• মঙ্গলবার, মার্চ ৩১, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩৬ দুপুর

মিস্টার বিনের অজানা কিছু তথ্য

  • প্রকাশিত ০৫:১৬ সন্ধ্যা ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২০
মিস্টার বিন
সংগৃহীত

মুখে কোন কথা নেই শুধু অঙ্গভঙ্গি দিয়েই সবাইকে হাসাতে বাধ্য করা চরিত্রটিই হচ্ছে মিস্টার বিন, আসুন জেনে নেই, তার সম্পর্কে কিছু কথা

মিস্টার বিনকে আমরা কে না চিনি! মুখে কোন কথা নেই শুধু অঙ্গভঙ্গি দিয়েই সবাইকে হাসতে বাধ্য করে যেই চরিত্রটি তিনিই মিস্টার বিন!

মিস্টার বিনের চরিত্রে অভিনয় করেন রোয়ান এটকিনসন। চরিত্রটি তৈরির সময় ইলেকট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এর জন্য অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি করছিলেন তিনি।

তার ভাষায় মিস্টার বিন হল একজন পুর্ণবয়স্ক মানুষের শরীরে বসবাসকারী একটি শিশু। তার হিসেবে মিস্টার বিনের চিন্তাভাবনা একজন ৯ বছর বয়সী একজন কিশোরের মতো।

একটি ডকুমেন্টারিতে রোয়ান জানান, মিস্টার বিনের সঙ্গে তার নিজের জীবনের সাথে বেশ খানিকটা মিল রয়েছে।

তার জীবন অনেক এলোমেলো হলেও তিনি সেগুলো নিয়ে মাথায় ঘামান না। নামকরণের ক্ষেত্রে একাধিক সবজির নাম ভেবে শেষ পর্যন্ত চরিত্রটিকে তিনি “Bean” নাম দেন।

১৯৯০ সালে পহেলা জানুয়ারি ১৪ পর্বের অনুষ্ঠানটির প্রথম পর্ব  প্রচারিত হয়। “Good night Mr. Bean” শিরোনামে শেষ পর্বটি প্রচারিত হয় ১৯৯৫ সালের ৩১ অক্টোবর।

মিস্টার বিনের শিশুসুলভ উদ্ভট আচরণে সবাইকে এতোটাই মুগ্ধ করে যে টিভি শোটি ২৪৫ টি দেশে বিক্রি হয়।

আধা ঘণ্টার একেকটি পর্বে মিস্টার বিন তার দৈনন্দিন জীবনে একের পর এক যে জটিলতা সৃষ্টি করেন এবং তা সমাধানের জন্য যে আজব পদক্ষেপ নেন তা দেখানো হয়। তার কোন বন্ধু-বান্ধব নেই আছে শুধু একটি টেডি বিয়ার যার নাম “টেডি”।

টেডির সাথে সে এমনভাবে গল্পগুজব করে যেন টেডি জীবন্ত এবং তার সব কথা বোঝে। এছাড়াও মিস্টার বিনের আছে ছোট্ট একটি গাড়ি। সেই গাড়িও কম ঝামেলার জন্ম দেয় না !

টিভি শোতে বিনের “এরমা গব” নামের একজন বান্ধবীকেও মাঝেসাঝে দেখা যায়। পুরো সিরিয়ালে মিস্টার বিনকে খুব কমই কথা বলতে শোনা গিয়েছে, তবে তার অসাধারণ অভিনয় সব বয়েসী মানুষকে নির্মল আনন্দ দিয়েছে।

মিস্টার বিন এর জনপ্রিয়তা এত বেশি ছিল যে এই সিরিজগুলোর পর মিস্টার বিনকে নিয়ে দুইটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়।

১৯৯৭ সালে প্রথম মুক্তি পায় “মিস্টার বিন’স আল্টিমেট ডিজাস্টার”, ২০০৫ সালে মুক্তি পায় “মিস্টার বিন’স হলিডে ও মিস্টার বিন’স ডায়েরি। এছাড়া মিস্টার বিন’স ডায়েরি ও মিস্টার বিন’স পকেট ডায়েরি “নামে মিস্টার বিনকে নিয়ে লেখা দুইটি বইও প্রকাশিত হয়েছে। এমনকি তাকে নিয়ে কম্পিউটার গেমসও আছে।

বর্তমানে ২৬ পর্বের মিস্টার বিন অ্যানিমেটেড সিরিজ প্রচারিত হচ্ছে। এখানে মিস্টার বিনের সব কাহিনীর পাশাপাশি আরও নতুন কিছু গল্প যোগ করা হয়েছে।

এই অ্যানিমেটেড বিনে রোয়ান এটকিনসন নিজেই কন্ঠ দিয়েছেন। ভার্গা স্টুডিও ২০০২ সালের ৫ জানুয়ারি প্রথম মিস্টার বিন গল্প অবলম্বনে এ অ্যানিমেটেড সিরিজটি  প্রচার করে।

২০১৪ সালের জানুয়ারি মাসে  আইটিভি ঘোষণা দেয় যে নতুন আঙ্গিকে রোয়ান এটকিনসন-এর সাথে মিস্টার বিন এর এই সমন্বিত অ্যানিমেটেড সিরিজটি আবার শুরু হবে।টেলিভিশন সিরিজের পাশাপাশি অনলাইনেও এটি দেখা যাবে। ২০০২ সালে নির্মিত অ্যানিমেটেড সিরিজের চেয়ে নতুনটি যে অনেক বেশি মজাদার এবং হাস্যরসপূর্ণ হবে তা বলাই বাহুল্য !

নভেম্বর ২০১২ সাল এ রোয়ান এটকিনসন মিস্টার বিন চরিত্র থেকে অবসর ঘোষণা করেন। তিনি তার দর্শকদের উদ্দেশে বলেন, ‌“৫০ বছর বয়েসী একজন মানুষকে শিশুসুলভ আচরণ করাটা আর মানায় না।”