Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ইভ্যালির রাসেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ

তদন্তকারী কর্মকর্তা ৫ দিনের রিমান্ডে চাইলেও মহানগর হাকিম মো. হাসিবুল হকের আদালত তিন কার্যদিবসের মধ্যে কারাগারের ফটকে রাসেলকে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:১৩ পিএম

এক ভোক্তার দায়ের অর্থ আত্মসাৎ এর মামলায় ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ রাসেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছে ঢাকার একটি আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) ধানমন্ডি থানায় দায়ের করা মামলায় রাসেলকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ধানমন্ডি থানা পুলিশ আবেদন করে।

তদন্তকারী কর্মকর্তা ৫ দিনের রিমান্ডে চাইলেও মহানগর হাকিম মো. হাসিবুল হকের আদালত তিন কার্যদিবসের মধ্যে কারাগারের ফটকে রাসেলকে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেয়। 

এছাড়া, আসামিপক্ষের করা জামিন আবেদনও প্রত্যাখ্যান করা হয়।

প্রসঙ্গত, মো. মুজাহিদুর রহমান নামের ইভ্যালির এক গ্রাহক বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাসেল এবং তার স্ত্রী ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। তার দাবি, তিনি অনেক আগে ইভালিকে একটি এয়ার কন্ডিশনার কেনার জন্য ৮৫ হাজার টাকা দিয়েছিলেন। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পণ্য বা টাকা কোনোটাই তিনি পাননি।

মঙ্গলবার গুলশান থানায় দায়ের করা প্রতারণার মামলায় তিন দিনের রিমান্ডের পর একই আদালতে হাজির করা হলে আদালত রাসেলের এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে এবং তার স্ত্রী নাসরিনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়।

এর আগে অর্থ জালিয়াতির মামলা দায়েরের পর গত ১৬ সেপ্টেম্বর ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকায় ওই দম্পতির ফ্ল্যাটে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) অভিযান চালায় এবং পরদিন পুলিশে সোপর্দ করার আগে দুজনকে আটক করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর, রাসেল এবং নাসরিনকে উদ্ধৃত করে র‍্যাব দাবি করে, গ্রাহক এবং সরবরাহকারীদের কাছে ইভ্যালির ১ হাজার কোটি টাকার বেশি দেনা থাকলেও তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে মাত্র ৩০ লাখ টাকা ছিল।

তিন বছর ধরে তার কোম্পানি চালানোর পর শেয়ার বাজারে ইভালির শেয়ার ছাড়ার পরিকল্পনা ছিল রাসেলের। ১৭ সেপ্টেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব জানায়, তিনি ব্যাংকের ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ার পর নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করার পরিকল্পনা করেছিলেন মোহাম্মদ রাসেল।

About

Popular Links