Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অক্ষরের জাদুকর শহীদুল জহির স্মরণে

যখন একাত্তরের গণহত্যাকারীরা দেশের রাজনীতিতে ফেরত আসছে সামরিক শাসকের হাত ধরে, তখন উপন্যাসে দালাল মোকাবিলার মন্ত্র গুঁজে দেন এই লেখক

আপডেট : ২৩ মার্চ ২০২২, ০৩:১৭ পিএম

অক্ষর দিয়ে জাদু সৃষ্টি ক’জন পারেন? আমাদের বাংলা ভাষায় তা সম্ভব করেছেন একজন শহীদুল জহির। ৫৪ বছরের জীবনে মাত্র তিনটি উপন্যাস, তিনটি গল্পগ্রন্থ আর দুইটি সংকলনে তিনি প্রকাশিত ছিলেন। এরপর অনন্তলোকে উড়াল তার ২০০৮ সালের আজকের দিনে। এ প্রহরে তাই শহীদুল জহির ভেসে উঠবেন তার লেখা কবিতার মতোই।

“... তবুও আমরা আরও একবার সমবেত হলাম,
আর আমাদের সময়ের মাধ্যমে একটি কুঁড়ি ফুলে পরিণত হয়,
একটি রূপালি রূপচাঁদা নোনা পানিতে ভাসে ... ”

করোটির ভেতর কল্পনা থাকে। গল্পের ভেতরে থাকে গল্প। তেমনি শহরের ভেতরও শহর থাকে। শহীদুল জহির এর প্রয়োগ দেখিছেন তার স্মৃতির পুরনো শহরের নারিন্দা, ভূতের গলি মহল্লাকে ঘিরে। এর বাসিন্দা মানুষ থেকে নেড়ি কুকুর পর্যন্ত তার জাদুকরী বয়ানে অনন্য।

শহীদুল জহিরের জাদু আবার ভিন্ন ধারার। পাঠককে বাস্তবতা ভুলিয়ে দেন না তিনি। বরং তার অসামান্য সাহিত্যে হুঁশ ফেরে মানুষের। যখন একাত্তরের গণহত্যাকারীরা দেশের রাজনীতিতে ফেরত আসছে সামরিক শাসকের হাত ধরে, তখন উপন্যাসে দালাল মোকাবিলার মন্ত্র গুঁজে দেন এই লেখক।

একই রক্ত শরীরে। তবু ধর্মের নামে বোধকরি সবচেয়ে বেশি রক্ত ঝরেছে আমাদের জনপদে। সমাজের "কাঁটা" হয়ে থাকা এ মিথ্যা ভেদকে উপড়ে ফেলেতে চেয়েছেন তিনি সাহিত্য দিয়ে।

পেশাগত জীবনে সরকারের ঊর্ধ্বতন আমলা ছিলেন মোহাম্মদ শহীদুল হক কেতাবী নামের নামের এ লেখক। কিন্তু রাষ্ট্রের ভ্রষ্ট নিপীড়ক চরিত্র তার মতো গল্প দিয়ে কেউ বোঝাতে পারেননি। বাংলা সাহিত্যে "শহীদুল জহিরীয় ধারা" নামে অভূতপূর্ব প্রবণতার স্রষ্টা এ লেখক।

সামনের দিনে সাহিত্য ও চলচ্চিত্রের অনাগত উত্তরসূরীদের এ পথে হাঁটতে হবে। তাদের তল্লাশ করতে হবে "আগারগাঁও কলোনিতে নয়নতারা ফুল কেন নেই" এর মতো বহু প্রশ্ন।

শহীদুল জহিরের জন্ম ১৯৫৩ সালের ১১ সেপ্টেম্বর। পুরনো শহরের নারিন্দার ৩৬ ভূতের গলিতে (ভজহরি সাহা স্ট্রিট) তার আর্বিভাব। তার পৈতৃক ভিটা অবশ্য সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার হাশিল গ্রামে। বাবা এ কে নুরুল হক ছিলেন সরকারি কর্মকর্তা। মা জাহানারা খাতুন গৃহিণী।  

সত্তরের দশকের মাঝামাঝি সময়ে সাহিত্য আঙিনায় শহীদুল জহিরের আগমন। ১৯৭৪ সালে তার গল্প “ভালবাসা” প্রথম প্রকাশিত হয়। ১৯৮৫ সালে তার প্রথম গল্পগ্রন্থ “পারাপার” বের হয়। শহীদুল জহির যে সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, সৈয়দ শামসুল হক, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস দ্বারা প্রভাবিত তা তিনি অস্বীকার করেননি। তবে পথ পরিক্রমায় সাহিত্যে তিনি অর্জন করেছেন স্বীয় ধারা।

‘‘বাংলার মার্কেজ’’ নামে অভিহিত হন এই লেখক অনেকের দ্বারা। তার সাহিত্য নিয়ে দৃশ্য মাধ্যম ও মঞ্চেও কাজ হয়েছে। প্রয়াণের পর তার সৃষ্টি অনুদিত হচ্ছে একাধিক ভাষায়। প্রয়াণ দিবসে এই মহানের প্রতি অনন্ত শ্রদ্ধা।

About

Popular Links