Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্মরণশক্তি বাড়ানোর সহজ উপায়

আমাদের মস্তিষ্কের ধারণক্ষমতা ২,৫৬০টি কম্পিউটার হার্ডডিস্কের সমান। এখন প্রশ্ন হতে পারে, মস্তিষ্কে এতো ধারণ ক্ষমতা থাকার পরেও কেন আমরা সবকিছু মনে রাখতে পারি না?

আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:২৫ পিএম

অনেকেই কোনো ঘটনা বা বিষয়বস্তু পুঙ্খানুপুঙ্খ মনে রাখতে পারেন। আবার অনেকের ক্ষেত্রে এমনটা সম্ভব হয় না। মাঝে মাঝে সহজ সহজ অথবা গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাও মনে থাকে না অনেকেরই। এসব ক্ষেত্রে অনেকে হীনমন্যতায় ভুগতে পারেন। আসলে বিষয়টি মোটেই মেধাশক্তি কম বা তেমন কিছু না।

মস্তিষ্কের গঠনে ভিন্নতা থাকার কারণে ব্যক্তিভেদে স্মরণশক্তিরও ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয়। কিছু সহজ কৌশল অবলম্বন করে স্মরণশক্তি বাড়ানো সম্ভব। চলুন জেনে নেওয়া যাক স্মরণশক্তি বাড়ানোর সহজ কিছু কৌশল সম্পর্কে-

এক গবেষণায় দেখা গেছে, আমাদের মস্তিষ্ক ২ দশমিক ৫ পেটাবাইট (১ পেটাবাইট=১০২৪ টেরাবাইট, ১ টেরাবাইট=১০২৪ গিগাবাইট) ডাটা বা তথ্য ধারণ করতে পারে। যা ২,৫৬০টি কম্পিউটার হার্ডডিস্কের ধারণক্ষমতার সমান। এখন প্রশ্ন হতে পারে, মস্তিষ্কে এতো ধারণ ক্ষমতা থাকার পরেও কেন আমরা সবকিছু মনে রাখতে পারি না? এমনটা হতে পারে স্মরণশক্তি কমে যাওয়ার কারণে।

ভুলে যাওয়ার কারণ

স্মরণশক্তি বাড়ানোর উপায় জানার আগে আমাদের জানা প্রয়োজন স্মরণশক্তি কমে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে-

- কম সময় ধরে ঘুমের অভ্যাস স্মরণশক্তিকে দুর্বল করে দেয়

- ডিপ্রেশন বা হতাশা

- অতিরিক্ত মিষ্টি খাওয়া

- অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস

- একাকীত্ব

- উচ্চ রক্তচাপ

- অ্যালকোহল ইত্যাদি।

স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর উপায়

দীর্ঘদিন ধরে একাধিক গবেষণার পর বিজ্ঞানীরা বের করতে চেয়েছেন স্মরণশক্তি বাড়ানোর উপায়। খুঁজেও পেয়েছেন কিছু পদ্ধতি। আসুন তাহলে জেনে নিই সেই পদ্ধতিগুলো কী কী: 

মেডিটেশন 

একাগ্র মনের কোনো চিন্তার নাম ‘‘মেডিটেশন’’। এটি শুধু মনকেই কেন্দ্রীভূত করে জাগিয়ে তোলে না, শরীরেরও উপকার করে। আমরা জানি, মানুষের শারীরিক শক্তির অন্যতম উৎস হলো মন। মন যখন শান্ত থাকে, মানুষ তখন তার মস্তিষ্ককে সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে পারে। আর মনকে স্থির করার সফলতম পদ্ধতি হলো মেডিটেশন (meditation)।

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, মেডিটেশন স্মরণশক্তি এবং মনোযোগ বাড়াতে সাহায্য করে। যদি এমনটা হয় যে আপনি কোনো কিছু মনে রাখতে পারছেন না, তাহলে মেডিটেশন আপনাকে সেই অবস্থা থেকে বের হয়ে আসতে সহায়তা করবে। বিশ্বখ্যাত প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাপলের প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবস নিয়মিত মেডিটেশন চর্চা করতেন। তিনি ভারতে গিয়েছিলেন আধ্যাত্মিক জীবনের খোঁজে এবং সেখান থেকেই তার মেডিটেশন চর্চার শুরু। ধ্যানের মাধ্যমে জবস তার নিজের মানসিক চিন্তাধারাকে একটি নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে চালনা করতে শিখেছিলেন। যা তার জীবনযাত্রা পরিবর্তনে মূল ভূমিকা পালন করে।

কল্পনা

ব্রিটিশ লেখক ডমিনিকো ও’ব্রায়েন তার বই “ইউ ক্যান হ্যাভ অ্যান অ্যামেজিং মেমোরি”-তে বলেছেন, ইম্যাজিনেশন বা কল্পনা এবং মেমোরি পরস্পর সম্পর্কযুক্ত। আপনাকে জীবনের একটি ঘটনার বর্ণনা করতে বলা হলে প্রথমে আপনি সেটা কল্পনা করবেন তারপর বলবেন। কল্পনা করতে পারলেই কেবল বর্ণনা করা সম্ভব। তাই নতুন কোনো কিছু পড়ার সময় বিষয়টিকে নিজের মতো করে কল্পনা করার চেষ্টা করুন। কোনো বক্তৃতা বা প্রেজেন্টেশন মুখস্থ করতে হলেও সেটা হেঁটে হেঁটে মুখস্থ করার চেষ্টা করুন।  এতে করে ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা কমে আসে।

About

Popular Links