• শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪১ দুপুর

দেশের তহবিলে করোনাভাইরাসের ধাক্কা কতটা লাগল?

  • প্রকাশিত ০৭:২২ রাত ডিসেম্বর ২৫, ২০২০
টাকা
ফাইল ছবি। মেহেদী হাসান/ ঢাকা ট্রিবিউন

উৎপাদন ও সেবা খাত পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাওয়ার পাশাপাশি লকডাউন পরবর্তী সময়ে অগুরুত্বপূর্ণ ব্যয় বিপুলভাবে হ্রাস পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯-২০ অর্থবছরে কর সংগ্রহে এ নেতিবাচক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে

কোডিড-১৯ মহামারি এবং এর ফলে আরোপিত লকডাউন সরকারের তহবিলে বড় ধরনের ধাক্কা দিয়েছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) গত অর্থবছরের রাজস্ব আহরণে প্রবৃদ্ধি ছিল মাইনাস ৪%।

কর্মকর্তারা বলছেন, উৎপাদন ও সেবা খাত পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাওয়ার পাশাপাশি লকডাউন পরবর্তী সময়ে অগুরুত্বপূর্ণ ব্যয় বিপুলভাবে হ্রাস পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯-২০ অর্থবছরে কর সংগ্রহে এ নেতিবাচক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

পরোক্ষ কর সংগ্রহ

তথ্য অনুযায়ী, রাজস্ব বোর্ড সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৫০০ কোটি টাকার বিপরীতে ৩০ জুন পর্যন্ত আহরণ করেছে ২ লাখ ১৫ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। অর্থবছরের জন্য মূল লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। দেশে প্রচলিত করবর্ষ হলো ১ জুলাই থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত।

আগের ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সংগ্রহ ছিল ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৯২ কোটি টাকা। গত এক দশক ধরে দেশে রাজস্ব আহরণ বাড়ছিল গড়ে ১৩-১৪% করে। ২০১৮-১৯ মেয়াদে এ প্রবৃদ্ধি ১১% ছিল বলে ইউএনবির হাতে আসা এনবিআরের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, মাঠ পর্যায়ের পরিস্থিতি বিবেচনায় রাজস্ব আহরণে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হওয়া অপ্রত্যাশিত ছিল না। কারণ করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটি ও চলাচলে বিধিনিষেধের ফলে মার্চের শেষ দিক থেকে প্রায় তিন মাস পর্যন্ত দেশের উৎপাদন, ভোগ ও আমদানি-রপ্তানিসহ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড স্থবির ছিল।

প্রত্যক্ষ কর সংগ্রহ

মোট রাজস্ব আহরণে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি থাকলেও অর্থাৎ আয়করের মতো প্রত্যক্ষ কর সংগ্রহে ০.৪১% মতো স্বল্প প্রবৃদ্ধি হয়েছে। অন্যদিকে, মূল্য সংযোজন কর (মূসক) এবং কাস্টমস শুল্ক গত অর্থবছরে যথাক্রমে ৬.৮৬% এবং ৪.৩৯% হ্রাস পেয়েছে।

তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯-২০ মেয়াদে মূসক আহরণ হয়েছে ৮১ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। তারপর আয়কর ৭৩ হাজার ২০০ কোটি ও কাস্টমস শুল্ক ৬০ হাজার ৬০০ কোটি টাকা পাওয়া গেছে। আগের অর্থবছরে মূসক ৮৭ হাজার ৬১০ কোটি, আয়কর ৭২ হাজার ৯০০ কোটি ও কাস্টমস শুল্ক ৬৩ হাজার ৩৮২ কোটি টাকা আহরণ হয়েছিল।

জনগণের নির্বিঘ্নে রিটার্ন জমা দেওয়ার জন্য প্রতিবার যে আয়কর মেলা হয়ে থাকে তাও মহামারির কারণে বাতিল করতে এবার বাধ্য হয় এনবিআর। তবে বোর্ড তাদের জোনগুলোতে মেলার মতো ব্যবস্থা করেছিল। কিন্তু সেখানে করদাতাদের উপস্থিতি সন্তোষজনক ছিল না। তাই বোর্ড বাধ্য হয়ে রিটার্ন জমা দেয়ার শেষ সময় ৩০ নভেম্বর থেকে বাড়িয়ে আরও এক মাস বৃদ্ধি করে।

ই-ডিভাইসের প্রচলন

ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে ভ্যাট ফাঁকি নিয়ন্ত্রণে দীর্ঘ প্রতীক্ষিত ইলেকট্রনিক ফিসকেল ডিভাইস (ইএফডি) চালু করেছে এনবিআর।

নিয়ন্ত্রণ বোর্ড প্রথম পর্যায়ে ঢাকা এবং চট্টগ্রামে ইএফডি স্থাপন করেছে। ডিভাইসগুলো এনবিআর সার্ভারের সাথে সংযুক্ত এবং লেনদেনগুলো রিয়েল-টাইম ভিত্তিতে ধরা পড়বে।

প্রায় ২৪ ধরনের পণ্য ও সেবা ইএফডি-এর আওতায় আসবে যেসব ব্যবসায়ের বার্ষিক লেনদেন ৫০ লাখ টাকার বেশি।

সাধারণ ক্ষমার কর্মপরিকল্পনা

তবে, কর ও জরিমানা দিয়ে মানুষের কালো টাকা সাদা করার পরিকল্পনা তার কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে। এনবিআর জানিয়েছে, ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত এ পরিকল্পনার আওতায় অবৈধ আয়ের ৪০০ কোটি টাকা সাদা করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

এর আগে, অবৈধ টাকার মালিকরা আবাসিক স্থাপনা নিমার্ণের ক্ষেত্রে বিনিয়োগের ওপর ১০ শতাংশ কর দিয়ে বিনিয়োগ করে তাদের নগদ টাকা বৈধতা পেতেন। নিয়মিত করদাতাদের জন্য যা ১০ থেকে ৩০% মধ্যে থাকে। গত অর্থবছর থেকে তাদেরকে এ টাকাগুলো অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং হাই-টেক পার্কে বিনিয়োগের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

চলতি অর্থবছরে প্রত্যেক করদাতাদের প্রতি বর্গমিটারে নির্দিষ্ট হারে শুল্ক প্রদানের মাধ্যমে জমি, বিল্ডিং এবং অ্যাপার্টমেন্টসহ যে কোনো প্রকারের অঘোষিত সম্পত্তি বৈধ করার অনুমতি দেয়া হবে।

ব্যক্তিগত করদাতারাও এবার ১০% হারে ট্যাক্স দিয়ে অঘোষিত নগদ, ব্যাংক আমানত, সঞ্চয়পত্র, শেয়ার, বন্ড বা অন্য কোনো সিকিউরিটি বৈধ করতে পারবেন। তারা শেয়ার বাজারেও বিনিয়োগ করতে পারবেন এবং এটি তারা তাদের ট্যাক্স রিটার্নেও দেখাতে পারবেন। তবে তার জন্য এসব বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এক বছরের লক-ইন সময়কাল মেনে চলতে হবে।

এনবিআরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, এনবিআরের উপর কালো টাকার মালিকদের আস্থা না থাকায় এই পরিকল্পনা এখনও ভালো কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না।

চলতি বছয়ে আয়কর রিটার্ন অনলাইনে জমা দেওয়া নিয়েও এনবিআর আরও একটি বড় ধাক্কা খেয়েছে। বাজেটে ঘোষণায় অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, নতুন করদাতারা অনলাইনে রিটার্ন দাখিলের ক্ষেত্রে ২০০০ টাকা টাকা ছাড় পাবেন। তবে, এ পদ্ধতিটি সঠিকভাবে কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে সংস্থাটি।

51
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail