• মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০২ রাত

চল্লিশেও চনমনে থাকুক নারী!

  • প্রকাশিত ১২:৪১ দুপুর আগস্ট ৯, ২০২০
নারী
পেক্সেলস

মাঝবয়সে এসে মন খুলে স্বাগত জানান আপনার জীবনের এই নতুন অধ্যায়কে, তবেই না বয়সকে বুড়ো আঙুল দেখাতে পারবেন!

প্রত্যেক বয়সেরই একটা নিজস্ব সৌন্দর্য রয়েছে, রয়েছে মাধুর্য। বরং এখন তো আপনি অনেক বেশি পরিণত, আপনার অভিজ্ঞতার ঝুলি অনেক বেশি সমৃদ্ধ। আর সেই দীপ্তি তো আপনাকে আরও বেশি সুন্দর করে তুলছে। 

বয়সের সঙ্গে শরীর ও মনে পরিবর্তন আসবেই। আর সেগুলো মেনে নেওয়াই তো ভালো থাকার মূলমন্ত্র। বয়সের সঙ্গে আপনার শরীরও একটু একটু করে বদলাতে থাকবে। 

আসল কথা হলো আপনার মনটাকে তরুণ রাখতে হবে। আর মেনে নিতে হবে যে বয়সের সঙ্গে বদলটা অনিবার্য। তাই এই ছোটছোট পরিবর্তনগুলোর সম্বন্ধে জেনে ও মেনে নিলেই দেখবেন চল্লিশ পেরিয়েও ভাল আছেন। নিজেকে কোনওভাবেই আর “বুড়ি” মনে হচ্ছে না!

ওজন অঙ্ক

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ৪০-৫৫ বছরের মধ্যে নারীদের ওজন প্রায় ১৫ পাউন্ড পর্যন্ত বাড়তে পারে। আর এর মূল কারণ কমতে থাকা মেটাবলিক রেট ও মাসল লস। ৩০ বছর থেকেই আমদের শরীরে মাসল টিস্যু লস শুরু হয়ে যায়। ৪০ বছরের পরে রেস্টিং মেটাবলিজ়ম অনেকটাই কমে যায়। ফলে শরীর আগের তুলনায় অনেক কম ক্যালরি ক্ষয় করতে পারে।

সুতরাং, আপনি ২০ বছরেও যে ধরনের খাবার খেতেন, ৪০-এও যদি সেইরকম ইটিং হ্যাবিটস বজায় রাখেন তাহলে ওজন আপনার সঙ্গে মোটেও সহযোগিতা করবে না। তারচেয়ে খাওয়া-দাওয়ার অভ্যেস ও নিজের লাইফস্টাইলকে একটু বদলে তো ফেলাই যায়। এক্সারসাইজ় করুন, অ্যাক্টিভ থাকুন। বেশি পরিমাণে অর্গ্যানিক প্রোটিন খান। দেখবেন ওজন চট করে বাড়ছে না।

গ্ল্যামার নিয়ে দুশ্চিন্তা

চল্লিশে এসে চোখের নিচে হয়ত হালকা বলিরেখা দেখা দিচ্ছে বা চুলেও খানিকটা পাক ধরেছে। এতে কিন্তু আপনার সৌন্দর্য একটুও কমেনি। মানুষ তার আত্মবিশ্বাসের জোরে সুন্দর। ফর্সা রং, ঢেউখেলানো চুল কিংবা নির্মেদ চেহারা সৌন্দর্যের মাপকাঠি হতেই পারে। তবে আত্মবিশ্বাস না থাকলে এসবকিছুই কিন্তু ম্লান হয়ে যায়। 

আর জানলে অবাক হবেন, চল্লিশের কোঠায় নারীদের আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে থাকে। আর একই কারণে অন্যের ওপর ভরসাও বিশেষ করতে হয় না। কয়েক বছর আগেও হয়তো যে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগতেন, তা কিন্তু অনেকটাই কমে যায়। আর যেহেতু অভিজ্ঞতা আপনাকে আরও ঋদ্ধ করেছে ফলে তার ছাপ আপনার ব্যক্তিত্বেও পড়ে। আসলে বয়সের সঙ্গে সহনশীলতা, ক্ষমপরায়ণতা, ঔদার্যও তো বাড়ে। এগুলো তো আপনাকে আরও সুন্দরই করে তোলে তাই না? এই সৌন্দর্যটা নিশ্চয় ২২ বা ৩২-এ সম্ভব নয়!

