• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৬ রাত

না ফেরার দেশে অভিনেতা সালেহ আহমেদ

  • প্রকাশিত ০৩:৪৮ বিকেল এপ্রিল ২৪, ২০১৯
অভিনেতা সালেহ আহমেদ
ছবি: সংগৃহীত

ধারাবাহিক ‘অয়োময়’ নাটক এবং ‘আগুনের পরশমণি’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয় জগতে তার পদচারণা শুরু। পেয়েছেন স্বাধীনতা পদক।

না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন নন্দিত অভিনেতা সালেহ আহমেদ। বুধবার (২৪ এপ্রিল) দুপুর ২টা ৩৩ মিনিটেরাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বাংলা ট্রিবিউনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অভিনয় শিল্পী সংঘের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রওনক হাসান ও প্রয়াতের মামাতো ভাই অভিনেতা আহসানুল হক মিনু।

দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত নানা অসুখে ভুগছিলেন এই জাত অভিনেতা। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর।

২০১১ সালে স্ট্রোকের পর থেকে চিকিৎসার খরচ বহন করতে হিমশিম খাচ্ছিলো এই অভিনেতার পরিবারের সদস্যরা। চলতি বছরের জানুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই অভিনেতার পাশে দাঁড়ান, তার চিকিৎসার জন্য ২৫ লাখ টাকা দেন সঞ্চয়পত্র হিসেবে।

সালেহ আহমেদের জন্ম বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরে চাকরির পাশাপাশি ময়মনসিংহে অমরাবতী নাট্যমঞ্চের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

১৯৯১ সালে চাকরি থেকে অবসরে যাওয়ার পর হুমায়ূন আহমেদের নাটক ও চলচ্চিত্রে নিয়মিত অভিনয় শুরু করেন তিনি। ধারাবাহিক ‘অয়োময়’ নাটক এবং ‘আগুনের পরশমণি’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয় জগতে তার পদচারণা শুরু। এরপর অসংখ্য নাটক ও চলচ্চিত্রে তাকে পাওয়া গেছে। পেয়েছেন স্বাধীনতা পদক।