Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বড় পর্দায় আসছে জনি-আম্বারের দাম্পত্য কলহ এবং আইনি লড়াই

ডেপ ও আম্বারের দাম্পত্যজীবনের কলহ ও দুজনের আইনি লড়াইকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা সিনেমাটির প্রিমিয়ার হবে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম টুবিতে

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৫ পিএম

হলিউড তারকা জনি ডেপ ও অ্যাম্বার হার্ডের দ্বৈত মানহানির মামলা ছিল এ বছরের বহুল চর্চিত বিষয়ের একটি। বিষয়টি এতই আলোচিত হয়েছিল যে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ার একটি আদালতে ছয় সপ্তাহ চলা শুনানি টিভি চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়। এবার সেই আইনি লড়াই বড়পর্দায় উপভোগ করবেন দর্শকরা।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ভ্যারাইটির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ওটিটি প্ল্যাটফর্ম টুবিতে “হট টেক: দ্য ডেপ/হার্ড ট্রায়াল” সিনেমাটির প্রিমিয়ার হবে। নামেই বোঝা যাচ্ছে যে জনি ও আম্বারের দাম্পত্যজীবনের ঝামেলা ও দুজনের আইনি লড়াইকে কেন্দ্র করেই এই চলচ্চিত্রের কাহিনী গড়ে উঠেছে।

সিনেমাটিতে জনি ডেপের চরিত্রে অভিনয় করেছেন মার্ক হাপকা। অন্যদিকে, মেগান ডেভিসকে দেখা যাবে অ্যাম্বার হার্ডের ভূমিকায়। সেই সঙ্গে এ সিনেমায় ডেপের আইনজীবী কামিলি ভাসকুইজের চরিত্রে মেলিসা মারটি আর হার্ডের পরামর্শদাতা এলেইন ব্রেডফফের চরিত্রে থাকবেন ম্যারি ক্যারিগ।

“হট টেক: দ্য ডেপ/হার্ড ট্রায়াল” সিনেমাটির চিত্রনাট্য লিখেছেন গাই নিকোলুচি এবং পরিচালনা করেছেন সারা লেহম্যান।  নির্বাহী প্রযোজনায় রয়েছেন ব্রিটানি ক্লেমন্স, অ্যাঞ্জি ডে, মারিয়েন সি. ওয়াঞ্চ, হান্না পিলেমার এবং ফার্নান্দো সেউ। নাইন্থ হাউজ ব্যানারে নির্মিত সিনেমাটির প্রযোজনা করেছেন অটোম ফেদেরিকি এবং ক্রিস্টিফোর সিভিজেটিক।

সিনেমাটির বিষয়ে এক বিবৃতিতে স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম টুবির প্রধান কনটেন্ট কর্মকর্তা অ্যাডাম লুইনসন বলেন, “সিনেমাটিতে বিনোদন ভুবনের আলোচিত ঘটনাকে সময়োপযোগী একটি গল্পের আকারে তুলে ধরা হয়েছে।”

হলিউড তারকা জনি ডেপ ও অ্যাম্বার হার্ড ২০১৫ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। ২০১৬ সালে জনি ডেপের বিরুদ্ধে শারীরিক ও যৌন হেনস্তার অভিযোগ এনে আদালতে ডিভোর্সের আবেদন করেন অ্যাম্বার হার্ড। স্ত্রীর সেই অভিযোগ অস্বীকার করলেও ৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করে বিচ্ছেদের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন জনি ডেপ। সেই সময়ে আদালতের কাছে দুইজন প্রতিজ্ঞা করেছিলেন যে, ভবিষ্যতে তাদের দাম্পত্য জীবন নিয়ে জনসম্মুখে আর কোনো ধরনের আলোচনা করবেন না তারা।

তবে ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন পোস্টকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ডেপের বিরুদ্ধে আবারও শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করেন অ্যাম্বার। ফলে মার্কিন অভিনেতার কাছ থেকে ফ্যান্টাস্টিক বিস্ট থ্রি এবং পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান-এর মতো সিনেমাগুলো তার হাতছাড়া হয়ে যায়। এমনকি নতুন করে কোনো চলচ্চিত্রের প্রস্তাব আসছিল না।

পরবর্তীতে ব্যক্তিগত আইনজীবীর সহায়তায় মানহানির মামলা করেছিলেন জনি ডেপ। অ্যাম্বারের বিরুদ্ধে ৫০ মিলিয়ন ডলারের মানহানির মামলা করেন ডেপ। ওই মামলার পর ১০০ মিলিয়ন ডলারের পাল্টা মামলা করেন অ্যাম্বার।

গত ১ জুন ভার্জিনিয়ার একটি আদালতে তিন দিন ধরে সাত সদস্যের জুরি প্রায় ১৩ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চলা শুনানির পর মামলার রায় জনি ডেপের পক্ষে যায়।  মামলায় জনি ডেপের বিরুদ্ধে অ্যাম্বার যে অভিযোগ এনেছিলেন তা প্রমাণিত না হওয়ায় মার্কিন অভিনেতার সাবেক স্ত্রীকে ১৫ মিলিয়ন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৩৪ কোটি টাকারও বেশি) জরিমানার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। তবে ৫৮ বছর বয়সী ডেপের আইনজীবীরা হার্ডের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও অবমাননাকর বিবৃতি দেওয়ার কারণে কিছু অভিযোগের রায় তার সাবেক স্ত্রীর পক্ষেও যাওয়ায় ৩৬ বছর বয়সী অভিনেত্রীকে ২ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ দিতে হবে ডেপের।

About

Popular Links