Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ঈদে আসছে না ভারতের ‘ভাইজান-সুলতান’

ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহা, পূজা ও পহেলা বৈশাখের সময় যৌথ প্রযোজনার সিনেমা ছাড়া উপমহাদেশের কোনও সিনেমা আমদানি, প্রদর্শন ও বিতরণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন আপিল বিভাগ।

আপডেট : ০২ জুন ২০১৮, ০২:২৩ পিএম

৩০ মে এমন সিদ্ধান্ত আসার পর তুমুল আলোচিত ছবি শাকিব খানের ‘ভাইজান এলো রে’ ও জিৎ-মিমের ‘সুলতান: দ্য সেভিয়ার’ এবারের ঈদ উৎসবে বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে না। কারণ, প্রথমে ছবি দুটি যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত শোনা গেলেও পরবর্তীতে তা শুধুই ভারতীয় ছবি হিসেবে নিশ্চিত করা গেছে। ঈদ উপলক্ষে নির্মিত হলেও আদালতের এ রায়ের পর বাংলাদেশে এ ছবি দুটি মুক্তিতে আরও সময় লাগবে বলে জানালেন একাধিক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি।

অন্যদিকে যৌথ প্রযোজনার মাহিয়া মাহি, সোহম, ওমের ছবি ‘তুই শুধু আমার’ ঈদে মুক্তিতে বাধা নেই। কারণ, ছবিটির দাফতরিক সব কাজ সম্পন্ন বলে জানা গেছে। ছবিটি পরিচালনা করছেন জয়দ্বীপ চ্যাটার্জি।

তবে দুই দেশের শীর্ষ তারকা শাকিব-জিতের ছবি দুটি ঈদ উৎসবে বাংলাদেশে না হলেও মুক্তি পাচ্ছে কলকাতায়। জানিয়েছেন ছবি সংশ্লিষ্টরা।

‘সুলতান’ ছবির পরিবেশক জাজ মাল্টিমিডিয়ার বিপণন কর্মকর্তা শাকিব সৌখিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ছবিটি যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছিল। কিন্তু অনুমোদনের আবেদনের জন্য জটিলতা তৈরি হওয়ায় ছবিটি শুধু আমদানি নীতিতে বাংলাদেশে আনার প্রস্তুতি ছিল আমাদের। এখন ঈদের পর এটি আমদানি করার পরিকল্পনা আছে আমাদের চেয়ারম্যান আবদুল আজিজ স্যারের। তবে কলকাতায় ছবিটি ঈদেই মুক্তি পাচ্ছে।’

ছবিটি যৌথভাবে প্রযোজনা করছে ভারতের কলকাতার জিৎ’স ফিল্ম ওয়ার্কস ও সুরিন্দর ফিল্মস।

অন্যদিকে ‘ভাইজান এলো রে’ ছবিটি প্রযোজনা করেছে কলকাতার এসকে মুভিজ। এটি বাংলাদেশে পরিবেশন করার কথা রয়েছে প্রযোজক ও পরিবেশক কামাল মোহাম্মদ কিবরিয়া লিপুর। ছবিটিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেছেন কলকাতার শ্রাবন্তী ও পায়েল সরকার। এটি পরিচালনা করেছেন জয়দ্বীপ মুখার্জি।

বাংলাদেশ সেন্সর বোর্ডের সদস্য ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ ৩০ মে বিকালে বলেন, ‘‘আদালতের এ রায়ে ভারতীয় ছবি আসতে পারছে না, এটা ঠিক। তবে যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘তুই শুধু আমার’-এর সব কাজ শেষ। তাই প্রযোজকরা চাইলে এটা মুক্তি দিতে পারেন।’’

প্রসঙ্গত, গত ১০ মে হাইকোর্ট দেশে যৌথ প্রযোজনাসহ সব বিদেশি সিনেমা আমদানি ও প্রদর্শনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী এবং বিচারপতি একেএম জহিরুল হক রুলসহ এ আদেশ দেন।

এরপর হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের চেম্বার আদালতে আবেদন করা হয়। সেই আবেদন শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ৩০ মে আবেদনটি শুনানির জন্য ওঠে। এরপর আপিল বিভাগ উক্ত আদেশ দেন।

আপিল বিভাগ আমদানি ছবি ও যৌথ প্রযোজনার ছবি নিয়ে বুধবার (৩০ মে) রায় দেয়। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত তিন সদস্যের আপিল বেঞ্চ নতুন সিদ্ধান্ত দেন। 

About

Popular Links