Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ল্যুভর মিউজিয়াম থেকে ‘মোনালিসা’ চুরির আদ্যোপান্ত!

যেখানে মোনালিসার এই পোর্ট্রেট ছিলো বেশিরভাগ মানুষের কাছে অজানা, একটি চুরির ঘটনাই এই চিত্রশিল্পকে ব্যাপক জনপ্রিয়তা এনে দেয়!

আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:০৬ পিএম

১৯১১ সালের ২০ আগস্ট ইতিহাসের অন্যতম একটি বড় চুরির ঘটনা ঘটে। তিনজন ব্যক্তি একটি ক্লোজেটের মধ্যে করে ল্যুভর মিউজিয়ামে প্রবেশ করে এবং ক্লোজেটের ভেতরই অপেক্ষা করে মিউজিয়াম বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত। মিউজিয়াম বন্ধ হবার সাথে সাথেই তারা এগিয়ে যায় তাদের লক্ষ্যের দিকে। দেওয়ালে ঝোলানো বিখ্যাত মোনালিসার শিল্পচিত্র। যদিও সেসময় মোনালিসার এত জনপ্রিয়তা ছিলো না!

২১ আগস্ট তিন চোর; ভিঞ্চেঞ্জো ল্যানসেলোটি, মাইকেল ল্যানসেলোটি ও ভিনচেনজো পেরুগিয়া ল্যুভরের প্রধান ফটক দিয়ে বেরিয়ে যায়। এসময় লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির অন্যতম মাস্টারপিস মোনালিসা তাদের চাদরের নিচে ছিলো! আশ্চর্যজনকভাবে তাদের কেউ খেয়াল করেনি এবং অনেক সময় পর চুরির বিষয়টি মানুষ জানতে পারে।

চুরির প্রায় ২৮ ঘণ্টা পর একজন ব্যক্তি গার্ডকে ফাঁকা দেওয়ালের দিকে দেখিয়ে জিজ্ঞেস করেন, "এখানে কি কিছু থাকার কথা নয়?"

এরপরই পুরো বিশ্বের মিডিয়ায় প্রথম পৃষ্ঠায় ছাপা হলো এই চুরির ঘটনা। ঘটা করে প্রকাশ পেলো নানা জায়গায়। কীভাবে চুরি হলো বা কারা চুরি করলো এই নিয়ে জল্পনা-কল্পনারও শেষ নেই। যেখানে মোনালিসার এই পোর্ট্রেট ছিলো বেশিরভাগ মানুষের অজানা, একটি চুরির ঘটনাই এই চিত্রশিল্পকে ব্যাপক জনপ্রিয় করে দেয়!

পরবর্তীতে, মোনালিসার হঠাৎ বেড়ে যাওয়া এই জনপ্রিয়তাই বাধা হয়ে দাঁড়ায় চোরদের কাছে। তারা কোথাও পাচার করতে পারছিলো না এই চিত্রশিল্প। শেষে মোনালিসা ২৮ মাসের জন্য স্থান পায় তাদের ট্রাংকের নিচে! এরইমধ্যে চলতে থাকে পুলিশের জেরা। পাবলো পিকাসোকে পর্যন্ত ডাকা হয় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। 

এসব যখন চলছে তখন চোর পেরুগিয়া এক কারবারির কাছে মোনালিসা বিক্রির চেষ্টা করে এবং এতেই সে ধরা পড়ে যায়। ব্যাস! এরপরই রহস্যের সকল জট খুলে নতুন জনপ্রিয়তায় ল্যুভর মিউজিয়ামে ফিরিয়ে আনা হয় মোনালিসাকে!

About

Popular Links