Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

দূরবর্তী সম্পর্কের গল্পে প্রীতম-ফারিণ জুটির 'কাছের মানুষ দূরে থুইয়া’

কাকতালীয়ভাবে সিনেমার গল্পটি যে ফারিণের জীবনের গল্পের সঙ্গে মিলে গেছে

আপডেট : ২৭ আগস্ট ২০২৩, ০৯:৩১ পিএম

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ কিছুদিন আগেই বিয়ে করেছেন। জানা গেছে, প্রায় আট বছরের বেশি সময় ধরে প্রেমের সম্পর্ক তাদের। ফারিণের স্বামী শেখ রেজওয়ান রিফাদ আহমেদ যুক্তরাজ্যে পড়াশোনা করেছেন। আর ফারিণ অভিনয় নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন ঢাকায়। ফলে দুজনকে দীর্ঘদিন একটা “লং ডিসট্যান্স” সম্পর্কের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। কাকতালীয়ভাবে ফারিণ নতুন যে ওয়েব ফিল্মে অভিনয় করেছেন, সেটিও “লং ডিসট্যান্স” সম্পর্ক নিয়েই!

সম্প্রতি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম চরকি ঘোষণা দেয় “মিনিস্ট্রি অব লাভ” প্রজেক্টের। যেখানে ১২ জন জনপ্রিয় নির্মাতা ভালোবাসার গল্প নিয়ে ১২টি চরকি অরিজিনাল ফিল্ম বানাবেন। এই পুরো প্রজেক্টের সার্বিক তত্ত্বাবধানে থাকছেন জনপ্রিয় পরিচালক, প্রযোজক, চিত্রনাট্যকার মোস্তফা সরয়ার ফারুকী।

এই প্রজেক্টের একটি সিনেমা “কাছের মানুষ দূরে থুইয়া”। এটি নির্মাণ করছেন শিহাব শাহীন।

লং ডিসট্যান্স সম্পর্কের ক্ষেত্রে দূরত্বের কারণে মাঝেমধ্যে তৈরি হয় অনিশ্চয়তা, সন্দেহ ও ক্ষোভ। এ রকম সম্পর্কের গল্প নিয়েই চরকি অরিজিনাল সিনেমাটি। এতে ফারিণের সঙ্গে দেখা যাবে গায়ক, অভিনেতা প্রীতম হাসানকে।

সিরিজটির সঙ্গে তার ব্যক্তিজীবনের মিল সম্পর্কে ফারিণ সাংবাদিকদের বলেন, “এই সিনেমার গল্প আমার জীবনের সঙ্গে অনেকখানি মিলে যায়। আমার আর আমার স্বামীর লং ডিসট্যান্স রিলেশন ছিল। তাই নিজের সঙ্গে কানেক্ট করে কাজ করতে ভালো লেগেছে। সিনেমায় আমার চরিত্রের নাম শারমিন। সে অতীতের সম্পর্ক নিয়ে বেশ ঝামেলায় পড়েছিল। তবে ফারহানের সঙ্গে দেখা হওয়ার পর দারুণ কিছু হয়।”

প্রীতম হাসান বলেন, “শিহাব ভাই (পরিচালক) একদিন হঠাৎ ফোন দিয়ে জানালেন, তার কাছে একটা গল্প আছে। তারপর ভাইয়ের সঙ্গে বসে চিত্রনাট্য দেখার পর আমি নিশ্চিত হয়েছি—কাজটা করতে চাই। খুব সুন্দর গল্প নিয়ে সিনেমা এটি।”

এই সিনেমায় নিজের চরিত্র নিয়ে প্রীতম বলেন, “আমি এখানে রুয়েটের একজন শিক্ষার্থীর চরিত্র করেছি। একটা সংকটময় শৈশব পার করে বড় হয় ছেলেটি। সে বেশ রুক্ষ, অনেক কিছু সম্পর্কে তার জানা নেই। তবে প্রথমবার প্রেম পড়ার পর তার জীবনের অনেক কিছুই বদলে যায়।”

সিনেমার গল্প নিয়ে পরিচালক শিহাব শাহীন বলেন, “জীবনে অসংখ্য প্রেমের গল্প বানিয়েছি। কিন্তু এবারের প্রেমের গল্প বলতে গিয়ে নতুন কিছু অনুভূতি হয়েছে। এটা একদম নতুন গল্প। যদিও প্রতিটি কাজেই নতুন কিছু অভিজ্ঞতা হয়। দূরত্ব ভালোবাসার ওপর কীভাবে চাপ তৈরি করে, কীভাবে সম্পর্কের টানাপোড়েন তৈরি করে, তা এই সিনেমায় থাকবে। যারা প্রবাসে থাকেন, তারা এটা ভালো ধরতে পারবেন। এটা একটা স্পর্শের গল্প।”

“কাছের মানুষ দূরে থুইয়া”র শুটিং হয়েছে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ায়। দেশের বাইরে পুরো ইউনিট নিয়ে কাজের অভিজ্ঞতা জানিয়ে পরিচালক বলেন, “অস্ট্রেলিয়ার শুটিংয়ে যারা জড়িত ছিলেন, সবাই অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন। তারা ছাড়া কাজটি করা কঠিন হতো। আমরা রাজশাহীতে কাজ করেছি। সেখানকার সবাই আমাদের সাহায্য করেছেন। রাজশাহী ও অস্ট্রেলিয়ার দুই জায়গাতে প্রেমের গল্প বলার মতো দারুণ জায়গা পেয়েছি।”

About

Popular Links