Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিয়ের পরে এড়িয়ে চলবেন যেসব বদভ্যাস

আসুন জেনে নিই তেমন কিছু অভ্যাস সম্পর্কে

আপডেট : ০৮ জানুয়ারি ২০২২, ০৯:০০ পিএম

নিজের অজান্তেই আমাদের ভেতরে গড়ে ওঠে অনেক বদভ্যাস। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এসব ছোটখাটো বদভ্যাস এড়াতে আমরা খুব একটা গুরত্ব দিই না। বিয়ের আগে এসব অভ্যাসের তেমন নেতিবাচক প্রভাব না থাকলেও বিয়ের পরে এর প্রভাবে হতে পারে দাম্পত্য অশান্তি।

লাইফস্টাইল বিষয়ক অনলাইন পোর্টাল “ফ্যামিলি লাইফ” অবলম্বনে এমন কিছু বিষয় তুলে ধরেছে দৈনিক সংবাদপত্র প্রথম আলো। আসুন জেনে নিই তেমন কিছু অভ্যাস সম্পর্কে।

১. বিয়ের আগে আমার বাসায় ফিরে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দরজা খোলার পরই সোজা নিজের ঘরে চলে যাই। কিন্তু বিয়ের পর বাসার দরজা যদি স্ত্রী খুলে দেন, তাহলে শুরুতেই তাকে কুশলাদি জিজ্ঞাসা করতে হবে। একটা মিষ্টিহাসি দিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরলেও নিজেদের মধ্যে হৃদ্যতা বাড়বে।

২. কথা বলার সময় মুখের দিকে না তাকিয়ে কথা বলাটাও এক ধরনের বদাভ্যাস। তবে দিনের পর দিন সঙ্গীর মুখের দিকে না তাকিয়ে কথা বলে গেলে সে বিরক্ত হবে। তাই, কথা বলার সময় স্ত্রী বা স্বামীর দিকে তাকিয়ে কথা বলাটা জরুরি। এতে সঙ্গী মনে করবে, আপনি তাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন, এবং দুজনের মধ্যে ভালোবাসাও বাড়বে।

৩. উদ্‌যাপনের অভ্যাস না থাকলে বিয়ের পর বিপদ বাড়তে পারে। জীবনের ছোট-বড় যেকোনো সাফল্য বা বিশেষ দিন উদ্‌যাপনের অভ্যাস দাম্পত্য জীবন সুখের হতে সাহায্য করবে। তাই জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকী, শুভ সংবাদ, সাফল্য, পদোন্নতির মতো বিষয়গুলোতে একসঙ্গে উদ্‌যাপনের অভ্যাস করুন।

৪. অন্যের কাছে সঙ্গী সম্পর্কে নেতিবাচক কথা বলার বদাভ্যাস বিচ্ছেদের কারণ হতে পারে। সঙ্গীকে নিয়ে যদি কারও সঙ্গে আলোচনা করতেই হয়, তবে সেখানে তার সম্পর্কে অসম্মানজনক শব্দ ব্যবহার করা যাবে না।

৫. অন্যদের সামনে বিশেষ করে সন্তানদের সামনে সঙ্গীকে অসম্মান করা যাবে না। মনে রাখতে হবে, সন্তানদের সামনে মা–বাবা একজন আরেকজনকে অসম্মান করলে সেই পরিবারের বন্ধন দুর্বল হতে পারে।

৬. বিয়ের পর স্বামী-স্ত্রী একজন আরেকজনকে দিনের পর দিন না ছুঁয়ে থাকলে দাম্পত্যের জন্য সেটা অস্বাস্থ্যকর। তাই সঙ্গীকে স্পর্শ করা জরুরি। একটু খুনসুটি, দুষ্টুমি, কথা বলতে বলতে একটু হাত ধরা দাম্পত্য জীবন সুখের করে।

৭. কথা বলার সময় অন্যকে থামিয়ে দেওয়ার অভ্যাস খুব খারাপ। সঙ্গী যখন কথা বলে, তখন মাঝপথে তাকে থামিয়ে দেওয়া যাবে না। তাকে পুরো কথা শেষ করতে দিতে হবে। সঙ্গীর কথা শোনার অভ্যাস করতে হবে।

About

Popular Links