• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

এই গরমেই উধাও সুমেরু মহাসাগরের এক-তৃতীয়াংশ বরফ!

  • প্রকাশিত ০৭:৩০ রাত সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯
সুমেরু
সুমেরু মহাসাগরের উপরের বরফ স্তরে ভয়াবহ ফাটল। ছবি: সংগৃহীত

এতদিন গরমকাল আর বসন্তে গলত মহাসাগরের ওপরে ভেসে বেড়ানো বরফের স্তর। এখন ভরা শীতেও আর্কটিক মহাসাগরের ওপরের বরফের স্তর দ্রুত পাতলা হয়ে যাচ্ছে

হাড়জমানো ঠাণ্ডার এলাকা সুমেরু। তবু এবছরের গ্রীষ্মে আর্কটিক (সুমেরু) মহাসাগরের ওপরে ভাসা বরফের সাম্রাজ্য যেভাবে আকারে, আয়তনে ছোট হয়ে গিয়েছে, তা রীতিমত চমকে দিয়েছে বিজ্ঞানীদের।

গলতে গলতে আর্কটিকের জলের ওপরে থাকা বরফের স্তরের সাম্রাজ্যের চৌহদ্দিটা কমে পৌঁছেছে ১৬ লক্ষ বর্গমাইল বা ৪১ লক্ষ ৫০ হাজার বর্গ কিলোমিটারে। গত ১৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। যা সুমেরু মহাসাগরের ওপরে থাকা বরফের স্তরের এক-তৃতীয়াংশ। ৪০ বছরে (সতের দশকের শেষ থেকে) দ্বিতীয় সর্বনিম্ন। খবর আনন্দবাজারের।

শীতেও আগের মতো জমছে না আর্কটিক মহাসাগরের ওপরে থাকা বরফের স্তর। এতদিন গরমকাল আর বসন্তে গলত মহাসাগরের ওপরে ভেসে বেড়ানো বরফের স্তর। এখন ভরা শীতেও আর্কটিক মহাসাগরের ওপরের বরফের স্তর দ্রুত পাতলা হয়ে যাচ্ছে। সুমেরুর ভয় পাওয়ানো শীতও আর্কটিকের ওপরের জলস্তরকে আর জমিয়ে দিয়ে বরফ করতে পারছে না!

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই গরমে গলতে গলতে আর্কটিক মহাসাগরের পানির ওপরে থাকা বরফের স্তরের সাম্রাজ্যের চৌহদ্দিটা কমে পৌঁছেছিল ১৬ লক্ষ বর্গ মাইল বা ৪১ লক্ষ ৫০ হাজার বর্গ কিলোমিটারে। গত ৪০ বছরে (সাতের দশকের শেষাশেষি থেকে) দ্বিতীয় সর্বনিম্ন। সবচেয়ে বেশি কমেছিল ২০১২-তে।

এছাড়াও, সুমেরু মহাসাগরের ওপরের বরফস্তরে দেখা দিয়েছে ভয়াবহ ফাটল। যারফলে খুব দ্রুত বদলে যাচ্ছে ওই এলাকার যাবতীয় বাস্তুতন্ত্র। বদলে যাচ্ছে আশপাশে থাকা অন্য সাগর ও মহাসাগরগুলির গতিবিধি, চালচলনও।