Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

হলিউডে মাদার তেরেসার জীবনকাহিনী, কলকাতায় শুটিং শুরু

জীবনের চড়াই উতরাই, টানা পোড়েন, সবটাই থাকছে এই ছবিতে

আপডেট : ২৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:২৪ পিএম

আর্তমানবতার সেবায় যিনি নিজেকে শেষ দিন পর্যন্ত নিয়োজিত করেছিলেন সেই অ্যাগনিস গঞ্জা বোজাঝিউকে সকলে স্বয়ং ঈশ্বরের দূত মনে করতেন। যাদের সমাজে কোনো স্থান ছিল না, তাদের সযত্নে আশ্রয় দিয়েছিলেন আলবেনিয়া থেকে ভারতে আসা এই মহিয়সী নারী। দেখতে দেখতে তিনি পরে হয়ে ওঠেন সকলের প্রিয় মাদার তেরেসা। 

সেই মহীয়সী নারীর জীবনকাহিনী ফুটে উঠতে চলেছে ভারতের রুপোলি পর্দায়। তার জীবনের চড়াই উতরাই, টানা পোড়েন, সবটাই থাকছে এই ছবিতে। আর তাই তিলোত্তমা শহর কলকাতায় পূর্ণাঙ্গ দৈর্ঘ্যের হলিউড সেই সিনেমার শুটিং-ই শুরু হয়েছে। মাদার তেরেসার বায়োপিক যখন, তখন কলকাতা নিঃসন্দেহে এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছবির চিত্রনাট্যে। কারণ, মাদার তার জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় কাটিয়েছেন এই শহরে। কাজেই তার বায়োপিকের শুটিংয়ের লোকেশন তালিকায় কলকাতার নাম যে থাকবেই, তা বলাই বাহুল্য।

ছবির নাম- ‘কবিতা অ্যান্ড তেরেসা’। কমল মুসালের পরিচালনায় পূর্ণদৈর্ঘ্যের এই ছবি ইংরাজি ভাষায় তৈরি হবে। পরিচালক কমল মুসাল এর আগেও বেশ কিছু ছবির জন্য আন্তর্জাতিক মহলে সমাদৃত হয়েছেন। শুটিংয়ের জন্য ইতোমধ্যেই কলকাতায় এসে পৌঁছেছেন জ্যাকলিন ফ্রিতসাচি করনাজ, ‘অক্টোবর’ খ্যাত বণিতা সান্ধু ও বলিউড অভিনেত্রী দীপ্তি নাভাল। জ্যাকলিনকে এই ছবিতে মাদারের ভূমিকায় দেখা যাবে।

শহরের বিভিন্ন প্রান্তে হবে বায়োপিকের শুটিং। তবে মূলত উত্তর কলকাতাকেই চিত্রায়নের জন্য বেছে নেয়া হয়েছে। কারণ, জীবনের বেশ কয়েকটা বছর কলকাতায় কাটিয়েছিলেন মাদার তেরেসা। তার তৈরি বিভিন্ন হাসপাতাল, হোম আজও বহু মানুষের আশ্রয়। মূলত সেসব কাহিনী তুলে ধরার জন্যই শহরের বিভিন্ন প্রান্তকে বেছে নেয়া হয়েছে শুটিংয়ের জন্য।গত শনিবার থেকেই ছবির শুটিং শুরু হয়েছে কলকাতায়।

এর আগেও মাদার তেরেসাকে নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। ২০০৩ সালে ইতালির ফাব্রিজিও কোস্টা মুক্তি দেন প্রামাণ্যচিত্র ‘মাদার তেরেসা অব ক্যালকাটা’। ১৯৮৭ সালে মুক্তি পাওয়া আরেকটি প্রামাণ্যচিত্রের বর্ণনাকারী ছিলেন হলিউড অভিনেতা রিচার্ড অ্যাটনবারা। ১৯৯৭ সালে মুক্তি পায় ডকু-ড্রামা ‘মাদার তেরেসা: ইন দ্য নেম অব গডস পুওর’।

About

Popular Links