Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রাশিয়া-ইউক্রেন সংকট: তাৎক্ষণিক প্রভাব না পড়লেও সতর্ক দেশি ব্যবসায়ীরা

জ্বালানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ মূলত আমদানি-নির্ভর দেশ এবং চলমান যুদ্ধ তেলের বাজারকে সম্পূর্ণ অস্থিতিশীল করে তুলেছে। এরই মধ্যে তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ১০০ ডলারে পৌঁছেছে

আপডেট : ০১ মার্চ ২০২২, ০৫:২৩ পিএম

আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম ইতোমধ্যেই ব্যারেল প্রতি ১০০ ডলার ছাড়িয়েছে, পাশাপাশি এলএনজি এবং সারের দামও ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। বাংলাদেশ সরকারকে এই পণ্যগুলো উচ্চহারে আমদানি করতে হয়, তাই আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যবৃদ্ধি মানুষের জীবনযাত্রাকে আরও প্রভাবিত করতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন অর্থনীতিবিদরা।

এছাড়াও, দেশের মোট গমের চাহিদার সিংহভাগই রাশিয়া থেকে আমদানির মাধ্যমে পূরণ করা হয় এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো ইতোমধ্যেই অন্যান্য পণ্যের পাশাপাশি শস্য আমদানি বন্ধ করে দিয়েছে।

তবে দেশের রপ্তানিকারকরা মনে করছেন, রাশিয়া বা ইউক্রেন কেউই বাংলাদেশের জন্য বড় রপ্তানি গন্তব্য না হওয়ায় বহির্মুখী বাণিজ্যে তেমন প্রভাব পড়বে না।

কিন্তু একটি দীর্ঘায়িত সঙ্কট “গভীর প্রভাব” ফেলতে পারে। কারণ তেলের মূল্যবৃদ্ধি পরিবহন এবং মালবাহী যানের খরচ বাড়িয়ে দেবে।

তবে রাশিয়া ও ইউক্রেনের অন্যান্য প্রতিবেশী দেশগুলোতে যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়লে তা হবে বাংলাদেশের জন্য বড় চিন্তার বিষয়। কারণ পোল্যান্ড, জার্মানি এবং রাশিয়ার কাছাকাছি ইউরোপের কয়েকটি দেশ বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান রপ্তানি গন্তব্য।

গম সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় খাদ্য নিরাপত্তা হুমকির মুখে 

আমদানিকারকদের মতে, বিশ্বব্যাপী গমের সরবরাহের এক-তৃতীয়াংশ আসে রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে।

দেশ দুটি ভুট্টা, রেপসিড, ক্যানোলা, তুলা, সূর্যমুখী তেল এবং ডালও উল্লেখযোগ্য পরিমাণে সরবরাহ করে। আর আমাদের দেশও এই জাতীয় পণ্যগুলোর অভ্যন্তরীণ প্রয়োজন মেটাতে উভয় দেশের ওপর নির্ভরশীল।

আমদানিকারক আমিনুল ইসলামের মতে, গমের বাজার পুরোপুরি ব্যাহত হবে।


আরও পড়ুন- বাংলাদেশেও কি পড়বে ইউক্রেন পরিস্থিতির প্রভাব?


“রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে রপ্তানি সাময়িকভাবে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ফলে সরবরাহ কমে গেলে খাদ্যের দাম বাড়বে। ফলে আমরা আশঙ্কা করছি, খাদ্য নিরাপত্তার ওপর ব্যাপক চাপ পড়বে,” ঢাকা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন।

তার আশঙ্কা, “ইউক্রেন বিশ্বের সূর্যমুখী তেলের অর্ধেকেরও বেশি সরবরাহ করে এবং যদি যুদ্ধ দীর্ঘস্থায়ী হয় তবে এর ওপরও নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।”

সারের উচ্চমূল্যের কারণে খাদ্য নিরাপত্তা ঝুঁকিতে

অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, সারের দাম আরও বাড়বে। কারণ রাশিয়া-ইউক্রেন সংকট বিশ্বব্যাপী ঘাটতির আশঙ্কা বাড়িয়েছে, ক্রমবর্ধমান খাদ্য খরচ সম্পর্কেও উদ্বেগ বাড়িয়েছে।

