• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ০৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:১৯ সকাল

শিশুকে সকলের প্রতি সহমর্মিতা শেখাবেন যেভাবে

  • প্রকাশিত ০৪:১৯ বিকেল অক্টোবর ৩১, ২০২০
শিশু-সানন্দা
পেক্সেলস

শিশুকে সঙ্গে করে সপ্তাহে অন্তত একদিন কোনও বৃদ্ধাশ্রম, অনাথাশ্রমের মত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় নিয়ে যান। এতে, অন্যের দুঃখ-কষ্টের সঙ্গে পরিচিত হয়ে মানুষের পাশে দাঁড়াতে শিখবে

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ইঁদুরদৌড়ে সন্তানকে যোগ্য করে তুলতে গিয়ে আমরা যেন ভুলেই যাচ্ছি সহমর্মিতা ও সংবেদনশীলতার মত মুল্যবোধের গুরুত্ব। বিশেষজ্ঞদের মতে, সংবেদনশীলতা বা “এমপ্যাথি” সাধারণত তিনধরনের হয়, ইমোশন্যাল, কগনিটিভ এবং কমপ্যাশনেট। ইমোশন্যাল এমপ্যাথি আমাদেরকে অন্যের দুঃখের অংশীদার হতে বা সমব্যথী হতে সাহায্য করে। কগনিটিভ এমপ্যাথি আমাদেরকে অপরের দৃষ্টিভঙ্গি বা পারস্পেকটিভ সম্পর্কে অবগত করে। কমপ্যাশনেট এমপ্যাথি মানুষকে অন্যের অনুভূতি বুঝে সঠিক পদক্ষেপ নিতে সাহায্য করে।

ওকে আবেগ চিনতে শেখান

১. ছোটবেলা থেকেই বাচ্চাকে বিভিন্ন আবেগের সঙ্গে পরিচয় করানো ভাল। কারসঙ্গে খারাপভাবে কথা বললে, বা আঘাত করলে তার যে মন খারাপ হয় বা সে যে ব্যথা পেতে পারে সেই সম্পর্কে ওকে জানিয়ে রাখুন। “তোমার এই আচরণে আমি খুব কষ্ট পেয়েছি, বা তোমার বোন খুব কেঁদেছে” এই ধরনের কথা বলতে সঙ্কোচ করবেন না। একইসঙ্গে ওকে প্রশ্ন করুন, “এরকম ব্যবহার কেউ তোমার সঙ্গে করলে, তোমার ভাল লাগবে?” 

২. অন্যের দুঃখ-কষ্ট বা সুবিধা-অসুবিধাকে সঙ্গে একাত্ব হওয়াই কিন্তু সহমর্মিতার প্রথম সোপান। তবে বকাঝকা করে নয় ঠাণ্ডামাথায়, নরমভাবে বোঝাবেন কোথায় ওর ভুল হয়েছে। যারসঙ্গে ও খারাপ ব্যবহার করেছে তার কাছে “সরি” বলার শিক্ষা দিন। 

৩. কারও প্রতি সহমর্মিতা দেখালে, কাউকে সাহায্য করলে আপনার শিশুকে  প্রশংসা করতেও ভুলবেন না।

প্রচলিত নীতিগল্পর সঙ্গে পরিচয় করান

১. বাচ্চাদের মধ্যে সহানুভূতিশীলতা গড়ে তুলতে হলে, নিয়মিত ঈশপের গল্পের মত প্রচলিত নানান নীতিকথা শোনান। একইসাথে বইও উপহার দিতে পারেন। এতে ওর মধ্যে সহমর্মিতাও গড়ে উঠবে, বই পড়ার সুঅভ্যাসও তৈরি হবে। 

২. কমবেশি বহু বাচ্চাই কার্টুন বা কমিকসের ভক্ত। তাই ওর প্রিয় সুপারহিরো বা চরিত্র কীভাবে অন্যের পাশে দাঁড়ায়, অপরের দুঃখ বোঝে, সে সম্পর্কে ওকে বুঝিয়ে বলুন।

নিজেও করুন সহমর্মিতার চর্চা

১. বাচ্চা কিন্তু আপনাকে দেখেই শিখবে। তাই নিজে আগে যথাসম্ভব সহানুভূতিশীল হোন। শিশুকে দেখিয়ে নিজেই এর চর্চা শুরু করুন জীবনে। দেখবেন আপনিই হয়ে উঠবেন ওর সহমর্মিতা শেখার আদর্শ শিক্ষক!

২. বাচ্চাকে সমাজের সমস্ত শ্রেণীর মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে উৎসাহ দিন। 

৩. একটু বড় হলে, ওকে সঙ্গে করে সপ্তাহে অন্তত একদিন কোনও বৃদ্ধাশ্রম, অনাথাশ্রম বা অ্যানিম্যাল শেল্টারের মত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় নিয়ে যেতে পারেন। অন্যের দুঃখ-কষ্টের সঙ্গে পরিচিত হবে ও। দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতেও শিখবে

50
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail