Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফুটপাতের অস্থায়ী দোকানে জমে উঠেছে শীতবস্ত্র বিক্রি

ঢাকার বঙ্গবাজার, নিউমার্কেট, গুলিস্তানসহ বিভিন্ন এলাকায় এ দৃশ্যের দেখা মেলে

আপডেট : ১১ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৬:২১ পিএম

ঝড়-বৃষ্টির পর হঠাৎ করেই জেঁকে বসেছে শীত। এর মধ্যেই ঢাকার অস্থায়ী শীতবস্ত্রের দোকানে ভিড় বাড়ছে। চলছে জমজমাট বেচাকেনা। মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের ক্রেতারা এসব দোকান থেকে শীতের কাপড় কিনতে ভিড় করছেন।

ঢাকার বঙ্গবাজার, নিউমার্কেট, গুলিস্তানসহ বিভিন্ন এলাকায় এ দৃশ্যের দেখা মেলে। বিক্রেতারা বলছেন, শীতবস্ত্রের বিক্রি বেড়েছে। দামও বেড়েছে।

দোকানগুলো ঘুরে দেখা যায়, শীতের নানা ধরনের পোশাক মিলছে এসব দোকানে। এরমধ্যে রয়েছে- বিভিন্ন ধরনের কোট, হুডি, সোয়েটার, ব্লেজার, ক্যাপ, মাফলার, মোজা, জুতা এবং কম্বল।

ধরন ও মানের উপর নির্ভর করে এই পোশাকের দাম ১০০ টাকা থেকে ৪,০০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা ক্রেতা ছাড়াও অন্য জেলার ক্রেতারা খুচরা বা পাইকারি দামে শীতের কাপড় কিনতে গুলিস্তান পাইকারি বাজারে ভিড় করছেন।

পুরান ঢাকার বাসিন্দা মো. নাজিদ বলেন, “বছরের বেশির ভাগ কেনাকাটা এখান থেকেই করি। দাম খুব কম এবং এখানে অনেক পণ্য রয়েছে। তাই যে কেউ তার পছন্দের পণ্য বেছে নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। আমি এখানে গরম কাপড় কিনতে এসেছি। একজন বিক্রেতা একটি জ্যাকেটের জন্য ২,২০০ টাকা চেয়েছিল, কিন্তু আমি এটি ৮০০ টাকায় কিনেছি।”

গাজীপুরের বাসিন্দা নুরুজ্জামান নামে আরেক ক্রেতা বলেন, “এখানে কেনাকাটার সুবিধা হলো আপনি দর কষাকষির মাধ্যমে আপনার বাজেট অনুযায়ী কিনতে পারবেন। তুলনামূলক কম দামে মানসম্পন্ন গরম কাপড় পাওয়া যায়।”

আব্দুর রহমান নামে এক বিক্রেতা বলেন, “এখন শীতের কাপড়ের চাহিদা অনেক, বিক্রিও ভালো।”

এছাড়া নগরীর বিভিন্ন স্থানে রিকশা-ভ্যানে গরম কাপড় বিক্রি করছে বিভিন্ন হকার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

নিউমার্কেট এলাকায় একটি অস্থায়ী দোকানের মালিক ফরিদউদ্দিন জানান, দিনমজুর, রিকশাচালকসহ স্বল্প ও নির্দিষ্ট আয়ের মানুষ তার দোকানে ভিড় করছেন।

এছাড়া গুলিস্তান বাজারে ইলেকট্রিক কেটলি, হিটার, ফ্লাস্কসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক সামগ্রীর বিক্রিও বেড়েছে। অলিভ অয়েল এবং লোশনের মতো শীতকালীন পণ্যের চাহিদাও বেড়েছে।

About

Popular Links