• রবিবার, জুলাই ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:১৮ রাত

স্ত্রী নির্যাতনের মামলায় জামিন পেলেন হিরো আলম

  • প্রকাশিত ০৮:৫৭ রাত এপ্রিল ১৮, ২০১৯
হিরো আলম
হিরো আলম। ছবি: সংগৃহীত।

কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে হিরো আলম বলেন, ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বিএনপি শপথ না নিলে বগুড়া-৪ শূন্য আসনে উপ-নির্বাচনে অংশ নিবেন

স্ত্রীকে নির্যাতনের মামলায় জামিন পেয়েছেন অভিনেতা আশরাফুল হোসেন, যিনি হিরো আলম নামেই বেশি পরিচিত। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে বগুড়া জেলা ও দায়রা জজ নরেশ চন্দ্র সরকার হিরো আলমের জামিন মঞ্জুর করেন। সন্ধ্যা ৭টায় তার আইনজীবী মাসুদার রহমান স্বপন আদালতের আদেশের কপি কারা কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দিলে হিরো আলমকে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে হিরো আলমকে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে তুলে দেওয়া হয়।

মুক্ত হওয়ার পর তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান, স্ত্রীর সাথে পারিবারিক কিছু সমস্যা হয়েছিল তা মিমাংসা হয়ে গেছে। রাজনীতি প্রসঙ্গে হিরো আলম বলেন, ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বিএনপি শপথ না নিলে বগুড়া-৪ শূন্য আসনে উপ-নির্বাচনে অংশ নিবেন।

অ্যাডভোকেট মাসুদার রহমান স্বপন জানান, হিরো আলমের শ্বশুর সাইফুল ইসলাম মামলাটি আপোষ ও স্ত্রী সাদিয়া বেগম সুমি ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে সংসার করতে রাজি হয়ে আদালতে আবেদন করেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সুমি আদালতকে বলেন, নিজেদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে স্বামী হিরোর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। তিনি এখন সন্তানদের নিয়ে স্বামীর সাথে সংসার করবেন। হিরো আলমকে বগুড়া জেল থেকে আদালতে হাজির করা হলেও তার বক্তব্য শোনা হয়নি। শুনানী শেষে জেলা ও দায়রা জজ ১০ হাজার টাকার বন্ডে তার জামিন মঞ্জুর করেন। আগামী ২০ জুলাই মামলার পরবর্তী দিন ধার্য রয়েছে।

গত ৬ মার্চ হিরো আলমের বিরুদ্ধে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী সাদিয়া বেগম সুমিকে নির্যাতনের অভিযোগ এনে বগুড়া সদর থানায় মামলা করেন সুমির বাবা সাইফুল ইসলাম খোকন। এদিন রাত ১০টার দিকে একই থানায় মামলা করতে গেলে হিরো আলমকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পরদিন ৭ মার্চ বগুড়ার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হিরো আলমকে হাজির করা হয়। ওই সময় হিরো আলমের আইনজীবী তার জামিন চাইলে শুনানি শেষে বিচারক তা নামঞ্জুর করে হিরো আলমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এরপর থেকে হিরো আলম বগুড়া কারাগারে ছিলেন।

সিডি ব্যবসায়ী থেকে তারকা বনে যাওয়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক আলোচিত হন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়ার-৪ আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়েছিলেন আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় দেশজুড়ে তাকে নিয়ে আলোচনা হয়।