Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

'ফেলুদা ফেরত' নিয়ে বিপাকে সৃজিত

জাতীয় উদ্যান এলাকায় শুটিং করার জন্য প্রশাসনের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হলেও সৃজিতের ‘ফেলুদা ফেরত’ টিম অনুমতি না নিয়েই শুটিং শুরু করে দেয়। ফলে বন্ধ করে দেওয়া হয় শুটিং

আপডেট : ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২৮ পিএম

“ফেলুদা ফেরত” ওয়েব সিরিজের শুটিং করতে গিয়ে বিপাকে পড়লেন কলকাতার খ্যাতনামা পরিচালক সৃজিত মুখার্জি। ভারতের উত্তরবঙ্গে গরুমারা জাতীয় উদ্যান এলাকায় ড্রোন উড়িয়ে শুটিং করছিলেন তিনি। আর এতেই ঘটে বিপত্তি। কারণ, জাতীয় উদ্যান এলাকায় শুটিং করার জন্য প্রশাসনের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হয় কিন্তু সৃজিতের “ফেলুদা ফেরত” টিম অনুমতি না নিয়েই শুটিং শুরু করে দেয়। ফলে বন্ধ করে দেওয়া হয় শুটিং।

চালসা রেঞ্জের পানঝোড়া বস্তি সংলগ্ন জঙ্গল এলাকায় চলছিল ফেলুদা ওয়েব সিরিজের শুটিং। পাশেই মূর্তি নদী। মূর্তির চড়েই ড্রোন উড়িয়ে চলছিল শুটিং। চড়ে দাঁড়িয়ে বাঙালির নতুন ফেলুদা টোটা রায়চৌধুরি। জনপ্রিয় পরিচালকের শুটিং হচ্ছে শুনে অনেকেই এলাকায় হাজির হন। বন অধিদপ্তরের কর্মকর্তাও উপস্থিত ছিলেন। সৃজিতের বিরুদ্ধে ওঠে নিষেধাজ্ঞা অমান্যের অভিযোগ। 

নিয়মানুযায়ী, কোনও জাতীয় উদ্যান ও উদ্যান-সংলগ্ন এলাকায় শুটিংয়ের জন্য বিশেষ অনুমতির দরকার হয়। তার ওপর পশু-পাখিদের নিরাপত্তার কারণে ড্রোন উড়িয়ে শুটিং করা যেহেতু নিষিদ্ধ সেসব এলাকায়, তাই প্রশ্নের মুখে পড়েছেন সৃজিত। কীভাবে নিয়মবিরুদ্ধ কাজ করতে পারেন তার মতো জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত একজন পরিচালক? 

পাশাপাশি প্রশ্ন উঠেছে দেশটির বন অধিদপ্তরের কর্মওকর্তাদের ভূমিকা নিয়েও। কারণ, প্রথমে তারা শুটিং স্থলে গিয়ে দেখতে পেলেও কোনরকম আপত্তি করেননি। নিষেধাজ্ঞা রয়েছে জানা সত্ত্বেও কেন মানা করেননি শুটিং টিমকে? সে প্রশ্নও উঠছে।   

এর আগে জলপাইগুড়ির একজন গরুমারা বনাঞ্চলে ড্রোন ব্যবহার করে শুটিং করায় জেলে যেতে হয়েছিল তাকে। অন্যদিকে, ফেলুদা ফেরত’র বিরুদ্ধে এখনও পর্যন্ত প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনরকম ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

About

Popular Links