Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পরীক্ষায় বসা হচ্ছে না ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগী তোরসার

তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী

আপডেট : ০৪ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৯ পিএম

প্রশাসনিক জটিলতার কারণে কর্তৃপক্ষের অনুমতি সত্ত্বেও “মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৯”-এর রাফা নানজিবা তোরসা বিশেষ পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেননি। রাফা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

জানা গেছে, মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে দেশের বাইরে থাকায় আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ২০১৯ সালের দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেননি তোরসা। পরে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কাছ থেকে বিশেষ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি পান।

এদিকে, প্রশাসনের কাছ থেকে বিশেষ পরীক্ষার অনুমোদন নিয়ে নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন রাফা নানজিবা তোরসা। এমন পরিস্থিতিতে, বিভাগের বর্তমান চেয়ারম্যান ২৯ সেপ্টেম্বর একাডেমিক কমিটির সিদ্ধান্তের উদ্ধৃতি দিয়ে তোরসাকে বলেছেন তিনি একাডেমিক কমিটির অনুমোদন ছাড়া পরীক্ষায় বসতে পারবেন না।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, একই বিভাগে স্নাতকোত্তর শেষ করে তৃতীয় বর্ষ ও প্রথম বর্ষের বিশেষ পরীক্ষা দেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে দুই শিক্ষার্থীকে। শিক্ষার্থীরা বিভাগীয় কর্তৃপক্ষের তড়িঘড়ি এ সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন।

এদিকে, মিস ওয়ার্ল্ড তোরসা পরীক্ষায় না বসার মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন।

তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের সব নিয়ম মেনে চলেছি। কেন আমাকে এখনও প্রশাসনিক জটিলতার মুখোমুখি হতে হচ্ছে? আমার অনুমতি থাকলেও আমাকে পরীক্ষা দিতে দেওয়া হচ্ছে না ... আমি আরেকটি বছর হারাতে চাই না।”

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের চেয়ারম্যান ড. সুজিত কুমার দত্ত বলেন, “তোরসার বিশেষ পরীক্ষার বিষয়টি একাডেমিক কমিটি অনুমোদন করেনি। প্রক্রিয়াটিতে একাডেমিক কমিটির অনুমোদন ছিল না। তাই তিনি বিশেষ পরীক্ষার সুযোগ পাচ্ছেন না।”

দুই শিক্ষার্থীকে বিশেষ পরীক্ষা দেওয়ার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, “‘মানবিক কারণ দেখে আমরা তার স্পেশাল পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিই। পরীক্ষা না নিলে হয়তো তাদের ছাত্রত্ব বাতিল হয়ে যাবে। এজন্য তাদের বিশেষ পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।”

বিভাগের চেয়ারম্যান বলেছিলেন, বিভাগ তার নিজস্ব নিয়ম ভাঙতে পারে না। তোরসার বিষয়ে একা কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। একাডেমিক কমিটির সব সদস্যের উপস্থিতিতে সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

About

Popular Links