Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন একটি বৈষম্যহীন সমাজ’

বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘সরকারি কর্মচারীদের তাদের মানসিকতা পরিবর্তন করা দরকার, কারণ তারা শাসক নয় বরং চাকর’

আপডেট : ১৫ আগস্ট ২০২১, ০৮:০৮ এএম

১৯৭৫ সালে আজকের এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন দেশের প্রথম ও দ্বিতীয় পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড. একিউএম বজলুল করিম এবং মহিউদ্দিন আহমেদ।

পিএসসির ইতিহাস অনুযায়ী, দুটি পাবলিক সার্ভিস কমিশন প্রাথমিকভাবে ১৯৭২ সালের মে মাসে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল রাষ্ট্রপতির আদেশ ৩৪-এর বিধানের অধীনে। পরবর্তীতে ১৯৭৭ সালের নভেম্বরে, বাংলাদেশ সরকার বিদ্যমান দুটি কমিশনের জায়গায় একটি কমিশন প্রতিষ্ঠার জন্য আরেকটি অধ্যাদেশ জারি করে, যা ১৯৭৭ সালের ২২ ডিসেম্বর অস্তিত্ব লাভ করে।

এই একক কমিশনকে বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন (বিপিএসসি) হিসেবে মনোনীত করা হয়েছিল।

১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের মৌলিক কাঠামো প্রণয়ন করেন। তিনি একটি শ্রেণিহীন সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন, তাই তিনি বিসিএস অফিসার হিসেবে পরিচিত কর্মকর্তাদের সুরক্ষা সুবিধা তুলে নেন।

১৯৭২ সালের ৪ নভেম্বর সংসদে সংবিধান বিল নিয়ে বক্তৃতা দেওয়ার সময় বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, “কেউ কেউ বলছেন সরকারি কর্মচারীদের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে। তাদের উচিত অন্যান্য দেশের সংবিধান পড়া। সরকারি কর্মকর্তারা ভিন্ন শ্রেণির নন। তারা আমাদের ভাই, তারা আমাদের বাপ। তারা আলাদা শ্রেণির নয়।”

বঙ্গবন্ধু আরও বলেছিলেন, “ব্রিটিশ শাসনামলে আইসিএস এবং আইপিএস কর্মকর্তারা সুরক্ষা সুবিধা পেয়েছিলেন। তারা পাকিস্তান শাসনামলেও একই সুরক্ষা পেয়েছেন। আমি কেবল সেই সুরক্ষা ইস্যুতে আঘাত করেছি।”

শেখ হাসিনা এবং বেবী মওদুদ সম্পাদিত “শেখ মুজিব ইন বাংলাদেশ অ্যাসেম্বলি” (১৯৭২-১৯৭৫) গ্রন্থ অনুসারে, বঙ্গবন্ধু আরও বলেন, “কোনো শ্রেণিই অধিক প্রভাবশালী হবে না, কারণ শ্রেণিহীন সমাজ গঠনই আমাদের লক্ষ্য। আমরা একটি শ্রেণিহীন সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে চাই যেখানে সবাই সমান।”

“সরকারি কর্মচারীদের তাদের মানসিকতা পরিবর্তন করা দরকার, কারণ তারা শাসক নয় বরং চাকর” মন্তব্য করে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, “কিছু লোক আমার কাছে এসে সুরক্ষা চেয়েছিল। আমি তাদের বলেছিলাম, আপনার কাছ থেকেই জনগণের সুরক্ষা দরকার।”

জাতির পিতা তার সংসদীয় ভাষণে যোগ করেন, “সরকারি কর্মকর্তাদের অন্য সকলের সমান অধিকার। তাদের বেতন কৃষক এবং শ্রমিকদের দেওয়া কর থেকে এসেছে, তাই তাদের সকলের সমান অধিকার থাকা উচিত।”

বঙ্গবন্ধু আমলাদের জন্য অসংখ্য গ্রেড কমিয়ে মাত্র ৭ গ্রেডে নিয়ে এসেছিলেন। তিনি এই সত্যটি তুলে ধরেছিলেন, অনেক আমলাই অলস বসে ছিল তাই তাদের মনোবিজ্ঞানের সেই অংশটিও পরিবর্তন করা অপরিহার্য ছিল।

About

Popular Links