Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বাইডেনের বিড়াল ‘উইলো’ কথন

মূলত বাইডেন পত্নী জিলের বেশি মনে ধরেছে ‘উইলো’কে

আপডেট : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৬:৪৬ পিএম

চিরবৈরীতা যেন ইঁদুর-বিড়ালের সম্পর্কে। থামে এদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। ডিজনির টম অ্যান্ড জেরিতে যা প্রকাশিত রম্যমাত্রায়। অনেক প্রতীকী বিষয়ও যেন বিদ্যমান এর মাঝে। কখনও তা অব্যক্ত, আবার কখনও প্রকাশিত।

আজ ইঁদুর-বিড়ালের দ্বন্দ্বে না গিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বিড়াল “উইলো”-কে নিয়ে কিছু কথন চলুক। হোয়াইট হাউজের “পেট”রাও আলোচনার বাইরে থাকে না। জুনিয়র বুশ আর লরা বুশ বিড়াল পছন্দ করতেন। সম্প্রতি বাইডেন ও তার স্ত্রী ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেনের খুব মনে ধরেছে এই “উইলো”-কে।

এই হোয়াইট হাউস সদস্য উইলোর জন্ম পশ্চিম পেনসিলভ্যানিয়ার এক ফার্মে। বুনো বিড়াল নয় সে। যথেষ্ট আদব-কেতা জানা আছে তার। কম লোমের শরীরে খুব আদর প্রিয় এই উইলো। এবার তিন বছরে পা ফেলেছে সে। ইতোমধ্যে হোয়াইট হাউস নিবাসী হিসেবে বিশ্ব সংবাদমাধ্যমের আলোচনায়ও এসেছে এই “বাঘের মাসি”।  

মূলত বাইডেন পত্নী জিলের বেশি মনে ধরেছে “উইলো”-কে। তার আগ্রহেই এই বিড়ালের বর্তমান ঠিকানা হোয়াইট হাউস। বাইডেন প্রিয় পেট ছিল জার্মান শেফার্ড “মেজর”। নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথগ্রহণের পর “মেজর”ও হোয়াইট হাউস নিবাসী হয়। তবে এর বদমেজাজ এবং একে-ওকে কামড়ানোর ঘটনার পর বাইডেন পরিবার তাকে ত্যাগ করে। “মেজর” এখন আছে ডেলাওয়্যারে বাইডেনের পারিবারিক বন্ধুদের কাছে।

“মেজর” এর ভোগান্তি “উইলো” দেবে না বলেই মনে করছেন বাইডেন পরিবার। অল্প দিনেই ইউএস ফার্স্ট লেডি ও প্রেসিডেন্ট বাইডেনের প্রিয় হয়ে উঠেছে সে। বাইডেনের বেড়ে ওঠার শহর পেনসিলভ্যানিয়ার উইলো গ্রোভ শহরের নামে এর নামকরণ করা হয়েছে।

উইলো প্রথমে বড় হয় পেনসিলভ্যানিয়ার লরেন্স কাউন্টির কৃষক রিক টেলজের কাছে। পরে মার্কিন অধিপতি ফোনে জানান তাকে “উইলো”-কে হোয়াইট হাউসে নেওয়ার বাসনা। সেই থেকে উইলো বিশ্ব রাজনীতির ক্ষমতাকেন্দ্র ওয়াশিংটন ডিসির সাদা বাড়িতে।    

“উইলো”র ভরণপোষণে কত ডলার যাচ্ছে এ হিসেবে অবশ্য জানা যায় না। বিশ্বকর্তার বিড়ালের তথ্যের নথিও যে অপ্রকাশ্য থাকবে তা বলাই বাহুল্য। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতিতে যে একবার ইঁদুর হিসেবে সনাক্ত হয় তার নাভিশ্বাস উঠতে বাধ্য। উইলো না হয় ফার্স্ট লেডির বাঁধা হাতেই শান্ত-শালীনভাবে শোভা পাবে। কিন্তু উদ্ধত বিশ্ব পরাশক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নামক বিড়ালের গলায় আদৌ ঘণ্টা পরানো সম্ভব কি-না এর উত্তর একমাত্র ভবিষ্যতই জানে।


লেখক ও ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক হাসান শাওনের জন্ম, বেড়ে ওঠা রাজধানীর মিরপুরে। পড়াশোনা করেছেন মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বাঙলা কলেজ, বাংলাদেশ সিনেমা ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউটে। ২০০৫ সাল থেকে তিনি লেখালেখি ও সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত। কাজ করেছেন সমকাল, বণিক বার্তা, ক্যানভাস ম্যাগাজিন ও আজকের পত্রিকায়।

২০২০ সালের ১৩ নভেম্বর হাসান শাওনের প্রথম বই “হুমায়ূনকে নিয়ে” প্রকাশিত হয়।



About

Popular Links