Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ই-মেইলের মাধমে সালমানকে হত্যার হুমকি দেওয়া যুবক গ্রেপ্তার

শুধু সালমান না, নিহত গায়ক মুসেওয়ালাকেও বারবার হুমকি পাঠাতেন এই যুবক

আপডেট : ২৭ মার্চ ২০২৩, ০৪:৫৩ পিএম

ভারতীয় শীর্ষ সন্ত্রাসী লরেন্স বিষ্ণোইয়ের কাছ থেকে বছরখানেক ধরে হত্যার হুমকি পেয়ে আসছেন বলিউড সুপারস্টার সালমান খান। সপ্তাহ দুয়েক আগে কৃষ্ণসার হরিণ হত্যার মাধ্যমে বিষ্ণোই সম্প্রদায়কে অসম্মান করার জন্য সালমানকে ক্ষমা চাইতে বলেন, নয়তো তাকে এর পরিণতি ভোগ করতে হবে বলে জানান লরেন্স।

সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই গত সপ্তাহে  ই-মেইলের মাধ্যমে বলিউড অভিনেতাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। সেখানে সালমানকে কানাডিয়ান গ্যাংস্টারের সঙ্গে সামনাসামনি দেখা করতে বলা হয়। সেই সঙ্গে সাক্ষাতের সময়ও সালমানকেই জানানোর আহ্বান জানানো হয়। আর দেখা করার সময় পার হয়ে গেলে আর কিছু মনে না করিয়ে পরের বার শুধু ঘটনা ঘটানোর হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় সালমানকে।

ই-মেইলটি এসেছিল মোহিত গর্গ নামের এক ব্যক্তির অ্যাকাউন্ট থেকে। মোহিত গর্গ ওই ব্যক্তির আসল নাম না হলেও তিনি যে বিষ্ণোই গ্যাংয়ের সদস্য, সেটি বুঝতে কারও বাকি ছিল না। তবে শেষ পর্যন্ত সালমানকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে পাঠানো ই-মেইলের আসল প্রেরককে খুঁজে বের করে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়।

ই-মেইলের মাধ্যমে সালমানকে হত্যার হুমকি দেওয়ার পরই তার গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোই, গোল্ডি ব্রার এবং অন্য একজনের বিরুদ্ধে আইপিসি ধারা ৫০৬(২), ১২০(বি) এবং ৩৪-এর অধীনে অভিনেতার ঘনিষ্ঠ সহযোগীর মাধ্যমে বান্দ্রা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মুম্বাই আর রাজস্থানের পুলিশ একসঙ্গে সেই মামলার তদন্ত শুরু করেছিল।

যোধপুরের লুনি থানার এসএইচও (স্টেশন হাউস অফিসার) ঈশ্বর চাঁদ পারেক বলেন, তদন্তে চলাকালে জানা যায়,  সালমানকে হত্যার হুমকি দেওয়া ই-মেইলটি যোধপুর থেকে পাঠানো হয়েছিল। তখন মুম্বাই পুলিশ সব তথ্য যোধপুর পুলিশের কাছে পাঠিয়ে দেয়। শেষে জানা যায়, ই-মেইলটি পাঠিয়েছিলেন ধাকড়রাম বিষ্ণোই নামের এক যুবক। রবিবার (২৭ মার্চ) ২১ বছর বয়সী ওই যুবককে মুম্বাই পুলিশের হাতে তুলে দেয় যোধপুর পুলিশ।

ধাকড়রাম বিষ্ণোই ভারতের যোধপুরের লুনি এলাকার সিয়াগোর ধানি রোহিচা কালানের বাসিন্দা। এর আগে পঞ্জাব পুলিশও ধাকড়রাম বিষ্ণোইয়ের খোঁজে জোধপুর আসে। নিহত গায়ক মুসেওয়ালাকেও বারবার হুমকি পাঠাতেন এই যুবক। এছাড়া, ধাকড়রামের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে যোধপুরের সর্দারপুরায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সপ্তাহ দুয়েক আগেই এক সাক্ষাৎকারে লরেন্স বিষ্ণোই জানিয়েছিলেন, তার জীবনের লক্ষ্য সালমানকে খানকে হত্যা করা। পরদিনই সালমানের ব্যক্তিগত সহকারী জর্ডি প্যাটেলের কাছে একটি মেইল আসে। সালমান খানের কাছের বন্ধু প্রশান্ত গুঞ্জলকার জানান, অভিনেতার বান্দ্রার কার্যালয়ে যাওয়ার সময়ে সেই মেইলটি দেখতে পান। লরেন্স বিষ্ণোইয়য়ে পক্ষ থেকে মোহিত গর্গ নামের এক ব্যক্তির অ্যাকাউন্ট থেকে আসা সেই মেইলেই সালমানকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।

ই-মেইলে বলা হয়, “গোল্ডি ব্রাড় (কানাডিয়ান গ্যাংস্টার) তোর বস মানে সালমানের সঙ্গে কথা বলতে চায়। ওকে হিসাব-নিকাশের নিষ্পত্তি করতে হলে কথা বলতে বলিস। সময় থাকতে থাকতে জানিয়ে দিলাম। সামনাসামনি কথা বলবে কি-না, সেটাও জানিয়ে দিস। সময় পার হয়ে গেলে কিন্তু আর ভাববো না। পরেরবার শুধু ভয়ংকর রূপ দেখবে।”

ই-মেইল পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মুম্বাই পুলিশ সালমান খানের বাড়ির বাইরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করে। এমনকি সালমানকে আগামী কিছুদিন তার আসন্ন সিনেমা “কিসি কা ভাই কিসি কা জান”র প্রচারণা সংক্রান্ত বিভিন্ন অনুষ্ঠান এড়িয়ে চলতেও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে ই-মেইল পাঠানো অজ্ঞাতনামা সেই ব্যক্তির গ্রেপ্তারে হয়ত ৫৭ বছর বয়সী এ অভিনেতা একটু হলেও স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলবেন।

About

Popular Links