Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সাইফের বিয়ের প্রস্তাব একাধিকবার ফিরিয়েছেন কারিনা!

তবে সাইফকে বিয়ে করার ব্যাপারে মনে মনে ঠিকই তখনও নিশ্চিত ছিলেন কারিনা 

আপডেট : ১২ আগস্ট ২০২২, ০৮:৪৫ পিএম

বর্তমান সময়ে বলিউডের অন্যতম সুখী দম্পতি হিসেবে সাইফ আলী খান এবং কারিনা কাপুর খানের নাম নেন অনেকেই। আসছে অক্টোবরে এ জুটির বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার এক দশক পূর্ণ হবে। কিন্তু একসময়ে কারিনাই সাইফকে বিয়ে করতে ইচ্ছুক ছিলেন না।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রেমের শুরুর দিকে সাইফ একবার-দুবার এমনকি একাধিকবার কারিনাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কিন্তু বেবো প্রতিবারই সেই ফিরিয়ে দিয়েছিলেন।

২০০৩ সালের “এলওসি কার্গিল” এবং ২০০৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত “ওমকারা” ছবিতে সাইফ ও কারিনা একসঙ্গে কাজ করেছিলেন। ২০০৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত “তাশান” সিনেমায় আবারও তারা জুটি বেঁধেছিলেন। এই চলচ্চিত্রের শুটিংয়ের সময়ে সাইফ এবং কারিনার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

“তাশান” ছবিটি বক্স অফিসে ব্যর্থ হলেও বাস্তবজীবনে তাদের জুটি হিট হয়ে যায়। ওই বছরেই নিজের হাতে হিন্দিতে কারিনার নাম ট্যাটু করে নিজেদের প্রেমের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন সাইফ।

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে কারিনা অভিনীত চলচ্চিত্র “লাল সিং চাড্ডা”। চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্যে দেখা যায়, লাল (আমির খান) বিয়ের প্রস্তাব দিলেও রূপা (কারিনা) তা প্রত্যাখ্যান করেন।

বাস্তবজীবনে সাইফের দেওয়া বিয়ের প্রস্তাবও প্রত্যাখ্যান করেছিলেন কি-না জানতে চাইলে বলিউড বাবলকে কারিনা বলেন, “হ্যা, আমার সঠিক মনে নেই। সম্ভবত দুবার বা তার চেয়েও বেশি। তবে যেটা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ, সেটা হলো আমি পরে হ্যা বলেছি।”

সাইফের দেওয়া বিয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ার প্রসঙ্গে বলিউড অভিনেত্রী বলেন, “আমি তখনও সাইফকে ভালোবাসতাম। তবে বিয়ের বিষয়ে দ্রুত কোনো সিদ্ধান্ত নিতে চাইনি। মনে হয়েছিল, অনেক আগে ভাবছে সাইফ। এ কারণেই তখন তার প্রস্তাবে রাজি হইনি। তবে আমার মনে হয়, ওকে বিয়ে করার ব্যাপারে আমি মনে মনে তখনও নিশ্চিত ছিলাম।”

চার বছরের প্রেমের পর ২০১২ সালের ১৬ অক্টোবর সাইফ-কারিনা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তৈমুর এবং জাহাঙ্গীর নামে দুটি ছেলেও আছে এ দম্পতির। 

About

Popular Links