• শুক্রবার, এপ্রিল ০৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৭ রাত

বাগদানের পরেও কেন ভেঙে গিয়েছিল অভিষেক-কারিশমার প্রেম?

  • প্রকাশিত ০৮:১৮ রাত জানুয়ারী ২০, ২০২০
অভিষেক-কারিশমা
অভিষেক বচ্চন ও কারিশমা কাপুর সংগৃহীত

২০০৩ সালে মায়ের পছন্দে দিল্লির বিখ্যাত ব্যবসায়ী সঞ্জয় কাপুরের সঙ্গে বিয়ে হয় কারিশমার। আর ২০০৭ সালে আরেক বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাইকে বিয়ে করেন অভিষেক

২০০২ সালের ১১ অক্টোবর। নিজের ৬০তম জন্মদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত বলিউডের সব নামকরা তারকাদের সবাইকে চমকে দিয়ে হঠাৎই ছেলে অভিষেক বচ্চনের সঙ্গে অভিনেত্রী কারিশমা কাপুরের সম্পর্কের কথা ঘোষণা করলেন বলিউড সুপারস্টার অমিতাভ বচ্চন। ওই অনুষ্ঠানের মঞ্চেই হয়ে যায় বাগদানও।

ওই ঘটনায় উপস্থিত সংবাদকর্মীসহ বলিউডের অন্যান্য সেলিব্রেটিরাও রীতিমতো আকাশ থেকে পড়েন। কারণ, তার আগে কোনোদিন অভিষেক-কারিশমাকে নিয়ে কোনো গুঞ্জন শোনা যায়নি। অথচ হুট করেই তাদের এনগেজমেন্ট হয়ে গেলো!

খবরটা ছড়িয়ে পড়তে বেশি সময় লাগেনি। কারণ তখন বলিউডের হার্টথ্রুব কারিশমা। “বিবি নম্বর ১”, “রাজা হিন্দুস্তানি”, “ফিজা” একের পর এক হিট ছবি করে ক্যারিয়ারের চূড়ান্ত ফর্মে ছিলেন তিনি।

যেমন হুট করে বাগদানের ঘোষণা এসেছিল, ঠিক তেমনই সবাইকে অবাক করে দিয়ে মাত্র চার মাসের মাথায়ই ছেদ পড়ে অভিষেক-কারিশমার সম্পর্কে। ভেঙে যায় বাগদানও। কিন্তু কেন ভেঙে গিয়েছিল কারিশা-অভিষেকের প্রেম?

ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, সঠিক কারণ আজও রহস্য। যদিও কেউ বলেন, কারিশমার মা ববিতা তাদের সম্পর্ক মেনে নিচ্ছিলেন না। ববিতার বক্তব্য ছিল, কেবল ক্যারিয়ার শুরু করা অভিষেকের সঙ্গে চূড়ান্ত ফর্মে থাকা মেয়ের বিয়ে দিতে নাকি একেবারেই নারাজ ছিলেন তিনি।

ভিন্ন এক সূত্রের বরাত দিয়ে পত্রিকাটি আরও বলছে, তখন বচ্চন পরিবারের আর্থিক অবস্থাও খুব একটা ভালো যাচ্ছিল না। সে কারণেই ববিতা অভিষেকের সঙ্গে মেয়ের বিয়ে দিতে একেবারেই সাহস পাচ্ছিলেন না।

২০০৩ সালে মায়ের পছন্দে দিল্লির বিখ্যাত ব্যবসায়ী সঞ্জয় কাপুরের সঙ্গে বিয়ে হয় কারিশমার। কিন্তু সেই বিয়েও টেকেনি।

অন্য নারীদের প্রতি আসক্তি আর নির্যাতনের অভিযোগে ২০১১ সালে বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন করেন কারিশমা। ২০১৬ সালে বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাদের।

অন্যদিকে, ২০০৭ সালে আরেক বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাইকে বিয়ে করেন অভিষেক। ১৩ বছর ধরে একসঙ্গে রয়েছেন তারা। দু’জনের মধ্যে সম্পর্কও বেশ মজবুত। 

তবে মায়ের আপত্তি নাকি অন্য কোনো কারণে কারিশ্মা-অভিষেকের বিচ্ছেদ হয়েছিল, তা আজও জানা যায়নি।