Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পরিচালক সোহানের মৃত্যুতে শোকের সঙ্গে ক্ষোভও জানালেন শাবনূর

অভিনেত্রী শাবনূর আক্ষেপের সঙ্গে বলেন, ‘মৃত্যুর আগেও সোহান আঙ্কেল মিথ্যা অপবাদ দিয়ে গেলেন’ 

আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৮:৫৮ পিএম

স্ত্রী প্রিয়া রহমানকে হারিয়ে শোকের মধ্য ছিলেন ঢালিউড নির্মাতা সোহানুর রহমান সোহান। সহধর্মিণীর মৃত্যুর চব্বিশ ঘণ্টা না পেরোতেই বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় তিনি না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। গুণী এ পরিচালকের মৃত্যুতে পুরো ঢালিউড ইন্ডাস্ট্রিই শোকস্তব্ধ।

বর্তমানে চলচ্চিত্র থেকে দূরে থাকলেও সুদূর অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে বসেই সোহানের মৃত্যুসংবাদ শুনেছেন শাবনূর। অভিনয় জীবনে এ পরিচালকের নির্মিত বেশ কয়েকটি সিনেমায়ই কাজ করেছেন এই চিত্রনায়িকা। সোহানের মৃত্যুতে তাই স্বভাবতই শোকপ্রকাশ করেছেন শাবনূর। তবে শোকের সঙ্গে রয়েছে এই অভিনেত্রীর ক্ষোভ এবং দীর্ঘশ্বাসও।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে শাবনূর বলেন, “আহা জীবন! অত্যন্ত ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বলতে হচ্ছে যে, বরেণ্য চলচ্চিত্র নির্মাতা সোহানুর রহমান সোহান আর আমাদের মাঝে নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বলা দরকার, গতকাল (১২ সেপ্টেম্বর) সোহানুর রহমান সোহানের স্ত্রীও স্ট্রোক করে মারা গেছেন। সোহান আঙ্কেল যাবার আগে আমার বিরুদ্ধে মিডিয়াতে কিছু উল্টাপাল্টা ও মিথ্যা অপবাদ দিয়ে গেলেন। আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন ও আমার সম্মানহানি করে গেলেন। অনেকেই তার কটু কথার বিরুদ্ধে পাল্টা জবাব দিতে বলেছিলেন। আমি চাইলেই মিডিয়াতে তার এই মিথ্যা অপবাদের প্রতিবাদ করতে পারতাম।”

এই চিত্রনায়িকা বলেন, “এর আগেও উনি কোনো এক ইন্টারভিউতে আমার বিরুদ্ধে এ রকম বাজে মন্তব্য করেছিলেন। তখনও আমি তার অপবাদের বিরুদ্ধে কোনো পাল্টা জবাব দেইনি। সোহান আঙ্কেল অনেক বয়োজ্যেষ্ঠ, আমার পিতৃতুল্য। আমি কোনো অন্যায় করলে উনি আমাকে শাসন করতে পারতেন। এই তো কিছুদিন আগেও তার সঙ্গে আমার ফোনে আলাপ হয়েছিলে। তখন তাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, আঙ্কেল আপনি কি কোনো কারণে আমার ওপর রাগ করে আছেন? আপনি যে আমার বিরুদ্ধে মিডিয়াতে উল্টাপাল্টা কথা বলছেন। তিনি তখন বললেন, ‘তুই আমাদের ইন্ডাস্ট্রির মেয়ে, আমার মেয়ের মতো। তোর ওপর কেন রাগ করতে যাবো। আর আমি তো তোর বিরুদ্ধে কোনো বাজে কথা বলিনি।’ এরপর আমার বিরুদ্ধে গত সপ্তাহে তিনি আবারও মিথ্যা অপবাদ দিয়ে গেলেন।”

সবশেষে শাবনূর বলেন, “আমার একটাই দুঃখ, আমি জানতে পারলাম না উনি কেন বা কার চক্রান্তে প্রভাবিত হয়ে আমার পেছনে উঠে পড়ে লেগেছিলেন। যাই হোক, আমি সবার উদ্দেশে একটা কথা বলতে চাই, ভাই জীবনটা খুবই ছোট্ট। এত দাঙ্গা ফ্যাসাদ করে কি লাভ? একে অন্যের বিরুদ্ধে না লেগে আসুন আমরা সবাই মিলেমিশে থাকি। গন্তব্য তো একটাই, সবাইকে এই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করতে হবে। যেহেতু ক্ষমা একটি মহৎ গুণ, তাই আমি ওনাকে মাফ করে দিলাম। আমি আঙ্কেল ও তার স্ত্রীর রুহের মাগফিরাত কামনা করছি।”

About

Popular Links