• রবিবার, মে ০৯, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৮ সকাল

ট্রান্সমিশন সুবিধার বিনিময়ে ভারতীয় জলবিদ্যুৎ চায় ঢাকা

  • প্রকাশিত ০১:৪৪ দুপুর এপ্রিল ২৫, ২০২১
বিদ্যুৎ
ফাইল ছবি। ঢাকা ট্রিবিউন

‘বাংলাদেশ তার অঞ্চলে দিয়ে যাওয়া উচ্চ ভোল্টেজের গ্রিডলাইনের মাধ্যমে প্রেরণ হতে যাওয়া জলবিদ্যুতের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ পাওয়ার প্রত্যাশা করছে’

বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় অরুণাচল থেকে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন স্থাপন করতে দেওয়ার বিনিময়ে ঢাকা প্রতিবেশী ভারতের জলবিদ্যুতের অংশ পাওয়ার একটি ধারণা পুনঃপ্রকাশ করেছে বলে জানিয়েছেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

রবিবার (২৫ এপ্রিল) , ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাম্প্রতিক বাংলাদেশ সফরের সময় তিনি পারস্পরিক সুবিধার জন্য এ প্রস্তাব করেন। কারণ, অরুণাচল প্রদেশ এবং তৎসংলগ্ন উত্তর-পূর্ব ভারতীয় অঞ্চলগুলো বিপুল পরিমাণ নবায়নযোগ্য জ্বালানি শক্তির উৎস।

তিনি বলেন, “আমরা আমাদের আগ্রহ প্রকাশ করেছি এবং আমি তাকে (ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী) বলেছি যে, আপনাকে এখন ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল থেকে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে জলবিদুৎ প্রেরণ করতে প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হবে। সেক্ষেত্রে আপনি আমাদের সমতল ভূমি ব্যবহার করে ব্যয় হ্রাস করতে পারেন।”

তিনি বলেন, মোদি জানান, ভারত অরুণাচল প্রদেশ এবং অন্যান্য উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যের জলবিদ্যুতের যাবতীয় সম্ভাবনা অনুসন্ধান করার পরিকল্পনা করছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মতে, মোদি আরো জানিয়েছেন যে, ভারত ইতোমধ্যে জলবিদ্যুতের সম্ভাবনা নিয়ে বিশ্বব্যাংকসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সাথে পরামর্শ করেছে।

মোমেন বলেন, “বাংলাদেশ তার অঞ্চলে দিয়ে যাওয়া উচ্চ ভোল্টেজের গ্রিডলাইনের মাধ্যমে প্রেরণ হতে যাওয়া জলবিদ্যুতের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ পাওয়ার প্রত্যাশা করছে।”

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ভারতের সাথে ৫৪টি আন্তঃসীমান্ত নদী দিয়ে তার নৌপথের ব্যবহার বাড়ানোর পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বিদ্যুৎ সঞ্চালন করিডোর স্থাপন করে সংযোগের ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ায় অগ্রণী ভূমিকা নিতে চায়।

বাংলাদেশ বর্তমানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বহরমপুর থেকে ভেড়ামারা হয়ে প্রায় ১১০০ মেগাওয়াট এবং উত্তর-পূর্ব ত্রিপুরা রাজ্য থেকে আখাউড়া হয়ে ১৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছে।

জ্বালানি খাতে ২০১৪ সালে ভারত-বাংলাদেশ সহযোগিতা বিষয়ক যৌথ পরিচালনা কমিটির সপ্তম বৈঠকে এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া বা জামালপুরসহ তিনটি রুট ব্যবহার করে ভারত আসাম থেকে তার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলগুলোতে বিদ্যুৎ প্রেরণ করতে পারে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ৬,০০০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন ট্রান্সমিশন লাইন বাংলাদেশের বড়পুকুরিয়ার ভেতর দিয়ে নির্মাণ করা হলে দৈর্ঘ্যে ১০০ কিলোমিটার এবং জামালপুরের মধ্য দিয়ে নির্মিত হলে ২০০ কিলোমিটার হতে পারে এবং প্রতিটি রুটে একটি সাবস্টেশন নির্মাণ করতে হবে।

ট্রান্সমিশন লাইনের দুটি সম্ভাব্য রুট হ’ল-আসামের বনগাঁ থেকে বড়পুকুরিয়া (দিনাজপুর) বা জামালপুর থেকে বিহারের পুনিয়া এবং আসামের শিলচর থেকে মেঘনা ঘাট-ভেড়ামারা হয়ে পশ্চিমবঙ্গ।

