Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

আহমেদ রুবেল স্মরণে চরকিতে ‘পেয়ারার সুবাস’

সিনেমার প্রিমিয়ার শো দেখতে যাওয়ার পথে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা গিয়েছিলেন

আপডেট : ২০ মার্চ ২০২৪, ১০:৪৮ পিএম

নুরুল আলম আতিক পরিচালিত ‘‘পেয়ারার সুবাস’’ আগামী ২১ মার্চ থেকে চরকিতে সম্প্রচারিত হবে। সিনেমাটি প্রবীণ অভিনেতা আহমেদ রুবেলের স্মৃতির প্রতি উৎসর্গ করা হয়েছে। সিনেমার প্রিমিয়ার শো দেখতে যাওয়ার পথে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা গিয়েছিলেন।

৯২ মিনিটের চলচ্চিত্রটিতে আহমেদ রুবেল ছাড়াও অভিনয় করেছেন প্রতিভাবান অভিনেতা জয়া আহসান, তারিক আনাম খান, সুষমা সরকার, দিহান, নূর ইমরান মিঠুসহ আরও অনেকে। যারা আহমেদ রুবেলের সাথে অভিনয় করেছেন। সিনেমাটি প্রযোজনা করেছে আলফা-আই স্টুডিওস লিমিটেড এবং সহ-প্রযোজনা করেছে চরকি।

পেয়ারার মামা টাকার লোভে তাকে বিয়ে দেয় বৃদ্ধ আয়নাল মুন্সীর সাথে। বৃদ্ধ আয়নাল মুন্সী তার পৌরষত্ত্ব প্রমাণে দিনের পর দিন জোড়পূর্বক চড়াও হয় পেয়ারার উপর। প্রতিদিনের এই অত্যাচারে পেয়ারা অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। মুক্তির পথ খুঁজতে থাকে। প্রতিশোধ নেবার জন্য হাঁসফাঁস করতে থাকে তার মন। ঠিক সেই মূহর্তে হাজির হয় হাশেম। তারপর পেয়ারার পরিণতি কি হয়? সে কি পারে বৃদ্ধ মুন্সীর অত্যাচার থেকে নিজেকে বাঁচাতে?

পেয়ার জীবনে কী ঘটে না ঘটে এই সব প্রশ্নের খোলাসা হবে আগামী ২১ শে মার্চ রাত ৮টায়। 

পেয়ারা চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান। তিনি বলেন, ‘‘আমরা সাধারণরা সব সময় যে দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে ছবি দেখি বা কাজ দেখি আতিক আসলে সব সময় নতুনভাবে, নতুন কিছু দেখতে শেখায় বা দেখায়। আমার মনে হয় যে, এই ধরনের পটভূমিতে হয়ত বাংলা ছবি এর আগে হয়নি। আমার চরিত্রসহ এই সিনেমার প্রতিটা চরিত্র বেশ স্ট্রং, ভীষণ র চরিত্র। আতিকের প্রথম ছবিতে আমি ছিলাম। তার সাথে কাজ করা আমার জন্য বরাবরই আনন্দের। সিনেমটা প্রেক্ষাগৃহের পর এবার চরকিতে আসছে এটা আনন্দের।’’

আহমেদ রুবেলের স্মৃতিতে জয়া বলেন, ‘‘সব আনন্দ ছাপিয়ে আমাদের মাঝে এখন তীব্র বেদনা হচ্ছে আহমেদ রুবেলের চলে যাওয়া। প্রিমিয়ারের দিনের ঘটনাটা আমাদের সবার মাঝে ভার হয়ে জমে আছে। অনেক কিছু বলতে চেয়েও বলতে পারি না। শুধু এতটুকু বলতে পারি শিল্পী তার কাজ দিয়ে সবার মাঝে থেকে যান আহমেদ রুবেলও তার কাজ দিয়েই আমাদের মাঝে থেকে যাবেন।’’

সিনেমাটির চিত্রগ্রাহক ছিলেন অতীশ সাহা। এডিট করেছেন সজল অলক।কালার গ্রেডিং-এ ছিলেন দেবজ্যোতি ঘোষ। মিউজিক ও ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর করেছেন রাশেদ শরিফ শোয়েব। সাউন্ড ডিজাইনে ছিলেন নাহিদুর রহিম চৌধুরী।

পেয়ারার সুবাস-এ সবার চরিত্রের লুক তৈরিতে মেক-আপ আর্টিস্ট হিসেবে ছিলেন মো. ফারুক। কস্টিউম ডিজাইনার মারিয়া ফারিহ উপমা ও আর্ট ডিরেক্টর ছিলেন মাহমুদ উল ওয়াদুদ রেইনি।

আলফা-আই স্টুডিওজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল বলেন, ‘‘সিনেমা হলে মুক্তি পাওয়া সুড়ঙ্গ আমাদের প্রথম সিনেমা হলেও পেয়ারার সুবাস-এর কাজ আমরা প্রথমে শুরু করেছিলাম। পেয়ারার সুবাস সিনেমা হলের পর চরকিতে মুক্তি পাচ্ছে। যেটা আমাদের জন্য খুব আনন্দের সংবাদ। পছন্দের পরিচালক, প্রিয় শিল্পীরা আর সাময়িক প্রেক্ষাপটের গল্প নিয়ে খুব দুর্দান্ত এক সিনেমা-পেয়ারার সুবাস।’’

চরকির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি বলেন, ‘‘আমাদের কাছে খুব বিশেষ একটা সিনেমা পেয়ারার সুবাস। আহমেদ রুবেল ভাইয়ের চলে যাওয়াটা আমাদের জন্য খুব বড় একটা ধাক্কা। তবে আমরা বিশ্বাস করি রুবেল ভাই তার কাজ দিয়েই আমাদের মাঝে চিরদিন থাকবেন। আর এই সিনেমার সঙ্গে দেশের গুণী নির্মাতা ও গুণী অভিনয়শিল্পীরা যুক্ত আছেন। চরকি এই ছবির সাথে যুক্ত হতে পেরে বেশ আনন্দিত। বাংলা সিনেমাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দেয়ার জন্য চরকি সব সময় কাজ করছে।’’

উল্লেখ্য, ২০২৩ সালে আন্তর্জাতিক মর্যাদাপূর্ণ মস্কো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল-এর ৪৫ তম আসরের মূল প্রতিযোগিতা বিভাগে অফিসিয়াল সিলেকশন পেয়েছিল ‘‘পেয়ারার সুবাস’’। 

About

Popular Links