Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পরমব্রত: পশ্চিমবঙ্গের বাঙ্গালিদের মধ্যে বাংলাদেশিদের প্রতি এক ধরণের বিদ্বেষ কাজ করে

লন্ডনে বসবাসরত বাংলাদেশি ও ভারতীয় বাঙ্গালিদের আত্মপরিচয় ও ধর্মীয় বিভক্তির কাহিনী 'শরতে আজ' নিয়ে ভারতীয় অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় কথা বলেছেন ঢাকা ট্রিবিউনের সাদিয়া খালিদের সঙ্গে

আপডেট : ০২ মার্চ ২০১৯, ০৫:৪০ পিএম

ভারতীয় অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় শুধু একজন অভিনেতাই নন। তিনি নিয়মিতভাবেই লেখালেখি, চলচ্চিত্র পরিচালনা, প্রযোজনা ও টেলিভিশনে অনুষ্ঠানও করে থাকেন। জি ফাইভে তার অভিনীত নতুন ওয়েব সিরিজ 'শরতে আজ' গত ২১ ফেব্রুয়ারি মুক্তি পায় যেটি রচনা ও প্রযোজনা করেছেন পরমব্রত নিজেই। লন্ডনে বসবাসরত বাংলাদেশি ও ভারতীয় বাঙ্গালিদের আত্মপরিচয় ও ধর্মীয় বিভক্তি এই ওয়েব সিরিজের মূল কাহিনী। এই জটিলতা, ভুল ধারণা ও বিভক্তির মধ্যে দিয়ে পথ খুঁজে নেওয়া এক বাংলাদেশি চরিত্রের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন পরমব্রত। 'শরতে আজ' নিয়ে পরমব্রত কথা বলেছেন ঢাকা ট্রিবিউনের সাদিয়া খালিদের সঙ্গে। 

শরতের গল্প মুক্তি পাচ্ছে বসন্তে। কেন?

মুক্তির তারিখটা আমার সিদ্ধান্ত ছিল না। আমি একটা গল্প বলতে চেয়েছি যেটির কাহিনীর পটভূমি দাঁড়িয়েছে শরতে। লন্ডনে শরৎ খুবই অন্যরকম। সেখানে অনেক বাঙ্গালি রয়েছেন। আমরা বাংলাদেশে যেমন শরৎ দেখি, লন্ডনের শরৎ তেমন নয়। গাছের পাতা তখন লাল হয়ে যায়, খুব বেশি ঠাণ্ডা থাকে না, এদিকে শীত চলে আসার সময়টাও তৈরি হতে থাকে। এরকম একটা সৌন্দর্য্যের পটভূমিতে আমি বাঙ্গালিদের একটি গল্প বলতে চেয়েছি। বাংলার বাইরে অনেক বেশি বাঙ্গালি রয়েছে এমন একটি শহরের কথা যদি বলা হয়, তাহলে সেটি লন্ডন। যদিও সেখানে যাওয়ার পর অনেকে সেখানে মিশে গিয়েছে তবুও তারা মূলত বিচ্ছিন্ন একা এক জনগোষ্ঠী। তাদের ভেতরকার রাজনীতি ও ভুল বোঝাবোঝির ব্যাপারগুলো উঠে এসেছে এই গল্পতে। 

সিরিজের 'ক্রিয়েটর' হিসেবে আপনাকে ক্রেডিট দেওয়া হয়েছে। এজন্য আপনাকে কতটা সম্পৃক্ত হতে হয়েছে সিরিজটির সঙ্গে?

যে সিরিজ চালায় আন্তর্জাতিকভাবে তার জন্য ক্রিয়েটর টার্মটি ব্যবহার করা হয়। এটি একটি সর্বোচ্চ পদ। এর সরাসরি কোনো অনুবাদ বাংলায় নেই। আমরা তাই এর বদলে 'সৃজনে' শব্দটি ব্যবহার করেছি। ক্রিয়েটরের জন্য কোনো নির্দিষ্ট সংখ্যক কাজ নেই। পরিচালক ছিলেন অরিত্র সেন। 

আপনি তাহলে শো'টির চিত্রনাট্য লিখেছেন ও প্রযোজনা করেছেন?

