের কৃষক সুলতান আলী বলেন, এবার আমার প্রায় ১৫ বিঘা জমির বপনকৃত রোপা-আমন ধান শুরুতেই হলুদ হয়ে নষ্ট হয়েছে। কৃষি বিভাগের পরামশ অনুযায়ী জমিতে নানা ধরনের কীটনাশক প্রয়োগ করেছি, কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। 

তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা লুৎফুল নাহার লুনা বলেন, “এবারে ৫ বার বন্যায় জলাবদ্ধতার কারণে ১৫০০ হেক্টর জমিতে ধানের আবাদ নষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া উপজেলা প্রায় ২০-২৫ বিঘা জমিতে দীর্ঘ সময় পানি থাকার কারণে রোপা-আপন ধান হলুদ হয়ে যায়। পরে অনেক চেষ্টা করেও ওই পরিমাণ ধানের আবাদ পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।”

50
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail