Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ইরফান হয়ত পাত্তা দেবেন না, শঙ্কা ছিল দীপিকার

ইরফান খান পরবর্তীতে দীপিকার অন্যতম প্রিয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছিলেন

আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬:০২ পিএম

বেঁচে থাকলে গত ৭ জানুয়ারি ৫৭ বছরে পা দিতেন ইরফান খান। জীবদ্দশায় ভারতের শক্তিমান অভিনেতা হিসেবে বিবেচিত ছিলেন ইরফান। ভারতের ব্যতিক্রমধর্মী চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সুখ্যাতি ছিল ইরফানের। এমনকি হলিউডের অনেক বড় বাজেটের চলচ্চিত্রেও একরকম আড়ালে-নিভৃতেই কাজ করে গেছেন তিনি।

জীবদ্দশায় দীপিকা পাড়ুকোনের সঙ্গে একবারই জুটি বেঁধেছিলেন ইরফান। ২০১৫ সালে মুক্তি পায় এই জুটির একমাত্র চলচ্চিত্র “পিকু”। ছবিটিতে কাজ করার সময় ইরফানের কাছে “পাত্তা না পাওয়ার” শঙ্কা পেয়ে বসেছিল দীপিকাকে। এক প্রতিবেদনে এ কথা জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস।

ইরফানের সঙ্গে প্রথমবারের মতো কাজ করার অভিজ্ঞতা জানিয়ে ২০১৬ সালে পিটিআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দীপিকা বলেছিলেন, “আমার ধারণা ছিল ব্যক্তি এবং অভিনেতা হিসেবে তিনি খুবই গুরুগম্ভীর। আমার এই চিন্তার পেছনে গণমাধ্যমেরও ভূমিকা ছিল। আমি ভেবেছিলাম বাণিজ্যিক সিনেমার অভিনেত্রী হওয়ার কারণে তিনি সিনেমার শুটিং সেটে আমার সঙ্গে কথাবার্তা বলবেন না। কিন্তু তিনি একবারেই অন্যরকম ছিলেন।” 

বলিউডের অন্যতম প্রভাবশালী এই অভিনেত্রী আরও বলেন, “ইরফান খান দারুণ মজার মানুষ ছিলেন। আমাদের দুজনের মধ্যে যে বিষয়ে সবচেয়ে বেশি মিল ছিল তা হলো, আমরা উভয়েই ভীষণ লাজুক। তিনি খুব অল্প কথা বলতেন। কিন্তু যখনই তিনি কোনো কিছু বলতেন, সেটা খুব মজার হতো। আমার মনে হয় তার কমিক সেন্স ছিল দুর্দান্ত। আর তার গুণ, অভিনয় দক্ষতা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব না।”

“পিকু” সিনেমাটি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিভিন্ন পুরস্কার জিতে নেয়। এর মধ্যে তিনটি ন্যাশনাল ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডও ছিল। এই চলচ্চিত্রের জন্য অমিতাভ বচ্চন সেরা অভিনেতা বিভাগে, জুহি চতুর্বেদি সেরা মৌলিক চিত্রনাট্য এবং সংলাপ বিভাগে পুরস্কার পান।

ইরফান খান পরবর্তীতে দীপিকার অন্যতম প্রিয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছিলেন। হলিউডে দীপিকার প্রথম সিনেমা “এক্সএক্সএক্স: রিটার্ন অব জান্ডার কেইজ”-এর প্রচারণায়ও অংশ নিয়েছিলেন এই অভিনেতা। ২০২০ সালে যখন অভিনেতা মারা যান, তখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে দীপিকা শূন্য স্ট্যাটাস পোস্ট করেছিলেন, সেখানে শুধু একটি হৃদয় ভাঙার ইমোজি ছিল।

বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে ভারতে পদ্মশ্রী সম্মাননার পাশাপাশি তিনি জাতীয় পুরস্কারেও ভূষিত হন ইরফান খান। সমালোচকদের থেকে দারুণ প্রশংসা কুড়ানো একাধিক সিনেমারও অংশ ছিলেন তিনি। এগুলোর মধ্যে আছে অস্কারজয়ী চলচ্চিত্র “স্লামডগ মিলিয়নিয়ার” এবং “লাইফ অব পাই”। এছাড়া, ইরফান খানের প্রশংসিত চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে “সালাম বম্বে”, “লাইফ ইন এ মেট্রো”, “মকবুল, পান সিং তোমার”, “দ্য লাঞ্চবক্স”, “হিন্দি মিডিয়াম” ইত্যাদি।

About

Popular Links