তবে প্রতিবেদনে তৃতীয় সঞ্চালন করিডোর সম্পর্কে উল্লেখ করা হয়নি।

বাংলাদেশের বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা বলেছেন, বাংলাদেশ তার ভূ-খ-ের মধ্য ভারতীয় ট্রান্সমিশন লাইন স্থাপনের অনুমতি দেওয়ার মাধ্যমে সঞ্চালিত মোট বিদ্যুতের ২০-২৫% কেনার পাশাপাশি হুইলিং চার্জ থেকে লাভবান হতে পারে।

মোমেন বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে প্রতিুশ্রুতির আলোকে বাংলাদেশ ধাপে ধাপে জীবাশ্ম জ্বালানি ব্যবহার থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে আসতে চায়। এ লক্ষ্যে জ্বালানি সূত্রগুলো নবায়নযোগ্য উৎস অন্বেষণ করছে।

তিনি বলেন, “আমাদের কাছে নবায়নযোগ্য শক্তির অনেক উৎস নেই। কারণ, এখানে বায়ুশক্তি ব্যবহার সম্ভব হয় না এবং সৌর প্যানেলও খুব ব্যয়বহুল। তাই, জলবিদ্যুৎই নবায়নযোগ্য জ্বালানির একমাত্র ভরসা।”

মোমেন উল্লেখ করেন যে, বাইডেন প্রশাসন পুনরায় প্যারিস চুক্তিতে ফিরে এসেছে এবং বিদ্যুৎ খাতকে সবুজ জ্বালানিতে রূপান্তর এবং প্রযুক্তি হস্তান্তরে বিপুল বিনিয়োগের পরিকল্পনা করেছে।

তিনি বলেন, এই মাসের শুরুতে জলবায়ু সম্পর্কিত মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিশেষ দূত জন কেরি ঢাকা সফরের সময় আমরা এখানে নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে মার্কিন বিনিয়োগ ও প্রযুক্তি চেয়েছি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী পরামর্শ বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের সঙ্গে ত্রিপক্ষীয় চুক্তির মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদের জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমন ব্যবস্থার অধীনে দক্ষিণ এশিয়ার জলবিদ্যুৎ খাতে প্রচুর বিনিয়োগ করতে পারে।

ভারতের নর্থ-ইস্টার্ন ইলেক্ট্রিক কো-আপারেশনের মতে, ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে প্রায় ৫৮,৯৭১ মেগাওয়াট বিদ্যুতের সম্ভাবনা রয়েছে, যা ভারতের মোট জলবিদ্যুৎ সম্ভাবনার প্রায় ৪০%।

বর্তমানে ভারতের মোট ১৪৫,৩২০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুতের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে, মোট পরিমাণের মাত্র ৪৫,৩৯৯.২২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হচ্ছে।

ভারতের থিঙ্ক ট্যাঙ্ক অবজার্ভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন (ওআরএফ) গত বছর এক সমীক্ষা রিপোর্টে বলেছে, ২০১৯ সালে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ২৫ মেগাওয়াটের বেশি ক্ষমতার মাত্র ১৮টি প্রকল্প নির্মাণাধীন রয়েছে।

বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, এটি ঢাকাকে একটি বিস্তৃত ট্রান্সমিশন লাইন স্থাপনের পরিকল্পনা করতে উদ্বুদ্ধ করেছে, যা প্রায় ২০,০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সঞ্চালনে সক্ষম হবে।

তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্বাস করে যে, ত্রিপুরা-কুমিল্লা, বঙাইগাঁও (আসাম)-জামালপুর/দিনাজপুর-পূর্ণিয়া (বিহার), শিলচর (আসাম) এবং ফেঞ্চুগঞ্জে এ জাতীয় উচ্চ-ক্ষমতা সম্পন্ন আন্তঃসংযোজক হতে পারে।

বাংলাদেশ গত এক দশক থেকে ভারত, ভুটান, নেপাল ও মিয়ানমারকে নিয়ে এ অঞ্চলে বিশাল বিদ্যুৎ বিনিময় নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার প্রত্যাশায় রয়েছে।

কর্মকর্তারা বলেন, নেপাল ও ভুটানের ৩০,০০০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে এবং সে কারণে, বাংলাদেশ-ভারত-নেপাল এবং বাংলাদেশ-ভারত-ভুটানের মধ্যে যৌথ বিনিয়োগ প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ।

51
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail