Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

দেরি হয়ে যাওয়ার আগেই নিন শিশুর চোখের যত্ন

সারাদিন বাড়িতে বসে থাকার ফলে স্বাভাবিকভাবেই বেড়ে যাচ্ছে বাচ্চাদের স্ক্রিন টাইম। তাছাড়া, স্কুলের ক্লাসও করতে হচ্ছে অনলাইনে

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:১৫ পিএম

কোভিড-১৯ এর ফলে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় প্রায় সব বাড়িতেই অনলাইন ক্লাসের সাহায্যে পড়াশোনা চলছে। টিনএজারদের তো বটেই, ছোট বাচ্চাদেরও গড় স্ক্রিন টাইম অনেকটাই বাড়ছে এতে। শুধু তো ই-ক্লাস নয়, একইসঙ্গে প্রাইভেট কোচিং, ই-বুক বা ভিডিও গেম খেলতেও চোখ আটকে যাচ্ছে সেই স্ক্রিনেই। 

দীর্ঘ অনলাইন ক্লাসের পর কেউ অভিযোগ করছে চোখজ্বালার, তো কারও চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। আবার কেউ দিনশেষে ভুগছে ডবল ভিশন সিনড্রোমে! খুব বেশি ক্ষতি হয়ে যাওয়ার আগেই তাই নিন শিশুর চোখের যত্ন।

যা করবেন

১. যতই পড়ার চাপ থাকুক, স্ক্রিন টাইম বেঁধে দিন। অনলাইন ক্লাস বেশিক্ষণ চললে বাকি সময়টায় অন্য কিছু করতে বলুন।

২. যখন আপনার সন্তান খুব মনোযোগ দিয়ে কিছু পড়ছে বা দেখছে, তখন চোখের পাতা ফেলতে তারা প্রায়ই ভুলে যায়। একটানা ৩০ মিনিট অনলাইন ক্লাস করার পরে বাচ্চাকে দূরের কোনও বস্তুর দিকে তাকাতে বলুন। কাছের বস্তু দেখার জন্য চোখের যে মাংসপেশিগুলো ব্যবহার হয়, এরফলে সেগুলো বিশ্রাম পাবে। ফলে আই স্ট্রেন কমবে, চোখের ভ্রুতে ব্যথাও করবে না।

৩. ফোন বা কম্পিউটার ব্যবহার করার সময় ২০-২০-২০ রুল মেনে চলতে শেখান বাচ্চাকে। এই নিয়মে স্ক্রিনের দিকে ২০ মিনিট তাকিয়ে থাকার পর ২০ সেকেন্ডের জন্য ২০ ফিট দূরের কোনও কিছুর উপর ফোকাস করতে হবে। দরকার হলে টাইমার সেট করে রাখুন ওর জন্য।

৪. স্ক্রিনের পজিশন এমন হবে যাতে বাচ্চারা সেটার দিকে কিছুটা মাথা নামিয়ে তাকায়, মাথা তুলে যেন না দেখতে হয়। স্ক্রিনের লাইট অ্যাডজাস্ট করুন যাতে গ্লেয়ার না হয়।

৫. বাড়ির ছাদ বা বাগান থাকলে দিনের আলোয় সেখানে কিছুটা সময় কাটাতে পারে ওরা।

৬. খাওয়ার টেবিল ও ঘুমনোর সময়টাকে অন্তত বাচ্চাদের জন্য সম্পূর্ণ স্ক্রিন-ফ্রি জোন করে দিন।

৭. তবে বাচ্চারা তো আপনাদের দেখেই শিখবে, তাই নিজেও চেষ্টা করুন স্ক্রিন টাইম কমাতে।

৮. যদি আপনার সন্তান ডবল ভিশন-এর (কাছে ও দূরে) কথা বলে, তাহলে দ্রুতই একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শ করুন।

About

Popular Links