রাশিয়া বিশ্বব্যাপী স্বল্প-মূল্য, উচ্চ-আয়তন ও প্রধান সারগুলোর উৎপাদক। কানাডার পরেই দেশটি বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পটাশ উৎপাদক যা, প্রধান পণ্য শস্য উৎপাদনে ব্যবহৃত একটি মূল পুষ্টি।

এটি বাংলাদেশের কৃষকদের ক্রমবর্ধমান ব্যয়ের দিকে নিয়ে যেতে পারে, যারা শেষ মেটাতে সার ব্যবহারে পিছিয়ে পড়ছে।

সারের মূল্য বৃদ্ধির ফলে ফসলের ফলন কম হবে এবং খাদ্যের দাম আরও বেশি হবে।


আরও পড়ুন- ফিফা-উয়েফার নিষেধাজ্ঞা: মানতে নারাজ রাশিয়া


বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ হওয়ায় প্রতি বছর এ খাতের জন্য বিপুল সরকারি ভর্তুকি দিয়ে প্রচুর সার আমদানি করতে হয়।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর জানান, অ্যামোনিয়া এবং ইউরিয়া সার উৎপাদনে হাইড্রোকার্বন প্রযুক্তির ভূমিকা রয়েছে।

“যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হলে এক পর্যায়ে সার বাজারে সংকট দেখা দেবে। সারের দাম বাড়বে এবং এ ক্ষেত্রে সরকারকে আরও বেশি মূল্য দিতে হবে। বর্তমানে, প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা সারের জন্য ভর্তুকি দেওয়া হয় যা আরও বাড়বে,” তিনি বলেন।

আপাতত পোশাক রপ্তানি নিরাপদ

দেশের পোশাক পণ্যের প্রধান বাজার ইইউ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং যুক্তরাজ্য। ইইউ দেশগুলো বাংলাদেশের মোট পোশাক রপ্তানির ৬০-৬১%। যদি ইউক্রেনকে ঘিরে থাকা অন্যান্য ইইউ দেশগুলোকে যুদ্ধের দিকে টেনে নিয়ে যায়, তাহলে সমগ্র গার্মেন্টস শিল্পে এর একটি বড় নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

কারণ বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিজিএমইএ) ভাইস-প্রেসিডেন্ট শহীদুল্লাহ আজিম বলেন, “বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় ১০০ কোটি ডলার, যেখানে ইউক্রেনের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় ৩৫ কোটি ডলার।”

“তবে এসব দেশের সঙ্গে বাণিজ্যের আরও প্রবৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হবে। এসব দেশ থেকে আমদানি করা কাঁচামালের দামও বাড়বে,” তিনি বলেন।


আরও পড়ুন- রুশ মুদ্রা রুবলের রেকর্ড দরপতন


শহীদুল্লাহ আজিম আরও বলেন, “বিশ্বব্যাপী তেলের দাম উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে, যার প্রভাব পড়বে রপ্তানি-আমদানি পণ্য পরিবহনে।”

“যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হলে আদেশ বাতিল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া যুদ্ধের কারণে পণ্যের  ব্যাহত হতে পারে,” যোগ করেন তিনি।

টেক্সটাইল বিশ্বও দ্রুত ফ্যাশন নীতি অনুসরণ করছে, তাই পণ্য শিপিং বিলম্বিত হলে, অর্ডার বাতিল করা হবে।

বাংলাদেশ ৬৬৫ মিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে, যার মধ্যে ৫৯৩ মিলিয়ন ডলারের পোশাকই ২০২১ অর্থবছরে রপ্তানি করা হয়।

আমদানি এলএনজিতে খারাপ সময়?

