• বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:০৮ সকাল

এবার প্লাস্টিক থেকে তৈরি হবে সোনা!

  • প্রকাশিত ১০:১১ রাত জানুয়ারী ২২, ২০২০
সোনা
স্বর্ণ। রাজীব ধর/ ঢাকা ট্রিবিউন

আপনার হাতে থাকা প্লাস্টিকের মাধ্যমে তৈরি হতে পারে সোনা, তাও ১৮ ক্যারাটের! অবাক করে দেওয়ার মতো ঘটনা হলেও, এটাই সত্যি

প্লাস্টিক এমন বস্তু যা কোনও সিন্থেটিক বা আধা-সিন্থেটিক জৈব যৌগ দ্বারা তৈরি। নমনীয়তার জন্য এটিকে গলিয়ে শক্ত জিনিসের মধ্যে ঢালা যায়। কম খরচ, সহজ উৎপাদনযোগ্যতা, বহুমুখিতা, পানির সাথে সংবেদনহীনতা ইত্যাদি কারণে প্লাস্টিক কাগজের ক্লিপ থেকে মহাকাশযানের বিভিন্ন ধরনের বহুমুখী পণ্যে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

আর পরিবেশে প্লাস্টিকের ফলে যেসব দূষণ ঘটছে তার কথা জানেন না এমন কেউ নেই বললেই চলে। তবে প্লাস্টিক ছাড়া আমাদের জীবন অচল হয়ে পড়ে এই কথাও কারও জানতে বাকি নেই। যারফলে বহুদেশের সরকারের পক্ষ থেকে বহুবার প্লাস্টিক ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও এমন বহু মানুষ আছেন যারা বহু চেষ্টা করেও এই সিদ্ধান্তে অটল থাকতে পারেন না। 

প্লাস্টিকের বহু ব্যবহার থাকলেও এবার আপনার হাতে থাকা প্লাস্টিকের মাধ্যমে তৈরি হতে পারে সোনা, তাও ১৮ ক্যারাটের! অবাক করে দেওয়ার মতো ঘটনা হলেও এটাই সত্যি।

সম্প্রতি সুইস বিজ্ঞানীরা প্লাস্টিক ম্যাট্রিক্সের মিশ্রণ ব্যবহার করে ১৮ ক্যারেটের সোনা তৈরি করেছেন বলে দাবি করেছেন। সুইজারল্যান্ডের ইটিএইচ জুরিখ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী রাফায়েল মেজেঙ্গা “সায়েন্স” পত্রিকায় প্রকাশিত এক জার্নালে, নতুন সোনার ওজন প্রচলিত ১৮ ক্যারেট সোনার চেয়ে প্রায় দশগুণ কম বলে জানিয়েছেন।

তিনি জানান, চতুর্থাংশ সোনার সঙ্গে এক-চতুর্থাংশ তামা মেশানো থাকে। তাতে প্রতি ঘনসেন্টিমিটার সোনার ওজন হয় ১৫ গ্রাম। সেখানে প্লাস্টিক থেকে তৈরি সোনার ওজন প্রতি ঘনসেন্টিমিটারে মাত্র ৭ গ্রাম। হালকা হলেও এটি একদম খাঁটি ১৮ ক্যারেটের সোনা। খনিজ সোনার মতোই এর ঔজ্জ্বল্য। পালিশ করাও তুলনামূলক সহজ।

তিনি আরো জানান, এটি তৈরিতে প্রোটিন ফাইবার ও পলিমার ল্যাটেক্স ব্যবহার করা হয়েছে। প্রথমে সোনার ন্যানোক্রিস্টালের পাতলা একটি ডিস্ক রেখে পানির মধ্যে দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়, তারপরে অ্যালকোহলের মধ্যদিয়ে নিয়ে তৈরি করা হয় একটি জেল। সেই জেলকে উচ্চ চাপের কার্বন-ডাই অক্সাইড গ্যাসের মধ্যে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে এই নতুন সোনা।

যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক গবেষণা অনুসারে, পৃথিবীতে প্রায় ৯.২ বিলিয়ন টন প্লাস্টিক আবর্জনা জমে আছে। আর বিশ্বের বর্তমান জনসংখ্যা প্রায় ৭.৬ বিলিয়ন। অর্থাৎ, প্রতিটি মানুষের ভাগে প্রায় ১.২ টন করে প্লাস্টিক আবর্জনা রয়েছে। 

এইসব প্লাস্টিক আবর্জনাকে যদি এভাবে সোনায় পাল্টে ফেলা যায়, তাহলে কী হতে পারে ভেবে দেখেছেন!