Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলের আকার আরও ছোট হলো

আইএমএফের দেওয়া ৪৭০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণের শর্তের মধ্যেও রয়েছে বিষয়টি

আপডেট : ১৯ মে ২০২৩, ০৭:০৭ পিএম

রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলের (ইডিএফ) আকার আরও ছোট করা হয়েছে।

আগে এটি ৭ বিলিয়ন ডলার থাকলেও এখন তা কমতে কমতে ৪.৭৭ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে।

ইডিএফের ডলারের হিসাবকে বাংলাদেশ ব্যাংক সব সময় ব্যবহারযোগ্য রিজার্ভ হিসেবে দেখিয়ে আসছিল। কিন্তু আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এ ব্যাপারে আপত্তি জানায়।

আইএমএফের দেওয়া ৪৭০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণের শর্তের মধ্যেও রয়েছে বিষয়টি। তাই বাংলাদেশ ব্যাংক দ্রুত এর আকার কমাচ্ছে।

তবে রপ্তানিমুখী শিল্পগুলোকে স্থানীয় মুদ্রায় (টাকা) ঋণসহায়তা দিতে রপ্তানি সহায়ক প্রাক-অর্থায়ন তহবিল (ইএফপিএফ) গঠন করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ তহবিল থেকে ঋণ নিতে উৎসাহী করতে ইডিএফ ফান্ড কমানো হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের মতে, সেপ্টেম্বরের মধ্যে ইডিএফ ঋণের পরিমাণ আরও কমে ২ বিলিয়ন ডলার হবে।

সম্প্রতি, আইএমএফ পরামর্শ দিয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংক মোট রিজার্ভ গণনা থেকে ইডিএফ ঋণ যাতে বাদ দেয়। এটি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপর চাপ সৃষ্টি করে। ফলে এটি বৈদেশিক রিজার্ভের পরিমাণ আরও কমিয়ে দেবে।

দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ৪৬ বিলিয়ন ডলার থেকে এ বছরের ৮ মে ২৯.৮ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে।

২০২৩ সালের জানুয়ারিতে, সরকার এই সমস্যাটি সমাধানের জন্য ১০,০০০ কোটি টাকা দিয়ে একটি নতুন তহবিল প্রতিষ্ঠা করেছে। 

এই তহবিল রপ্তানিমুখী শিল্পে উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় কাঁচামাল আমদানি ও সংগ্রহের জন্য রপ্তানিকারকদের স্বল্প সুদে ঋণ দেবে।

১৯৮৯ সালে ৩৮ লাখ ৭২ হাজার ডলার নিয়ে গঠিত ইডিএফ। এর আকার ধীরে ধীরে বাড়িয়ে ৭ বিলিয়ন বা ৭০০ কোটি ডলারে উন্নীত করা হয়। তবে এখন এই ঋণের সীমা সাড়ে ৫ বিলিয়ন ডলারের বেশি উঠতে দিচ্ছে না বাংলাদেশ ব্যাংক।

এছাড়া ইডিএফ থেকে ঋণ নিয়ে সময়মতো পরিশোধ না করা হলে জরিমানার বিধান চালু করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ঋণ পরিশোধের তারিখের পর সময়কালের জন্য ব্যাংকগুলোকে সাড়ে ৪% অতিরিক্ত সুদ দিতে হয়। 

এদিকে ইডিএফের বিকল্প হিসেবে এ বছরের জানুয়ারি মাসে ১০ হাজার কোটি টাকার রপ্তানি সহায়ক তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

About

Popular Links