মুডি'স ইনভেস্টর সার্ভিসের মতে, রাশিয়া-ইউক্রেন দ্বন্দ্বের কারণে বিশ্বব্যাপী তেল এবং তরল প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলএনজি) দাম দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে, যা নেট শক্তি আমদানিকারকদের জন্য নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

এছাড়া, বিশ্বব্যাপী সরবরাহ শৃঙ্খলের প্রতিবন্ধকতাগুলোও বৃদ্ধি পাবে, ফলে আসবে মুদ্রাস্ফীতির চাপ।

মনসুর বলেন, বাংলাদেশ এখন আবার এলএনজি আমদানি করছে এবং দীর্ঘায়িত যুদ্ধ বড় ধরনের জ্বালানি সংকটের দিকে নিয়ে যাবে।

জ্বালানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ মূলত আমদানি-নির্ভর দেশ এবং চলমান যুদ্ধ তেলের বাজারকে সম্পূর্ণ অস্থিতিশীল করে তুলেছে। এরই মধ্যে তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ১০০ ডলারে পৌঁছেছে।

জ্বালানি নীতি বিশেষজ্ঞ এম তামিম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ইউরোপে রাশিয়ার গ্যাস সরবরাহ এখন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সংকট অব্যাহত থাকলে জ্বালানির দাম আরও বাড়বে এবং এর সরাসরি প্রভাব পড়বে বাংলাদেশেও। জ্বালানির দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিবহন খরচ ও ভর্তুকির সঙ্গে বিদ্যুৎ উৎপাদনের খরচও বাড়বে।”

তিনি আরও বলেন, “মহামারির কারণে এমনিতেই বিশ্বব্যাপী মজুত গ্যাসের পরিমাণ খুবই কম। এখন সরবরাহ কমলে বৈশ্বিক উৎপাদন অনেক কমে যাবে। এতে শিল্প খাত ব্যাহত হবে।”

বাংলাদেশে রাশিয়ার প্রকল্পের কী হবে?

রাশিয়ার প্রযুক্তিগত ও আর্থিক সহায়তা এবং তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম ও বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণাধীন।

পাবনার ঈশ্বরদীর রূপপুরে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে দেশের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন অ্যাটমিক এনার্জি করপোরেশনের (রোসাটম) সহযোগী প্রতিষ্ঠান।

রাশিয়া ও এর বিভিন্ন সংস্থা পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার আওতায় এলে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের বাস্তবায়ন অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।


আরও পড়ুন- `সুইফট’ থেকে বাদ পড়ছে রুশ ব্যাংকগুলো


এই যুদ্ধ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ২-এর সঙ্গেও নতুন জটিলতা তৈরি করতে পারে কারণ ইতোমধ্যে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন মহাকাশ সংস্থা রোসকসমসের সহযোগী সংস্থা গ্লাভকসমস এবং বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানির মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই করা হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “রাশিয়ার ওপর যৌথ ইউরোপ-মার্কিন নিষেধাজ্ঞা রূপপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের জন্য কোনো সমস্যা নাও হতে পারে, কারণ চুল্লিসহ সবকিছু বাংলাদেশে পৌঁছে গেছে। তবে, বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু ও পরিচালনায় সমস্যা হতে পারে। তবে মূল সমস্যা হবে দ্বিতীয় ইউনিটের কাজ নিয়ে এগিয়ে যাওয়া।” 

তিনি আরও বলেন, “রাশিয়ায় চিপ রপ্তানিতে নতুন নিষেধাজ্ঞা আসছে বলে গুজব রয়েছে এবং তা হলে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ প্রকল্প ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তাছাড়া, সুইফট-এ সীমিত অ্যাক্সেস রাশিয়ার জন্য বড় ধরনের ক্ষতির কারণ হবে, বাংলাদেশ এবং মস্কোর সাথে লেনদেনকারী অন্যান্য দেশের সঙ্গে।”

এতে রুশ অর্থায়নের প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হতে আরও বেশি সময় লাগবে এবং এটি রাশিয়া থেকে পণ্য আমদানি ও রপ্তানির ক্ষেত্রেও সংকট তৈরি করবে।

About

Popular Links