হ্যাঁ। চিত্রনাট্য আমার।

এই সিরিজে লন্ডনে হিন্দু-মুসলিমের মধ্যে কিছু দ্বন্দ্ব আমরা দেখতে পাই। এ বিষয়টি খোলাসা করবেন?

এটি আসলে হিন্দু-মুসলিম দ্বন্দ্ব নয়। যদিও দেখে ওরকমই মনে হতে পারে। গল্পটি যা তুলে ধরতে চেয়েছে তা হল ধর্মীয় বিভক্তির ঊর্ধ্বে আমাদের বাঙ্গালি পরিচয়। আমাদের সম্মিলিত ইতিহাস এই পরিচয় তৈরি করেছে। এটিই আমি এখানে দেখাতে চেয়েছি।

কিন্তু ঝামেলা পাকানো লোকজন সব জায়গাতেই আছে। একদিকে আমরা দেখতে পাই ইসলামী গোঁড়াপন্থীদের, অন্যদিকে বিভিন্ন ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে আসা বাঙ্গালিদের মধ্যে অদ্ভুত এক ঘৃণাবোধও কাজ করে। আমি এই ব্যাপারটি টের পাই এবং আমি এ নিয়ে কথা বলি। কিছু মানুষ আমার এই অবস্থানকে সমর্থন জানায়, কেউ কেউ আবার বিরোধীতাও করে। 

আমি খেয়াল করেছি পশ্চিমবঙ্গের বাঙ্গালিদের মধ্যে বাংলাদেশিদের প্রতি এক ধরণের বিদ্বেষ কাজ করে। অন্যদিকে ইসলামী গোঁড়াপন্থীরাও ধ্বংসাত্মক হয়ে উঠছে। আমাদের উপমহাদেশে আমরা এর উপস্থিতি দেখি এবং এর ফল পুরো বিশ্বকে ভোগ করতে হচ্ছে। 

লন্ডনের বাঙালিদের ইতিবাচক দিকের পাশাপাশি এই দুই ধরণের সংকটের চিত্রায়ন এই সিরিজে আমরা দেখিয়েছি। এই বাজে অবস্থা কাটিয়ে আমাদের দ্বৈত পরিচয়কে তুলে ধরাই এর লক্ষ্য। 

আপনি মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন ইংল্যান্ড থেকে। এটি কি আপনার গল্পের অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে?

হ্যাঁ, অবশ্যই। অরিত্র এবং আমি, আমাদের দু'জনেরই ইংল্যান্ডের সঙ্গে এক দীর্ঘ সম্পর্ক রয়েছে। আমরা দু'জনেই ইংল্যান্ড থেকে মাস্টার্স করেছি। ও আমার চেয়ে বয়সে একটু ছোট। আমরা সেখানকার সামাজিক কাঠামো, লোকজন, আবহাওয়া ও বহুজাতিক সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত। এটি গল্পের পটভূমি দাঁড় করাতে বড় ধরণের ভূমিকা রেখেছে। আমরা, ধরুন আমেরিকার ক্ষেত্রে একই রকম কাজ পারতাম না।

দুর্গা পূজায় সন্ত্রাসী হামলার এক ঘটনাকে কেন্দ্র করে 'শরতে আজ'র কাহিনী এগিয়েছে। এক্ষেত্রে আপনাকে কী চালিত করেছে?

আমি অযৌক্তিকভাবে সংকট দেখিয়ে নাটকীয়তা নষ্ট করে ফেলতে চাইনি। আমি বাঙ্গালিদের বাইরেও সংকট ছাড়িয়ে অন্য জনগোষ্ঠীকেও এর মধ্যে আনতে চাইনি। আমি বাঙালিদের মধ্যেই এটি রাখতে চেয়েছি। এজন্যই আমি এই উপলক্ষটি এনেছি। 

আপনি ২০১৭ সালে 'ভুবন মাঝি'তে অভিনয় করেছেন। শীঘ্রই কোনো বাংলাদেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন?

এই মার্চে একটি বাংলাদেশি সিনেমায় আমি অভিনয় করছি। এর পরিচালক শবনম ফেরদৌসী। এই সিনেমার নাম কী রাখা হয়েছে তা এখনও আমি জানি না। আমার অভিনীত সর্বশেষ বাংলাদেশি সিনেমা ছিল 'শনিবার বিকেল'। আমি অধীরভাবে এটির মুক্তির অপেক্ষায় আছি।

About

Popular Links