Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ম্যাক্সিম গোর্কির প্রয়াণ দিবস আজ

বাস্তবমুখী সৃষ্টিকর্মের জন্য ম্যাকিম গোর্কি’র কাছে আশ্রয় অনিবার্য

আপডেট : ১৮ জুন ২০২২, ১০:৫৮ এএম

আমরা মধ্যবিত্তরা যাকে বলি "ফকিন্নি", তেমনই এক পরিবারে তার জন্ম। খুব ছোটবেলায় বাবা, মা হারিয়ে অনাথ। আশ্রয় এরপর দাদীর কাছে। সে দাদীরও দিন চলে না অনটনে। স্কুলে পড়া তখন বিলাস। পড়া শেষ হয়না। নিজে নিজে শিখে হয়েছে হয়েছেন স্বশিক্ষিত। পায়ে হেঁটে দেশ ভ্রমণ করেছেন। কোনো ধরনের ডিগ্রিহীন এ ব্যক্তিত্বের ছিল শুধু কাণ্ডজ্ঞান আর সাহস। অপলক মানুষ আর প্রকৃতি দেখেছেন। পরিণত বয়স এসব নিয়েই লেখা। অকল্পনীয় প্রভাবধারী তার সাহিত্য। পাঁচবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন এ মহান।

বিশ্বসাহিত্যের এই অজর লেখকের নাম ম্যাক্সিম গোর্কি। ১৯৩৬ সালের আজকের দিন ১৮ জুন তার প্রয়াণ দিবস। অনন্ত শ্রদ্ধা তার প্রতি!

আলেক্সিয়েই ম্যাক্সিমভিচ পেশকভ তার পারিবারিক নাম। ম্যাক্সিম তার পিতার পদবী। আর রুশ ভাষায় “গোর্কি” শব্দের অর্থ তিক্ত বা তেতো। তার তিক্ত বিষমাখা সাহিত্যে পচন ধরে রাশিয়ার জুলুমবাজ জারতন্ত্রের কাঠামোতে। গোর্কির সাহিত্য ব্যাপক মাত্রায় আলোড়ন তোলে ১৯১৭ সালের বলশেভিক বিপ্লবকালে। লেনিনের সঙ্গে দারুণ সখ্যতা ছিল তার। গোর্কির রুম একপর্যায়ে হয়ে ওঠে বিপ্লবীদের নিবাস।

জীবন সংগ্রাম কতটা নির্মম তা প্রামাণ্য ম্যাক্সিম গোর্কির জীবন ও সাহিত্যে। প্রচণ্ড হতাশায় কিশোর বেলায় তিনি আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। এই মানুষটিরই আবার জীবনে ফেরার উড়াল আশ্চর্য। সমাজের নিচুতলার মানুষের সঙ্গে মিশেছেন। তার সাহিত্যও তাদের নিয়ে খুব সরল ভাষায়।

গোর্কি বলতেন, “আমার জীবনে সঞ্চিত মালমসলাকেই মুখ্যত কাজে লাগাই আমি সাহিত্যে।” রাজনৈতিক রূপান্তরে বিশ্বাসী হলে দালাল দলবাজদের কাতারে গোর্কি’র অবস্থান নয়। সমাজতন্ত্রের নামে পার্টির কর্তৃত্ববাদ ও ভিন্নমত দমনের তীব্র সমালোচক ছিলেন তিনি। লেনিনের মৃত্যুর পর দেশ ছাড়তে হয় তাকে। তার মৃত্যু নিয়েও গুঞ্জন আছে। অনেকে মনে করেন, সত্যকথক গোর্কিকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয়েছে।    

কিন্তু প্রয়াণে গোর্কি শেষ হন না। তিনি ফিরে ফিরে আসেন তার “মা”, “আমার ছেলেবেলা”, “পৃথিবীর পথে”, “পৃথিবীর পাঠশালা” মতো সাহিত্যের জন্য। কাণ্ডজ্ঞান আর বাস্তবমুখী সৃষ্টিকর্মের জন্য ম্যাকিম গোর্কি’র কাছে আশ্রয় অনিবার্য।

About

Popular Links