• রবিবার, মার্চ ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০১ রাত

ধর্ষণ মামলায় আগাম জামিন অলোক নাথের

  • প্রকাশিত ০২:১৪ দুপুর জানুয়ারী ১০, ২০১৯
ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত অলোক নাথ
ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত অলোক নাথ। ছবি: সৌজন্যে

ধর্ষণের ঘটনা খুঁটিয়ে মনে রাখা সত্ত্বেও বিনতা কেন ঘটনার তারিখ মনে রাখেননি, সেই প্রশ্ন তুলেছে আদালত

গত বছর হলিউড এবং বলিউডে ওঠে হ্যাশট্যাগ মি-টু ঝড়, এরপর একে একে বের হয়ে আসতে থাকে অসংখ্য যৌন হয়রানির তথ্য। 

যৌন হয়রানির অভিযোগ থেকে বাদ পড়েননি ভারতীয় বর্ষীয়ান অভিনেতা অলোক নাথ-ও। তার বিরুদ্ধে সরাসরি আনা হয় ধর্ষণের অভিযোগ। সেই ধর্ষণ মামলায়ই এবার আগাম জামিন পেলেন এই অভিনেতা।

মুম্বাইয়ের এক দায়রা আদালতের পর্যবেক্ষণ অনুসারে, ব্যক্তিগত আক্রোশ চরিতার্থ করতেই অলোক নাথের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছিলেন পরিচালক বিনতা নন্দা। পাঁচ লক্ষ টাকার বন্ডের বিনিময়ে বাষট্টি বছরের অভিনেতার আগাম জামিনও মঞ্জুর করেছেন বিচারক। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সেই নির্দেশ ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়। সেখানে দেখা যায় বিচারক বলেছেন, "সম্পূর্ণ ভুল এবং কাল্পনিক তথ্যের ভিত্তিতে অভিযোগকারিণী পুলিশে এফআইআর করেছিলেন"। 

গত বছরের শেষের দিকে বলিউডে মিটু আন্দোলন যখন তুঙ্গে, সোশ্যাল মিডিয়ায় অলোকের বিরুদ্ধে এই ধর্ষণের অভিযোগ আনেন বিনতা। পরে ওশিওয়ারা থানায় অলোকের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন বিনতা। 


আরও পড়ুন- ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত অলোক নাথ


ধর্ষণের ঘটনা খুঁটিয়ে মনে রাখা সত্ত্বেও বিনতা কেন ঘটনার তারিখ মনে রাখেননি, সেই প্রশ্ন তুলেছে আদালত। ঘটনার বিশ বছর পরে কেন তিনি মামলা দায়ের করলেন, সেই প্রশ্নও উঠেছে একই সঙ্গে। অলোক যে বিনতাকে হুমকি দিতেন, সেই প্রমাণও নেই বলে জানিয়েছে আদালত।

আদালতের নির্দেশে আরও বলা হয়েছে, অলোক নাথের প্রতি একতরফা প্রেম ছিল বিনতার। অলোকের স্ত্রী আশু এবং বিনতার গাঢ় বন্ধুত্ব ছিল। পরে কাজের সূত্রে অলোক নাথের সঙ্গে তাদের পরিচয় হয়। অলোকের সঙ্গে আশুর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরবর্তীতে তারা বিয়েও করেন। আদালতের বক্তব্য, সেই সময় একা হয়ে পড়েন বিনতা। প্রিয় বান্ধবীর সঙ্গে অলোকের বিয়ে তিনি মেনে নিতে পারেননি। এত বছর পরে প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে অলোকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন বিনতা।