পিরিয়ড প্রবলেম

চল্লিশ পেরোলে ধীরেধীরে মেনস্ট্রুয়াল সাইকেলে কিছু পরিবর্তন আসতে পারে। এই পরিবর্তনগুলোর মেয়াদ ধরে নিন প্রায় ১০ বছর, অর্থাৎ যতদিন না মেনোপজ় আরম্ভ হচ্ছে। এই পর্যায়কে ডাক্তারি ভাষায় বলে পেরিমেনোপজ। আসলে শরীর তো একটা মেশিন। তাকেও নিজেকে নিরন্তর আপডেট করতে হয়। মেনোপজ়ের জন্য নিজেকে আস্তেআস্তে এভাবেই তৈরি করে শরীর। 

রিপ্রডাক্টিভ হরমোন (ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্টেরন), যা আপনার মেনস্ট্রুয়াল সাইকেলকে নিয়ন্ত্রণ করে এসময় ফ্লাকচুয়েট করতে পারে। এদের ব্যালন্সে পরিবর্তন আসতে পারে। আর তারজন্য হতে পারে অনিয়মিত পিরিয়ড, ইনসমনিয়া, মাথাব্যথা, হট ফ্লাশের মতো সমস্যা। শরীরের কোথাও কোথাও অবাঞ্ছিত রোমও দেখা দিতে পারে। আবার যৌনমিলনে অতিরিক্ত ইচ্ছে বা অনিচ্ছা তৈরি হতে পারে। তবে সবার ক্ষেত্রে যে একইরকম উপসর্গ দেখা দেবে তা কিন্তু নয়। এরমধ্যে অনিয়মিত পিরিয়ডের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। হয়তো আগের তুলনায় বেশি রক্তপাত হবে বা তলপেটে বেশি ব্যথা অনুভব করবেন। আবার কোনও কোনও মাসেই পিরিয়ড হয়তো দেখলেন হলই না। এরসঙ্গে মুড সুইং, অ্যাংজাইটি হওয়াটাও স্বাভাবিক। জানি, এসব পড়ে একদম ভালো লাগছে না। তবে এই বদলগুলো আপনাকে মানতে শিখতেই হবে। নাহলে তো ভাল থাকাটাই চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠবে।

হাড়ের স্বাস্থ্য 

মোটামুটি ৩৫ বছর পর্যন্ত বোন ডেনসিটি এক জায়গায় থিতু থাকে। আর তারপর প্রতিবছর ১% করে বোন ডেনসিটি কমতে থাকে। ৪০ বছর পৌঁছতে পৌঁছতে হয়তো তা আপনিও কিছুটা হলে বুঝতে পারবেন। তবে এই নিয়ে চিন্তা করার কিছু নেই। ৬৫ বছর পর্যন্ত নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন। 

নিয়মিত ব্যায়াম করলে হাড় মজবুত হয়। ক্যালশিয়াম সাপ্লিমেন্ট খেলেও উপকার পেতে পারেন। তবে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অবশ্যই নেবেন। মোটামুটি প্রতিদিন ১৫০০ মিলিগ্রাম ক্যালশিয়াম আর ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট খেলে উপকার হবে। ম্যাগনেশিয়ামও শরীরে ক্যালশিয়াম অ্যাবসর্ব করতে সাহায্য করে। সুতরাং মিনারেল সমৃদ্ধ খাবার যেমন দুধ, দই, বাঁধাকপি, বিন, মটরশুঁটি, কলা জাতীয় খাবার ডায়েট তালিকায় অবশ্যই রাখুন। হাড়ের যত্ন আগে থেকে নিলে অস্টিওপোরসিসের মতো সমস্যা ঠেকিয়ে রাখতে পারেবেন।

পরিশেষে, মাঝবয়সে এসে মন খুলে স্বাগত জানান আপনার জীবনের এই নতুন অধ্যায়কে, তবেই না বয়সকে বুড়ো আঙুল দেখাতে পারবেন। আর জোর গলায় বলতে পারবেন “এইতো সবে শুরু!”

60
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail